নবীনগরে ইউপি নির্বাচন: নৌকার বিরোধিতা করা ২২প্রার্থী এবার আ’লীগের মনোনয়ন চেয়েছেন!

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে গত ইউপি নির্বাচনে আ’লীগের দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী এবং উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলের বিরোধিতা করা ছয়জন ইউপি চেয়ারম্যানসহ ২২প্রার্থী আ’লীগ থেকে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন।
নির্বাচনে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী হলে তাকে আর কখনই নৌকা প্রতীক দেওয়া হবে না। আজীবন দল থেকে অব্যাহতি দেওয়ার কথা থাকলেও আ’লীগের বিরোধিতা করা এসব প্রার্থীরা দলীয় মনোনয়ন চাওয়ায় কর্মীদের মাঝে ক্ষাভের সৃষ্টি হয়েছে।
গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আ’লীগের প্রার্থী কাজী জহিরউদ্দীন সিদ্দিক টিটো জানান, গত উপজেলা নির্বাচনে নবীনগর পশ্চিম ইউপি চেয়ারম্যান মো. ফিরোজ মিয়া, নবীনগর পূর্ব ইউপি চেয়ারম্যান মৌসুমী আক্তার, শ্রীরামপুর ইউপি চেয়ারম্যান আজাহার হোসেন জামাল, ইব্রাহিমপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু মুছা, রসুল্লাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান আলী আকবর, সলিমগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম সরাসরি নৌকার বিরোধিতা করেছেন। নৌকার বিরোধিতা করেও তাঁরা এবার আ’লীগের মনোনয়ন চাচ্ছে। এরা সুবিধাবাদী, মনে-প্রাণে আওয়ামী লীগের কেউ নন। তাদের ব্যাপারে জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদকসহ কেন্দ্রে অবহিত করা হয়েছে।
উপজেলা আ’লীগ বলছে, বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়া এবং দলের প্রার্থীর বিপক্ষে কাজ করাদের মধ্যে যারা দলীয় মনোনয়ন কিনেছে তাদের আমলনামা লিখে কেন্দ্রীয় কমিটিতে পাঠানো হবে।
জানা যায়, তৃতীয় ধাপে নবীনগর উপজেলার ২১ইউনিয়নের মধ্যে ১৩টিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
এতে নবীনগর পূর্ব ইউনিয়নে চেয়ারম্যান মৌসুমী আক্তার, নবীনগর পশ্চিম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. ফিরোজ মিয়া, শ্রীরামপুরের চেয়ারম্যান আজাহার হোসেন জামাল, ইব্রাহিমপুর ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান আবু মুছা, রসুল্লাবাদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলী আকবর ও সলিমগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম এবার আ’লীগের দলীয় মনোনয়ন কিনেছেন। এছাড়াও দলের বিরোধিতা করা অনেকেই এবারের ইউপি নির্বাচনে লড়তে আ’লীগের মনোনয়ন ফরম কিনেছেন। পূর্ব ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মৌসুমি আক্তার বলেন, আমি নৌকার বিদ্রোহী হয়েও গত নির্বাচনে জয়ী হয়েছি। নৌকার মনোনয়ন চেয়েছি, দিলে নির্বাচন করব। পূর্ব ইউনিয়নের আ’লীগ সভাপতি শামছুল হক ও সাধারন সম্পাদক লিয়াকত আলী ইউনিয়নসহ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আ’লীগের প্রার্থীর বিরোধীতা করেন। তারাও দলীয় মনোনয়ন চেয়েছেন। এছাড়া এই ইউনিয়নে প্রার্থী হয়েছেন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ নাছির উদ্দিন। তিনি উপজেলা আ’লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক।
জানা যায়, ১৩টি ইউনিয়নে ১০৪জন চেয়ারম্যান প্রার্থী আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম পূরণ করে জমা দিয়েছেন। ১৩ইউনিয়নের মধ্যে ১১ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যানরা আ’লীগ থেকে মনোনয়ন ফরম কিনে জমা দিয়েছেন।
এদিকে গত ১৬অক্টোবর শনিবার বিকেলে নবীনগর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে তৃণমূল নেতাদের সাথে মতবিনিময় সভায় উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও সাবেক সাংসদ ফয়জুর রহমান বাদল বলেন, দলের বিপক্ষে যারা কাজ করেছে কিংবা প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন তাদের আমলনামা তৈরি করে কেন্দ্রীয় কমিটিতে পাঠানো হবে। জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার বলেন, বিদ্রোহীসহ অন্যান্য অভিযোগ থাকা প্রার্থীদের বিষয়ে স্ব-স্ব উপজেলা আ’লীগকে সিদ্ধান্ত নিতে বলা হয়েছে।