Home সাহিত্য ও বিনোদন ট্রেনে কানের পথে সাদ-বাঁধন

ট্রেনে কানের পথে সাদ-বাঁধন

47

ডেস্ক রিপোর্ট: কানের পথে রওনা দিয়েছে ‘রেহানা মরিয়ম নূর’ বাহিনী। ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে ১০ দিনের কোয়ারেন্টিন শেষে ট্রেনে চড়ে আসছেন পরিচালক আবদুল্লাহ মোহাম্মদ সাদ, অভিনেত্রী আজমেরী হক বাঁধনসহ ছবিটির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সাতজন। তার আগে কোভিড-১৯ পরীক্ষা করিয়েছেন তারা। সবার ফল এসেছে নেগেটিভ।

সাগরপাড়ে জেডব্লিউ ম্যারিয়ট হোটেলে উঠবেন পরিচালক আবদুল্লাহ মোহাম্মদ সাদ ও অভিনেত্রী আজমেরী হক বাঁধন। আয়োজকরা বিলাসবহুল হোটেলটিতে তাদের থাকার ব্যবস্থা করেছেন। গতকাল রাতে ইত্তেফাককে এই তথ্য জানান বাঁধন। আজ দুপুর ১টার মধ্যে কানসৈকতে পা রাখবেন তারা।

কানে এসে আলাদা অ্যাপার্টমেন্টে উঠবেন চিত্রগ্রাহক তুহিন তমিজুল, প্রোডাকশন ডিজাইনার আলী আফজাল উজ্জল, শব্দ প্রকৌশলী শৈব তালুকদার, কালারিস্ট চিন্ময় রয় এবং নির্বাহী প্রযোজক এহসানুল হক বাবু।

কান চলচ্চিত্র উৎসবের ৭৪তম আসরে অফিসিয়াল সিলেকশনের বিভাগ আঁ সার্তে রিগায় স্থান পেয়ে ইতিহাস গড়েছে ‘রেহানা মরিয়ম নূর’। ভূমধ্যসাগরের তীরে পালে দে ফেস্টিভাল ভবনের সাল দুবুসি প্রেক্ষাগৃহে আগামীকাল সকাল ১১টা ১৫ মিনিটে (বাংলাদেশ সময় দুপুর ৩টা ১৫ মিনিট) ছবিটির ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ার হবে। এতে বাংলাদেশ থেকে আসা সাতজনের সঙ্গে যোগ দেবেন সিঙ্গাপুরের প্রযোজক জেরেমি চুয়া।

আয়োজকরা জানিয়েছেন, সাল দুবুসিতে আগামী ৮ জুলাই সকাল ৮টা ৩০ মিনিটে (বাংলাদেশ সময় দুপুর ১২টা ৩০ মিনিট) আবার ‘রেহানা মরিয়ম নূর’-এর প্রদর্শনী রয়েছে। একই দিন সকাল ১০টায় (বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টা) কান শহরের নতুন মাল্টিপ্লেক্স সিনেয়ুম অরা’য় ছবিটি দেখানো হবে।

ছবিটির চিত্রনাট্য ও সম্পাদনা করেছেন আবদুল্লাহ মোহাম্মদ সাদ নিজেই। একটি বেসরকারি মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক রেহানা মরিয়ম নূরকে কেন্দ্র করে এর গল্প। কর্মস্থলে ও পরিবারে তাল মেলাতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয় তাকে। কারণ শিক্ষক, চিকিৎসক, বোন, কন্যা ও মা হিসেবে জটিল জীবনযাপন করেন তিনি।

একদিন সন্ধ্যায় একজন অধ্যাপকের কক্ষ থেকে এক ছাত্রীকে কাঁদতে কাঁদতে বের হতে দেখে রেহানা। এ ঘটনার পর ক্রমে একরোখা হয়ে ওঠে তার মন। ওই ছাত্রীর পক্ষ হয়ে সহকর্মীর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে শুরু করে সে। কিন্তু একই সময়ে তার ছয় বছর বয়সী মেয়ের বিরুদ্ধে স্কুল থেকে রূঢ় আচরণের অভিযোগ ওঠে। অনড় রেহানা তথাকথিত নিয়মের বাইরে গিয়ে ভুক্তভোগী ছাত্রী ও নিজের মেয়ের জন্য ন্যায়বিচারের লড়াই করতে থাকে।

১ ঘণ্টা ৪৭ মিনিট ব্যাপ্তির ছবিটিতে নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন আজমেরী হক বাঁধন। এছাড়া বিভিন্ন চরিত্রে আছেন সাবেরী আলম, আফিয়া জাহিন জায়মা, আফিয়া তাবাসসুম বর্ণ, কাজী সামি হাসান, ইয়াছির আল হক, জোপারি লুই, ফারজানা বীথি, জাহেদ চৌধুরী মিঠু, খুশিয়ারা খুশবু অনি, অভ্রদিত চৌধুরী।

জেরেমি চুয়ার প্রতিষ্ঠান পোটোকল ও বাংলাদেশের মেট্রো ভিডিওর ব্যানারে তৈরি হয়েছে ছবিটি। যৌথভাবে এটি প্রযোজনা করেছে বাংলাদেশের সেন্সমেকারস ও ফ্রান্সের জিরেল প্রোডাকশন। সহ-প্রযোজক হিসেবে কাজ করেছেন রাজীব মহাজন, সায়েদুল খন্দকার সবুজ ও আদনান হাবিব। এছাড়া সহযোগী প্রযোজক ইওহান শাপেলন। ছবিটির বিশ্বব্যাপী পরিবেশনায় থাকছে জার্মানির বার্লিনের প্রতিষ্ঠান ফিল্মস বুটিক।

আঁ সার্তে রিগায় এবার রয়েছে ২০টি ছবি। এগুলো দেখে কয়েকটি পুরস্কারের জন্য বিজয়ী তালিকা নির্বাচন করবেন বিচারকরা। সাল দুবুসিতে আগামী ১৬ জুলাই সন্ধ্যা ৭টা ৩০ মিনিটে (বাংলাদেশ সময় রাত ১১টা ৩০ মিনিট) পুরস্কার বিতরণ করা হবে।

এবারের আঁ সার্তে রিগা বিভাগে বিচারকদের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ব্রিটিশ নারী নির্মাতা আন্ড্রেয়া আর্নল্ড। তার নেতৃত্বে বিচারকের আসনে থাকবেন আলজেরিয়ার পরিচালক মুনিয়া মেদু, ফরাসি অভিনেত্রী এলজা জিলবারস্তাইন, আর্জেন্টাইন পরিচালক দানিয়েল বরমান এবং মার্কিন পরিচালক মাইকেল অ্যাঞ্জেলো কোভিনো।

‘আঁ সার্তে রিগা’র অর্থ ‘অন্য দৃষ্টিকোণ’। ১৯৭৮ সালে কান উৎসবে এটি চালু করেন জিল জ্যাকব। ফ্রান্সের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তিতে সহায়তার জন্য অনুদানসহ তরুণ প্রতিভাবান নির্মাতাদের অভিনব ও সাহসী কাজে উৎসাহ দিতে ১৯৯৮ সাল থেকে আঁ সার্তে রিগায় পুরস্কার চালু হয়। ২০০৫ সাল থেকে ৩০ হাজার ইউরোর পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে এই বিভাগে।

সাধারণত প্রতিবছরের মে মাসে দেখা যায় কানের জৌলুস। করোনা মহামারির কারণে দক্ষিণ ফ্রান্সের সাগরপাড়ের শহর কানের প্রাণকেন্দ্র পালে দে ফেস্টিভাল ভবনে এবারের উৎসব শুরু হয়েছে আজ।-ইত্তেফাক