Home জাতীয় নলডাঙ্গায় নদীতে ঝাপ দিয়ে নিখোঁজ কলেজ ছাত্রের লাশ উদ্ধার

নলডাঙ্গায় নদীতে ঝাপ দিয়ে নিখোঁজ কলেজ ছাত্রের লাশ উদ্ধার

44

বুলবুল আহমেদ নাটোর প্রতিনিধি: নাটোরের নলডাঙ্গায় ইমন আলী (১৭)নামে এক কলেজ ছাত্র এলাকার ছেলেদের নদীতে লাফ দিয়ে ঝাপিয়ে পড়া দেখে সেও ঝাপ দেয়। কিন্তু সে সাবার অলক্ষে নদীতে ডুবে নিখোঁজ হয়। নিখোঁজের প্রায় ২৬ ঘন্টা পর লাশ উদ্ধার ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। বুধবার বেলা সাড়ে তিনটার দিকে ডুবুরি ও ফায়ারসার্ভিসকর্মীরা স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় ঘটনাস্থলের দেড় কিলোমিটার দূরের সোনাপাতিল গ্রাম থেকে তার লাশ উদ্ধার করে। ইমন আলী নলডাঙ্গা পৌরসভার হলুদঘর মহল্লার কৃষক সিরাজুল ইসলামের ছেলে একই এলাকার সাধনপুর বিএম কলেজের একাদশ শ্রেনীর ছাত্র।
স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার দুপুরে হলুদ ঘর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠের সামনে বারনই নদীর পানিতে লাফালাফি করছিল কয়েকজন ছেলে।। বর্ষায় নতুন পানি আসায় প্রবাহমান এই নদীতে ইমন আলী সেখানে যায়। এক সময় সে সাইকেলটি রেখে গায়ের গেঞ্জি খুলে নধীতে ঝাপ দেন। এরপর সে নদীতে তলিয়ে যায়। এসময় একই গ্রামের ওসমান আলীর ছেলে সোহেল (৩০) নদীর পাড়ে দাঁড়িয়ে মোবাইল ফোনে ছেলেদের লাফালাফির ভিডিও ধারণ করছিল। কিন্তু ইমনের নদীতে তলিয়ে যাওয়ার বিষয়টি কেউ খেয়াল করেনি।

সন্ধ্যার পর নদীর তীরে গিয়ে এলাকার লোকজন তার বাই সাইকেল, স্যান্ডেলসহ কাপড় পড়ে থাকতে দেখে। পরে তার খোঁজে নদীতে নেমে অনুসন্ধান চালানো হয়। খবর পেয়ে নাটোর ফায়ার স্টেশনের ডুবরি দল ও পুলিশসহ স্থানীয়রা নদীতে রাত ১১টা পর্যন্ত অনুসন্ধান চালালেও তাকে আর পাওয়া যায়নি। পরে বুধবার সকাল ১১টার দিকে রাজশাহীর ডুবরি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে অনুসন্ধান শুরু করে।

নলডাঙ্গা থানার ওসি নজরুল ইসলাম জানান, স্থানীয় কিশোর ও যুবকদের নদীতে ঝাঁপ দিতে দেখে ইমনও নদীতে ঝাঁপ দিয়ে তলিয়ে যায়। রাতে অনুসন্ধান চালিয়ে ইমনের সন্ধান না পাওয়ায় বুধবার সকাল থেকে এলাকাবাসী কে নিয়ে ফায়ার সার্ভিস ও রাজশাহী থেকে আসা ডুবুরীরা নদীর ভাটির দিকে নৌকা নিয়ে ইমনের লাশের অনুসন্ধান শুরু করে। পরে বিকেলে তার লাশ পাওয়া যায়। একমাত্র ছেলেকে হারিয়ে এখন পাগলের মতো বিলাপ করছেন কৃষক সিরাজুল ইসলাম। নলডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃআব্দুল্লাহ আলমামুন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।