নবীনগরে ইউপি নির্বাচনঃ নৌকার বিরোধিতা করা ছয় ইউপি চেয়ারম্যান আবারও আ’লীগের মনোনয়ন চান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি: নবীনগরে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে গত বারের ছয় বিদ্রোহী এবার আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। এতে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে। এছাড়াও নয়টি ইউনিয়নে নৌকার বিরোধিতা করা আরো ১৫ জন মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন বলে জানা গেছে।
গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী কাজী জহিরউদ্দীন সিদ্দিক টিটো জানান, বিগত উপজেলা নির্বাচনে নবীনগর পশ্চিম ইউপি চেয়ারম্যান মো. ফিরোজ মিয়া, নবীনগর পূর্ব ইউপি চেয়ারম্যান মৌসুমী আক্তার, শ্রীরামপুর ইউপি চেয়ারম্যান আজাহার হোসেন জামাল, ইব্রাহিমপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু মুছা, রসুল্লাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান আলী আকবর, সলিমগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম সরাসরি নৌকার বিরোধিতা করেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া নৌকার বিরোধিতা করে তাঁরা এবার আওয়ামীলীগের মনোনয়ন চাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, তাঁদের ব্যাপারে আমি জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ কেন্দ্রে জানিয়েছি।
উপজেলা আওয়ামীলীগ সূত্রে জানা যায়, তৃতীয় ধাপে এই উপজেলার ২১ ইউনিয়নের মধ্যে ১৩ টিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এতে নবীনগর পূর্ব ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম কিনেছেন বর্তমান চেয়ারম্যান মৌসুমী আক্তার। এছাড়াও নবীনগর পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান মো. ফিরোজ মিয়া, শ্রীরামপুরের চেয়ারম্যান আজাহার হোসেন জামাল, ইব্রাহিমপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান আবু মুছা, রসুল্লাবাদের চেয়ারম্যান আলী আকবর ও সলিমগঞ্জের চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম এবার আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন কিনেছেন। এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে দলের বিরোধিতা করা অনেকেই এবারের ইউপি নির্বাচনে লড়তে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন ফরম কিনেছেন।
মৌসুমী আক্তার এই ইউনিয়নের প্রয়াত চেয়ারম্যান খায়ের বারীর স্ত্রী। তার স্বামী ২০১৬ সালের ২০ জানুয়ারি মারা যাওয়ার পর তিনি নির্বাচনে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে জয়ী হন।
মৌসুমি আক্তার বলেন, আমি নৌকার বিদ্রোহী হয়ে গত নির্বাচনে জয় লাভ করেছি। এবার নৌকার মনোনয়ন চেয়েছি দল মনোনয়ন দিলে নির্বাচন করব।
জানা যায়, ১৩টি ইউনিয়নে ১০৮ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন কিনেছেন। এর মধ্যে ১০৪ জন তাদের মনোনয়ন ফরম পূরণ করে জমা দিয়েছেন। ১৩ ইউনিয়নের মধ্যে ১১ ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যানরা আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন ফরম কিনে জমা দিয়েছেন।
নবীনগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহমান বলেন, দলীয় মনোনয়ন ফরমের মন্তব্য কলামে প্রত্যেকের আমলনামা লিখে কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। কেন্দ্র থেকে যেহেতু দলীয় মনোনয়ন চুড়ান্ত করা হচ্ছে, সেহেতু কেন্দ্র এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিবে।
উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক সাংসদ ফয়জুর রহমান বাদল বলেন, বিগত নির্বাচনে যারা দলের প্রার্থীর বিপক্ষে কাজ করেছেন কিংবা দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন তাদের আমলনামা তৈরি করে কেন্দ্রীয় কমিটিতে পাঠানো হবে। কেন্দ্র যা ভালো মনে করবে তাই করবে।
জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার বলেন, বিদ্রোহীসহ অন্যান্য অভিযোগ থাকা প্রার্থীদের বিষয়ে স্ব স্ব উপজেলা আওয়ামীলীগকে সিদ্ধান্ত নিতে বলা হয়েছে।