দুতাবাসগুলোর দখলে সরকারের শতাধিক কাঠা জায়গা

যুগবার্তা ডেস্কঃ বাংলাদেশে অবস্থিত কয়েকটি দুতাবাস অবৈধ ভাবে দখল করে রেখেছে সরকারের শতাধিক কাঠা জায়গা। এর মধ্যে শুধু ফুটপাত নয়, দুতাবাসগুলোর দখলে সড়কের জায়গা ছিল এবং আছে। কিছু জায়গা থেকে দুতাবাসের ব্লক ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) সরিয়েছে। আবার কিছু জায়গা থেকে সংশ্লিষ্ট দুতাবাস নিজেরাই ব্লক সরিয়ে নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

ডিএনসিসির তথ্য মতে, অস্ট্রেলিয়ান ও রাশিয়ান দুতাবাসের দখলে অন্তত ১৬ কাঠা। এছাড়া অমেরিকান ক্লাবের দখলেও সড়কের জায়গা রয়েছে।দুই দুতাবাসের ১৬ কাঠার মধ্যে উদ্ধার হয়েছে ১০ কাঠা। বাকিটা অস্ট্রেলিয়ান দুতাবাস নিজেরাই মুক্ত করবে। এছাড়া আরো কয়েকটি দুতাবাসের দখলে থাকা ফুটপাতসহ সড়কের জায়গা মুক্তের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।

গত ২৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) ফুটপাত থেকে নিরাপত্তামূলক কংক্রিট প্লান্টারসহ অন্যান্য প্রতিবন্ধকতা অপসারণের অনুরোধ জানিয়ে আট দুতাবাসে চিঠি দেয়।

অনুরোধে সাড়া দিয়ে আমেরিকা দূতাবাস ফুটপাত থেকে প্লান্টার সরিয়ে পথচারীদের চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়। কানাডা দূতাবাসও ফুটপাটে চলার ব্যবস্থা করে দেয়। পরবর্তী সময়ে ইতালি, রাশিয়া, সৌদি আরব এবং পাকিস্তান দূতাবাসের সামনের ফুটপাত থেকেও কংক্রিট প্লান্টার ব্লক অপসারণ করা হয়।

সবশেষ ২৬ এপ্রিল অস্ট্রেলিয়ান দূতাবাসের সামনে গুলশান নর্থ অ্যাভিনিউয়ের পার্শ্ববর্তী ফুটপাত থেকে ৩৩টি কংক্রিট প্লান্টার ব্লক অপসারণ করা হয়। দূতাবাস কর্তৃপক্ষ নিজ উদ্যোগে আগামী ৭ মে রোববারের মধ্যে দূতাবাসের পেছনের ফুটপাত এবং দক্ষিণ দিকের ফুটপাত থেকে লোহার পোলসহ অন্যান্য প্রতিবন্ধকতা অপসারণ করবে।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন থেকে জানা যায়, অস্ট্রেলিয়ান দুতাবাসের নর্থ এভিনিউ এর পাশে ফুটপাত ছাড়া দখলে ছিলো (২৮২.৭৫ ফুট গুন ৩.৫ ফুট) ৯৮৯.৬২৫ বর্গ ফুট বা ১.৩৭৪৪ কাঠা। ৭ মে অপসারণ করলে দক্ষিণ পাশে বের হবে (৩৩১ ফুট গুন ৭.৭৫ ফুট) ২৫৬৫.২৫ বর্গ ফুট বা ৩.৫৬২৮ কাঠা ও পিছনের পাশে অর্থাৎ ৮৩ নং সড়ক বের হবে (২৪৮ ফুট গুন ৫.৭৫ ফুট)১৪২৬ বর্গ ফুট বা ১.৯৮০৫ কাঠা । মোট ৬.৯১৭৭ কাঠা।

রাশিয়ান দুতাবাসের সামনের দিকে অর্থাৎ পশ্চিম দিক গুলশান নর্থ এভিনিউ এর পাশে ফুটপাত ছাড়া দখলে ছিলো (৩ ফুট গুন ৪৯৮ ফুট) ১৪৯৪ বর্গ ফুট বা ২.০৭৫ কাঠা। পূর্ব দিকে অর্থাৎ সৌদি দুতাবাসের সামনে থেকে আসা ৮৪ নং সড়কে ফুটপাত ছাড়া দখলে ছিলো (৫০৫ ফিট গুন সাড়ে ৯) ৪৭৯৭.৫ বর্গ ফুট বা ৬.৬৬৩ কাঠা। মোট ৮.৭৩৮ কাঠা।

দুই দুতাবাসের দখলে ছিলো মোট ১৫.৬৫৫৭ কাঠা। দুতাবাস ছাড়া অমেরিকান ক্লাবের দখলে ছিলো সাড়ে ৫ শ বর্গ ফুট বা ০.৭৬৩৮ কাঠা।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. মঞ্জুর-ই-মওলা জানান, ফুটপাত থেকে প্রতিবন্ধকতা অপসারণে অমেরিকা, কানাডা, ইউকে, জার্মানি, ফ্রান্স, অস্ট্রেলিয়া, রাশিয়া, তুরস্ক-এই আট দুতাবাসে চিঠি দেওয়া হয়েছিলো। সৌদি আরব আর পাকিস্তান ন দুতাবাসকে চিঠি দেওয়া হয়নি। পাকিস্তান দুতাবাস নিজেরা কিছুটা বাধা সরিয়ে ফেলেছিলো আর বাকি যতটুকু ছিলো তা ডিএনসিসি সরিয়ে ফেলে। সৌদির সাথেও কথাবর্তার মাধ্যমে সরিয়ে ফেলা হয়।

তিনি জানান, ইটালির দখলেও সড়কের জায়গা ছিলো কিন্তু তাদের দখলে কি পরিমান জায়গা ছিলো তার মাপটা এখনো পুরোপুরি মিলানো হয়ে নি।

ডিএনসিসির এক কর্মকর্তা জানান, ইউকে, জার্মানি, ফ্রান্স ও তুরস্ক দুতাবাসের ফুটপাত মুক্তের ব্যাপারে ইতিবাচক অগ্রগতি নেই। পর্যায়ক্রমে এক এক করে আলোচনার মাধ্যমে মুক্ত করার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার একপাশ ক্লিয়ার হয়েছে, বাকি দুইপাশ ওরা নিজেরা কেটে নেবে। জার্মানির সাথে কথাবর্তা চলছে। অমেরিকা আসলে ক্লিয়ার করে নি। ওরা ফুটপাত থেকে ব্লক গুলো রাস্তায় নামিয়ে ও শিকলগুলো কেটে ফুটপাত মুক্ত করেছে। কানাডিয়ান দুতাবাস কিছুই করে নি, তারা ভিতরে আগে সাধারন মানুষ ঢুকতে দিতো না। এখন ভিতর দিয়ে জনগন চলতে পারে। অচিরেই ফুটপাত মুক্ত হয়ে যাবে। এ ব্যাপারে দুতাবাসগুলোর সঙ্গে নিয়মিত আলোচনা চলছে।

কয়েকদিন আগে ইতালি ও পাকিস্তান দূতাবাসের পার্শ্ববর্তী ফুটপাত থেকে ব্লক সরিয়ে নেওয়ার কাজ পরিদর্শনকালে ডিএনসিসি মেয়র আনিসুল হক বলেছিলেন, আপনাদের নিরাপত্তার বিষয়টি নগরপিতা হিসেবে আমি সর্বাগ্রে নিশ্চিত করতে সচেষ্ট, কিন্তু তাই বলে জনগণের রাস্তা বা ফুটপাতে তারা চলতে পারবে না এটা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।

কয়েকটি দূতাবাস ফুটপাতের পাশাপাশি রাস্তা দখল করে নিরাপত্তামূলক প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করায় তিনি বিস্ময় প্রকাশ করে বলেছিলেন, আমেরিকা এবং কানাডা যেখানে আমাদের আহ্বানে সাড়া দিয়ে এত বছর পর তাদের ফুটপাত উন্মুক্ত করে দিয়েছে; ইতালি এবং পাকিস্তান দূতাবাস সংলগ্ন ফুটপাত আজ উন্মুক্ত হচ্ছে; অস্ট্রেলিায় দূতাবাসও আজকে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে, সেখানে অন্যেরা কিভাবে ফুটপাত ছেড়ে রাস্তা পর্যন্ত দখল করে রাখে!-আমাদের সময়.কম