তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা, একমাস পর মামলা

27

রাজশাহী অফিসঃ রাজশাহীর পুঠিয়ায় তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে এলাকার প্রভাবশালীরা মাসব্যাপি আপস মীমাংসা করতে চাইলে ব্যর্থ হলে একমাস পর ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে পুঠিয়া থানায় একটি ধর্ষণ চেষ্টার মামলা দায়ের করেন।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, গত ২০ এপ্রিল দুপুর দেড়টার দিকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণীতে পড়–য়া (৯) স্কুলছাত্রী বাড়ীর পার্শে একটি ফাঁকা যায়গায় খেলাধুলা করছিলো। সেই সুযোগে উপজেলার ভালুকগাছী ইউনিয়নের ফুলবাড়ী দক্ষিণপাড়া গ্রামের কুরবান আলীর ছেলে কামরুল হাসান (২৫) টাকার লোভ দেখিয়ে একটি নির্মাণাধীন বাড়ীতে নিয়ে গিয়ে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়।

পরে মেয়েটির আত্মচিৎকারে পাড়া-প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে কামরুল হাসান পালিয়ে যায়। ঘটনার পর থেকে এলাকার প্রভাবশালীরা ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে কয়েকবার শালিশ বৈঠক করে আপস করার চেষ্টা করলে ব্যর্থ হয়।

স্কুলছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে ২১ মে রবিবার সকালে পুঠিয়া থানায় হাজির হয়ে কামরুল হাসানকে আসামি করে একটি ধর্ষণ চেষ্টার মামলা দায়ের করেন।

স্কুলছাত্রীর বাবা জানান, অনেকদিন থেকেই কাজের সুবাদে তিনি ও তার স্ত্রী ঢাকায় বসবাস করেন। তার ৯ বছরের তৃতীয় শ্রেণীতে পড়ুয়া স্কুলছাত্রী তার নানীর কাছেই থাকতেন গত ২০ এপ্রিল দুপুরে টাকার লোভ দেখিয়ে কামরুল হাসান তার মেয়েকে একটি নির্মাণাধীন ঘরে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। এঘটনা শোনার পর মামলা করতে চাইলে এলাকার প্রভাবশালীরা বাধা দেয় ও মিমাংসা করার চেষ্টা করে। কিন্তু তারা আপস করতে ব্যর্থ হলে আমি থানায় এসে মামলা করেছি।

পুঠিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তদন্ত রাকিবুল হাসান জানান, অভিযোগ পাওয়ার পর মামলা নেওয়া হয়েছে। ভিকটিমের জবানবন্দিও রেকর্ড করা হয়েছে। ভিকটিমকে পরীক্ষার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ওসিসিতে প্রেরণ করা হয়েছে ও আসামী গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।