দুই সিনেমা নিয়ে এখনই টেনশনে ঘামছেন শ্রাবন্তী

238

রীতিমতো টেনশনে দিন কাটছে টলিউড অভিনেত্রী শ্রাবন্তীর। কী হয়, কী হবে—এই ভেবেই পাগলপারা দশা তাঁর। বলতে গেলে টেনশনের গুঁতোয় ঘেমে-নেয়ে একাকার অবস্থা তাঁর প্রতিনিয়ত। তবে টেনশনের মধ্যেও ভরসা তাঁর একটাই, তা হলো দর্শক। দর্শকের ওপরেই ভরসা রেখে আপাতত মাথা ঠান্ডা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। বাকিটা ওপরওয়ালার হাতে।
আসলে সামনের দুর্গাপূজায় শ্রাবন্তীর দু-দুটো সিনেমা একসঙ্গে মুক্তি পাবে। একটি বিরসা দাশগুপ্তের ‘শুধু তোমারই জন্য’, অন্যটি রাজ চক্রবর্তীর ‘কাঠমান্ডু’। একটিতে শ্রাবন্তীর বিপরীতে রয়েছেন নায়ক দেব। অন্যটিতে রয়েছেন নায়ক আবির। আর পূজার সময় মুক্তি পেতে চলা এ দুটো ছবি নিয়েই এখন ঘুম ছুটে যাওয়ার দশা শ্রাবন্তীর। তিনি বলেন, ‘খুব টেনশনে আছি ভাই। এবারের পূজাটা ভীষণ স্পেশাল। একই দিনে দুটো ছবি রিলিজ হচ্ছে। কী হবে, বুঝতে পারছি না।’
স্বাভাবিকভাবেই জোড়া ছবির চাপে এখন স্যান্ডউইচ দশা শ্রাবন্তীর। সে সঙ্গে চড়ছে প্রত্যাশার পারদ। ছবি হিট না হলে শ্রাবন্তীর হাতে থাকা বাকি সিনেমাগুলোতে কী প্রভাব পড়বে, তা নিয়ে একদিকে যেমন ক্রমে দুশ্চিন্তার বহর বাড়ছে।
তেমনি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে তাঁর ইমেজ ধরে রাখার ব্যাপারটিও রয়েছে। এরই মধ্যে শ্রাবন্তীর সামন্তরাল রেখায় উঠে আসতে শুরু করে দিয়েছেন বেশ কয়েকজন নায়িকাও। যে কারণে জোড়া ছবি সুপারহিটের মুখ দেখলে অনায়াসে সবাইকে টেক্কা দিয়ে এগিয়ে যেতে পারবেন তিনি। তবে আপাতত ভবিষ্যতের চিন্তায় না ঢুকে বাঙালি দর্শকের ওপরেই ভরসা রেখেছেন শ্রাবন্তী। নিজের মুখেই বললেন, ‘যে দর্শক আমাকে বারবার ভালোবাসা দিয়ে এই উচ্চতায় তুলে নিয়েছেন, তাঁদের ওপরেই টেনশন কাটানোর ভার ছেড়ে দিয়েছি। আশা করছি, দর্শকই ছবি দুটোকে সাফল্যের পথ দেখিয়ে নিয়ে যাবেন।’
বিরসা দাশগুপ্তের ‘শুধু তোমারই জন্য’ ছবিতে রয়েছে সম্পর্কের টানাপড়েন আর ভালোবাসার চিরন্তন টান। অন্যদিকে, রাজ চক্রবর্তীর ‘কাঠমান্ডু’ ছবিতে কিছুটা মজা থাকলেও রয়েছে সমসাময়িককালের কিছু ইস্যু। ফলে দুই ধারার দুটি ছবি নিয়ে এখন আশা-নিরাশার দোলাচলে শ্রাবন্তী। তবে এবারের পূজায় শুধু শ্রাবন্তীর দুটো ছবিই নয়, আসছে সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের ‘রাজকাহিনী’, অঞ্জন দত্তের ‘ব্যোমকেশ’ এবং অভিজিত গুহ ও সুদেষ্ণা রায়ের ‘ক্রস কানেকশন’।
ফলে এত ছবির ভিড়ে দর্শক কোন ছবিকে বেছে নেবেন, তা এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা। যে কারণে ছবি রিলিজের আগেই বল সোজা জনতা জনার্দনের কোর্টেই ঠেলে দিয়ে টেনশন কাটাতে চাইছেন শ্রাবন্তী। তাঁর আশা, দর্শকের ভালোবাসাই ফের সাফল্যের মুকুট এনে দেবে তাঁর মাথায়।