নারীর স্বাধীনতার পক্ষে সৌদি প্রিন্স

55

যুগবার্তা ডেস্কঃ‘আমি নারীদের আরো বেশি স্বাধীনতার পক্ষে। আমরা বিশ্বাস করি ইসলামে নারীদের যে সকল অধিকার রয়েছে তারা তা ভোগ করবে সৌদি আরব ডেপুটি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান এ কথা বলেছেন।ব্হৃস্পতিবার সৌদি আরবের রৌওদা খুরাইমে ব্লুমবার্গ এর পিটার ওয়াল্ডম্যান এর সাথে একটি সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা বলেন।
প্রিন্স মোহাম্মদ বলেন, ‘সৌদি আরব মজলিশ শূরা কাউন্সিল মহিলাদের গাড়ি চালনায় অনুমোদন দিলে তার সমর্থন থাকবে। কিন্তু, মহিলাদেরকে ইসলামের পুর্ন অধিকার দিতে গিয়ে যেন ধর্মীয় অনুশাসনের ক্ষতি না হয় সেই বিষয়ে আমরা কাজ করছি।’
তিনি বলেন, ‘আমাদের নাগরিকদের অধিকারের বিষয়ে আমরা সচেতন। যেখানে তাদের অর্ধেকই নারী এবং তাদেরকে আমরা উৎপাদনশীল অর্ধেক হিসেবেই দেখতে চাই।’
সৌদি প্রিন্স বলেন, ‘মরহুম বাদশা আব্দুল্লাহ বিন আব্দুল আজিজের সাথে কিছু প্রাথমিক মতপার্থক্য থাকা সত্ত্বেও তার প্রয়াত বাদশাহ আব্দুল্লাহ বিন আব্দুল আজিজ এর সেরা পরামর্শদাতা হওয়া সম্পর্কেও তিনি মন্তব্য করেন।
ব্লুমবার্গ এখানে উল্লেখ করে যে, একবার সৌদি রাজসভায় তাকে নিয়ে অসহযোগিতার গুজব ছড়ালে বাদশাহ আব্দুল্লাহ বিন আব্দুল আজিজ তাকে প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিলেন, তখন তার বয়স ছিলো ২৬। পরবর্তিতে তাদের সম্পর্ক ঘনিষ্ট হলে তারা একথা বিশ্বাস করতেন যে, সৌদি আরবের মৌলিক পরিবর্তন দরকার। অন্যথায় যেভাবে সারা বিশ্ব তেল নির্ভরতা কমিয়ে দিচ্ছে তাতে দেশের সর্বনাশ দেখতে হবে।
বিগত ২ বছরে, বাদশাহের উৎসাহে তিনি সন্তর্পণে সৌদি আরবের সরকার ব্যবস্থা ও অর্থনৈতিক মৌলিক পূনর্গঠনের পরিকল্পনা করেছেন, যাকে তিনি তার পোস্ট-কার্বন ভবিষ্যৎ প্রজন্মের নাগরিকদের জন্য “ভিন্ন স্বপ্ন” নামে আখ্যায়িত করেন।
তিনি এটাও প্রকাশ করেন যে, বিগত বছরে সৌদি আরবের বৈদেশিক মুদ্রার ব্যয় আগের তুলনায় অনেক বেড়ে যাওয়ায় তার উপদেষ্ঠাদের মধ্যে উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছিলো। যা মাত্র দুই বছরেই নিয়ন্ত্রনে আনার চেষ্টা করা হয়েছে।
বিগত বছরে প্রায় ২০০ বিলিয়ন ডলার বাজেট ঘাটতি হয় – আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের মূল্য নিন্মগামি ও বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে ভবিষ্যতে শুধু জ্বালানি তেল রপ্তানির উপর নির্ভর করে দেশের ব্যয় মিটানো প্রায় অসম্ভব বলে মনে করেন তিনি।তাই ইতি মধ্যে সরকার অনেক নতুন পরিকল্পনার চিন্তা করছেন বলেও জানান প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান।