থাইল্যান্ড ধান চাষে বীমা বাধ্যতামূলক করছে

44

যুগবার্তা ডেস্কঃ থাইল্যান্ড সরকার ধান ফসলের জন্য বীমা নিশ্চিত করতে একটি প্রকল্প চালু করার প্রক্রিয়া শুরু করেছে । নতুন এই বীমা প্রকল্প ধান চাষীদের জন্য বাধ্যতামূলক করা হবে। বিপর্যস্ত কৃষকদের সহায়তায় সকারের ভর্তুকির বোঝা কমিয়ে আনতে প্রকল্পটি হাতে নেয়া হয়েছে।
নন-লাইফ ইন্স্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের একটি সূত্রের বরাত দিয়ে থাই পিবিএস জানিয়েছে, বাধ্যতামূলক এই বীমা প্রকল্প প্রাথমিকভাবে ব্যাংক অব এগ্রিকালচার অ্যান্ড এগ্রিকালচারাল কো-অপারেটিভস (বিএএসি) থেকে ঋণ নেয়া কৃষকদের ওপর বাস্তবায়ন করা হবে।
এর মাধ্যমে প্রায় ২৫ মিলিয়ন রাই বা ৪ মিলিয়ন হেক্টর ধান চাষের জমি বীমা আওতায় চলে আসবে। এই বীমা প্রকল্পের আওতায় প্রতি রাই বা দশমিক ১৬ হেক্টর জমির জন্য প্রিমিয়াম নির্ধারণ করা হয়েছে ১৩০ বাথ বা ৩.৬৫ মার্কিন ডলার।
বীমাকৃত জমির ফসল নষ্ট হলে প্রতি রাই’র বিপরীতে কৃষক ক্ষতিপূরণ হিসেবে পাবে ১১শ’ ১১ বাথ। বন্যা অথবা ব্যাপক বৃষ্টি, খড়া, ঝড় বা সাইক্লোন, ঠাণ্ডা আবহাওয়া বা হিম অর্থাৎ তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নিচে থাকলে, শিলাবৃষ্টি এবং আগুনের ঝুঁকি এই বীমার অন্তর্ভুক্ত।
তবে পোকা-মাকড়ের আক্রমনে জমির ফসল নষ্ট হলে চাষীরা রাই প্রতি ক্ষতিপূরণ পাবে ৫৫৫ বাথ। বর্তমানে থাইল্যান্ডের ৭টি বীমা কোম্পানি ধান চাষীদের এসব ঝুঁকির বিপরীতে বীমা সুবিধা দিচ্ছে। এক্ষেত্রে রাই প্রতি বীমা প্রিমিয়ামের পরিসর ১১৫ বাথ থেকে ৪৫০ বাথ।
ইন্স্যুরেন্স বিজনেস সুপারভিশন অ্যান্ড প্রমোশন কমিটির মহাসচিব সুথিপল থাভিচাইকার্ন জানিয়েছেন, রাই প্রতি প্রিমিয়াম ১৩০ বাথ হলেও প্রকৃতপক্ষে কৃষককে দিতে হবে ২০ বাথ। আর বাকি প্রিমিয়াম পরিশোধ করবে ব্যাংক (বিএএসি) । তবে একজন কৃষক সর্বোচ্চ ১৫ রাই’র বীমা সুবিধা পাবেন।