ড. কামালের খালেদা-তারেক-জামাত বর্জনের ঘোষণা জলে নেমে চুল না ভেজানোর মতোই অবাস্তব–ইনু

যুগবার্তা ডেস্কঃ তথ্যমন্ত্রী ও জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ‘বিএনপি’র সাথে ঐক্য করা ড. কামালের খালেদা-তারেক-জামাত বর্জনের ঘোষণা জলে নেমে চুল না ভেজানোর মতোই অবাস্তব।’

মঙ্গলবার দুপুরে ময়মনসিংহ সফরকালে সার্কিট হাউজে উপস্থিত সাংবাদিকদের সমসাময়িক রাজনীতির প্রশ্নের জবাবে সোমবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে গণফোরামের সংবাদ সম্মেলনে ড. কামালের দেয়া বক্তব্যের সূত্র ধরে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ড. কামাল দুধের শিশু নন। তিনি ঠিকই বোঝেন যে, বিএনপি’র খোঁয়াড়ে ঢুকে খালেদা-তারেক-জামাতের সাথে এক থালায় না খাওয়ার ঘোষণা যে জলে নেমে চুল না ভেজানোর মতোই অবাস্তব। তারপরও তিনি তাদের সাথেই ঐক্য করছেন।’

এদিন বিকেলে ময়মনসিংহের ফুলাবাড়ীয়ার আছিম বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় ময়দানে ময়মনসিংহ-৬ আসনে জাসদ মনোনীত ১৪ দলের সম্ভাব্য প্রার্থী সৈয়দ শফিকুল ইসলাম মিন্টুর নির্বাচনী জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন ইনু।

এসময় তিনি বলেন, ‘বিএনপির সাথে ঐক্য করে ধর্মনিরপেক্ষ সমাজ গড়ার কথা বলে ড. কামাল লোক হাসালেন। তার একথা বাংলা প্রবাদ কাঁঠালের আমসত্ত্বের মতোই অসম্ভব।’

‘ড. কামাল বিএনপির সাথে ঐক্য করে খালেদা-তারেক-জামাত-জঙ্গী থেকে নিজেকে দূরে রাখার যে ঘোষণা দিচ্ছেন, তা যেমন অসার, তেমনি তিনি বিএনপির সাথে ঘর করবেন কিন্তু খালেদা-তারেক-জামাতের সাথে এক থালায় খাবেন না, এটাও জলে নামবো কিন্তু চুল ভেজাবো না’র মতোই অসম্ভব’, বলেন জাসদ সভাপতি।

মন্ত্রী বলেন, ‘ড. কামাল দুধের শিশু না, বিএনপি-জামাত-জঙ্গী-খালেদা-তারেক যোগসূত্র-সমীকরণ জেনেই তিনি ঐক্য ফ্রন্ট করেছেন। নিরপেক্ষ নির্বাচন না, নির্বাচন বানচাল করে অস্বাভাবিক সরকার এনে বিএনপি-জামাত পুনর্বাসনই ড. কামালের আসল লক্ষ্য।’

‘নির্বাচন বানচালের সকল ষড়যন্ত্র অপচেষ্টা মোকাবেলা করে যথাসময়ে নির্বাচন অনুষ্ঠান করতে হবে, বাংলাদেশকে পাকিস্তানের পথে নয়, রক্তারক্তি খুনোখুনির পথে নয়, বাংলাদেশের পথে, উন্নয়ন ও শান্তির পথে রাখতে হবে’, আহবান জানান ইনু।

উপস্থিত বিশাল জনতার উদ্দেশ্যে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘শেখ হাসিনা যে উন্নয়নের বাগান তৈরি করেছেন, সেই বাগান বিএনপি-জামাতের হাতে দিয়ে তছনছ করার সুযোগ দেবেন না। বিএনপি জামাতকে ক্ষমতা দেয়া মানে খাল কেটে কুমির আনা।’

‘উন্নয়ন ও শান্তির জন্য শেখ হাসিনা, ১৪ দল-মহাজোটের বিকল্প নেই’ বলেন ইনু।

প্রবীণ রাজনীতিক আব্দুর রহমান সরকারের সভাপতিত্বে আধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন, এড. গিয়াস উদ্দিন, এড. সাদিক হোসেন, রতন সরকার, এড. নজরুল ইসলাম চুন্নু, শফিউদ্দিন মোল্লা, অধ্যাপক মোখলেছুর রহমান মুক্তাদির, শওকত রায়হান, মীর্জা আনোয়ার হোসেন, সৈয়দ সাইমুম কনক, মুনির হোসেনসহ দলীয় শীর্ষ নেতৃবৃন্দ সভায় বক্তব্য রাখেন।