দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় সকল প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান

70

যুগবার্তা ডেস্কঃ বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি কমরেড রাশেদ খান মেনন ও সাধারণ সম্পাদক কমরেড ফজলে হোসেন বাদশা গতকাল রাত থেকে গুলশানের একটি রেস্তোরায় জঙ্গিদের আক্রমণে ২০ জন বিদেশী নাগরিক হত্যা ও জিম্মি ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে নিম্নলিখিত বিবৃতি প্রদান করেন।
নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষায় গুপ্ত হত্যা, টার্গেট কিলিং এর ধারাবাহিকতায় দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্রের আরেকটি বহিঃপ্রকাশ ঘটলো গুলশান ২নং একটি রেস্তোরায় সংগঠিত সন্ত্রাসী জঙ্গি আক্রমণ ও জিম্মি করার ঘটনায়। সন্ত্রাসী জঙ্গি গোষ্ঠীর এই আক্রমণের মধ্য দিয়ে তাদের রাজনৈতিক উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য প্রমাণ করেছে তারা মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক সশস্ত্র রাজনীতির মধ্য দিয়ে সরকার ও অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক পরিবেশকে অস্থিতিশীল করতে চায়।
নেতৃবৃন্দ গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আক্রমণের যে নতুন মাত্রা ও টার্গেট করেছে তা আরো পুনরাবৃত্তি ঘটতে পারে। এই পরিস্থিতি মোকাবেলা করার সর্বোচ্চ উদ্যোগ আমাদের সরকার ও আইনশৃংখলা বাহিনীকে নিতে হবে। অপর দিকে সন্ত্রাসীদের মোকাবেলা রক্ষার ক্ষেত্রে মাত্র ১০ ঘণ্টায় ন্যূনতম ক্ষয়ক্ষতির মধ্য দিয়ে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীকে পরাজিত করতে আমাদের সেনাবাহিনী, নৌ বাহিনী, সোয়াট, বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ বাহিনী সাহস ও দক্ষতার যে প্রমাণ রেখেছেন তাদের অভিনন্দন, শুধু তাই নয় এই অপারেশন পরিচালনায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকেও এই সফলতার জন্য অভিনন্দন।
সন্ত্রাসীদের মোকাবেলায় প্রথম ধাপেই বনানী থানার ওসি সালাউদ্দিন ও ডিবি সহকারী কমিশনার রবিউল ইসলাম গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু একটি বড় ক্ষতি এবং ঐ সাহসী পুলিশ অফিসারদের দেশপ্রেম তুলনাহীন। তাদের মৃত্যুতে নেতৃবৃন্দ তাদের পরিবারের প্রতি গভীর শোক ও সমবেদনা জানান। এ ছাড়াও জঙ্গিদের আক্রমণে সাধারণ নাগরিকসহ অন্য সাধারণ মানুষ যারা মারা গেছেন তাদের পরিবারের প্রতিও গভীর শোক ও সমবেদনা জানান। পুলিশ কনস্টেবলসহ আরো যারা আহত হয়েছেন তাদের প্রতিও সমবেদনা জানান। নেতৃবৃন্দ জঙ্গি গোষ্ঠীর এই বর্বর আক্রমণ এবং দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় এদেশের সকল প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।
এঘটনার প্রতিবাদে আগামীকাল ওয়ার্কার্স পার্টি বিক্ষোভ করবেন।
গুলশান রেস্তোরায় জঙ্গীবাদী গোষ্ঠীর নির্বিচার হত্যার নিন্দা জাসদেরঃ
জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এমপি এবং সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার এমপি গুলশান রেস্তোরায় জঙ্গীবাদী সন্ত্রাসী গোষ্ঠী কর্তৃক বেশ কয়েকজন দেশী-বিদেশী নিরীহ নাগরিকসহ কর্তব্য পালনকারী দুইজন পুলিশ কর্মকর্তাকে পৈশাচিকভাবে হত্যা এবং বেশ কয়েক জনকে জখম করার তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করেন। তারা বলেন, হত্যাকারীদের আক্রমণের ধরনই প্রমাণ করেছে, হত্যাকারীরা জিম্মি করে তাদের দাবি আদায়ের কোন সমঝোতার জন্য নয়, হত্যা করে তাদের শক্তি প্রদর্শন করতে চেয়েছিল। সে জন্যই তারা কোন সমঝোতার পথে না গিয়ে নির্বিচারে হত্যা করে। কিন্তু পুলিশ ও র‌্যাবসহ আইন শৃংখলা রক্ষা বাহিনীর সদস্যদের তড়িৎ গতিতে পদক্ষেপ নেয়ায় হত্যাকারীরা পালিয়ে যেতে ব্যর্থ হয়। তারা বলেন, এ হামলা জঙ্গীবাদীদের ঘৃণ্য বর্বর মানসিকতার নগ্ন বহিঃপ্রকাশ। এ হামলা বাংলাদেশসহ বিশ্ব শান্তি ও গণতন্ত্রের উপর হামলা। তারা বলেন, বাংলাদেশে গণতন্ত্র-উন্নয়ন-শান্তির ধারাকে ধ্বংস করে ভীতি ও আতংকের মধ্যযুগীয় বর্বরতা কয়েমই এ ঘৃণ্য জঙ্গীবাদী গোষ্ঠীর মূল উদ্দেশ্য। জাসদ নেতৃদ্বয়, শাহাদাৎবরণকারী দুইজন পুলিশ অফিসার ও নিহত বিদেশী নাগরিকদের শোকসন্তপ্ত পরিবার ও স্বজনদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। তারা আটকেপড়া জীবিতদের নিরাপদে মুক্ত এবং হত্যাকারী জঙ্গীদের নির্মূল করতে সশস্ত্রবাহিনী, পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাবসহ আইনশৃংখলা রক্ষা বাহিনীর সদস্যদের জীবন বাজী রেখে সফল অভিযান পরিচালনা করায় ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। তারা জঙ্গীবাদী গোষ্ঠীর মধ্যযুগী বর্বর হত্যা-খুনের রাজনীতির বিরুদ্ধে দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ এবং জঙ্গী দমনে সরকারের পাশে থাকার আহ্বান জানান। তারা একই সাথে জঙ্গী দমনে বাংলাদেশেরে পাশে থাকা এবং অব্যাহত সমর্থন প্রদান করায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।