তনু হত্যার প্রতিবাদে ছাত্র ধর্মঘট পালিত

37

প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনসমূহের ডাকা ধর্মঘটের সমর্থনে ‘নারী ও শিশু নিপীড়নের বিরুদ্ধে তেজগাঁও কলেজ’-এর আহ্বানে সর্বাত্মক ছাত্র ধর্মঘট পালন করলো তেজগাঁও কলেজের শিক্ষার্থীরা।
এসময় ‘নারী ও শিশু নিপীড়নের বিরুদ্ধে তেজগাঁও কলেজ’ এর সংগঠক রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী তাসনিম মাল্লিকের সভাপতিত্বে ছাত্রনেতা মনির আহম্মেদ রাজুর সঞ্চালনায় ছাত্র ধর্মঘটের সমর্থনে ক্যাম্পাসে অবস্থিত কৃষি ব্যাংকের সামনের চত্ত্বরে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে ছাত্র নেতা শামীম আহমেদ বলেন, ‘টিএসসিতে বর্ষবরণে যৌণ নিপীড়নসহ গত ৩ বছরে সহস্রাধিক ধর্ষণ ও হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে কিন্তু রাষ্ট্র ধারাবাহিকভাবে এই হত্যাকারীদের চিহ্নিত করতে ব্যর্থ হয়েছে। এই ব্যর্থতার দায় এড়ানোর কোন সুযোগ নেই।’ তিনি অবিলম্বে সোহাগী জাহান তনুর খুনিদের চিহ্নিত করে বিচারের দাবি জানান।
এসময় ধর্মঘটে সমর্থন জানিয়ে ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি লাকী আক্তার তনু হত্যাকারীদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করাসহ সমগ্র দেশে সংগঠিত নারী ও শিশুর উপর যৌনসন্ত্রাস, সহিংসতা, হত্যার ঘটনায় জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার মাধ্যমে রাষ্ট্র ও সমাজকে নারী ও শিশুর জন্য নিরাপদ করার দাবি জানান।
এছাড়া সমাবেশে অন্যান্য বক্তারা বলেন, টিএসসিতে যৌন নিপীড়নের ঘটনা, সোহাগী জাহান তনু হত্যাসহ একের পর এক ধর্ষণের ঘটনা ঘটলেও প্রধানমন্ত্রী নিশ্চুপ। প্রধানমন্ত্রী বিশ্বের দশ ক্ষমতাধর নারীদের মধ্যে একজন হয়েও আজ পর্যন্ত চলমান যৌন নিপীড়নের ঘটনার ব্যাপারে কোনো বিবৃতি প্রকাশ করেননি। নারী সমাজের পুরুষদের সাথে বেতন বৈষম্য, মৌলিক অধিকারসহ অন্যান্য গণতান্ত্রিক অধিকার নিশ্চিত না হলে নারী মুক্তি সম্ভব নয়। নিপীড়নের বিরুদ্ধে লড়াই নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠার লড়াই থেকে বিচ্ছিন্ন নয়।
উক্ত সমাবেশে তেজগাঁও কলেজ থেকে প্রকাশিত আওয়াজ প্রত্রিকার সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য জিয়াউল ইসলাম এবং সাংস্কৃতিক কর্মী কামরুল হাসান, ইংরেজী বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী তুলি আক্তার, ইতিহাস বিভাগের ছাত্রী বিথী আক্তার, মার্কেটিং বিভাগের জোনাস আকন্দ, রসায়ন বিভাগের অহিদুল ইসলাম, সিএসই বিভাগের আরিফ, বাংলা বিভাগের রোহাইন ছাড়াও শাহ নেওয়াজ নিশাদ, মেহেদী হাসান, নাজমুলসহ মোট ৩৩টি বিভাগের শিক্ষার্থীরা সমর্থন জানিয়ে বক্তব্য রাখেন।
সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে তাসনিম মাল্লিক তনু হত্যার তদন্ত দীর্ঘায়িত করায় সরকারের নিকট জবাবদিহীতা দাবি করেন এবং আগামী ৯ এপ্রিল তেজগাঁও কলেজ ক্যাম্পাসে ছাত্র সমাবেশ সফল করার আহ্বান জানান।সংবাদ বিজ্ঞপ্তি