Home জাতীয় নওগাঁ পৌরসভা ও নিয়ামতপুরে সপ্তাহব্যাপী বিশেষ লকডাউন

নওগাঁ পৌরসভা ও নিয়ামতপুরে সপ্তাহব্যাপী বিশেষ লকডাউন

117

নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁয় করোনা সংক্রমন বেড়ে যাওয়ায় সাতদিনের বিশেষ লকডাউন ঘোষনা করেছে জেলা প্রশাসন। বুধবার দুপুরে জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসক হারুন অর রশীদ সংবাদ সম্মেলন করে এ সিদ্ধান্ত নেন। ৩ জুন ১২ টা ১ মিনিট থেকে এ বিশেষ লকডাউন কার্যকর হবে। চলবে আগামী ৯ জুন রাত ১২টা পর্যন্ত।

জেলা প্রশাসক হারুন অর রশীদ জানান, গত ৩০ মে জেলায় করোনা ভাইরাস সংক্রমনের বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে এক স্মারকে নির্দেশনা দেওয়া হয়। সেই নির্দেশনা মোতাবেক গত ১ জুন জেলার করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় করণীয় শীর্ষক এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সিদ্ধান্তক্রমে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধকল্পে ১৫টি নির্দেশনা গ্রহন করা হয়।
তিনি বলেন, জেলার নিয়ামতপুর উপজেলার পরই পার্শ্ববতী জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জ। সীমান্তবর্তী জেলা হওয়ায় সেখানে করোনা সংক্রমনের হার বেড়েছে। এ কারণে নিয়ামতপুর উপজেলায় সংক্রমনের হার বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া জেলা শহরের সঙ্গে বাকী ১০ টি উপজেলায় যোগাযোগ হওয়ায় নওগাঁ পৌরসভাতেও সংক্রমণ বেড়েছে। এ কারণে জেলা শহর সহ অভ্যন্তরীন ও দুরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ করা হয়েছে।

লকডাউন চলাকালীন নির্দেশনা সমূহ হলো:

১। নওগাঁ পৌরসভা এবং নিয়ামতপুর উপজেলার সকল প্রকার গণপরিবহন (বাস, মিনিবাস, মাইক্রোবাস, সিএনজি, অটোরিক্সা, টমটম, রিক্সা, মোটর সাইকেল ইত্যাদি) বন্ধ থাকবে।

২। নওগাঁ পৌরসভা এবং নিয়ামতপুর উপজেলায় কাঁচাবাজার ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৭ টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে। তবে প্রয়োজন ব্যতীত কেউ এসব স্থানে যেতে ও জনসমাগম করতে পারবেন না।

৩। নওগাঁ পৌরসভা এবং নিয়ামতপুর উপজেলায় শপিংমল সহ অন্যান্য দোকানপাট, গরু-ছাগলের হাট সমূহ; খাবারের দোকান, হোটেল-রেস্তোরা বন্ধ থাকবে। তবে ওষুধের দোকান খোলা রাখা যাবে।

৪। নওগাঁ পৌরসভা এবং নিয়ামতপুর উপজেলায় সরকারি অফিস ও ব্যাংকসমূহ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, প্রযোজ্য ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংক ও সরকারের অন্যান্য নির্দেশনার আলোকে শুধুমাত্র জরুরী কাজে সীমিত লোকবল নিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরিচালনা করতে হবে।

৫। নওগাঁ পৌরসভা এবং নিয়ামতপুর উপজেলায় সকল এনজিও কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

৬। এ বিধি-নিষেধরে আওতাধীন এলাকাসমূহে সন্ধ্যা ৬টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত অতি জরুরী প্রয়োজন ব্যতীত (ঔষধ ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ইত্যাদী) কোন ভাবেই বাড়ির বাহিরে বের হওয়া যাবে না।