টস উঠে যাচ্ছে

54

অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক রিকি পন্টিং যে এমনটাই পরামর্শ দিয়েছেন ক্রিকেট প্রশাসকদের। পন্টিংয়ের মতে, টস তুলে দিলে খেলাটাতে দুই দলের মধ্যে একটা ভারসাম্য প্রতিষ্ঠা হবে। তিনি কেবল টস তুলে দেওয়ার কথা বলেই ক্ষান্ত হননি, ব্যাপারটার ওপর যথেষ্ট গুরুত্বারোপ তিনি করেছেন। বলেছেন, ক্রিকেটের স্বার্থেই নাকি টস তুলে দেওয়াটা জরুরি। মাঠ ও কন্ডিশন এর কারণে মাঝে মধ্যেই টস গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার হয়ে ওঠে। অনেক সময় দেখা যায় উইকেটের চরিত্রের কারণে টসের জয়-পরাজয়ই খেলার ভাগ্য অনেকটাই নির্ধারণ করে দেয়। অনেক সময় স্বাগতিক দেশগুলো নিজেদের শক্তিমত্তা অনুযায়ী উইকেট তৈরি করে সফরকারী দলকে অস্বস্তিতে ফেলে। পন্টিং এই অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতেই টস তুলে দেওয়ার কথা বলেছেন। তাঁর মতে, এতে স্বাগতিকদের অন্যায্য সুবিধা নেওয়া বন্ধ হবে। পন্টিং সফরকারী দলের হাতেই আগে-পরে ব্যাটিং বা ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেওয়ার বিষয়টি তুলে দিতে চান। পন্টিংয়ের মতে, অতিথি অধিনায়কই ঠিক করুক আগে ব্যাটিং করবে কারা। আরেক অস্ট্রেলিয়ান স্টিভ ওয়াহর খুব পছন্দ হয়েছে প্রস্তাবটি, ‘প্রস্তাবটি ভালো, আমার বেশ পছন্দ হয়েছে। অনেক সময়ই দেখা যায় খেলার ফলাফল কেবল টসের পরই নির্ধারিত হয়ে যায়। টসের গুরুত্বটা বেড়ে যাচ্ছে অতিমাত্রায়। কর্তৃপক্ষের উচিত ব্যাপারটিতে নজর দেওয়া।’
সাবেক ক্যারিবীয় পেসার মাইকেল হোল্ডিংও সায় দিয়েছেন পন্টিংকে, ‘সবারই উচিত পন্টিংয়ের প্রস্তাবটি একটু ভেবে দেখা। এটা ঠিক যে প্রথম কয়েক দিন এটিতে অভ্যস্ত হতে সময় লাগবে। খেলার শুরুতে টস নিয়েই মানুষের আগ্রহ থাকে। সবার মাঝেই বাড়তি একটু উত্তেজনা থাকে, কে টস জিতল সেটি নিয়ে। ব্যাটিংয়ে কে নামছে, এটি নিয়ে একটু নাটক। দর্শকেরা এসব পছন্দ করে। কিন্তু খেলার দিকটি মাথায় রাখলে টস ব্যাপারটি না রাখাই ভালো। তাহলে খেলাটিই লাভবান হবে।’
খেলায় টসের গুরুত্ব কমানো নিয়ে ইতিমধ্যেই নানা প্রস্তাব এসেছে। ওয়ানডে ম্যাচকে দুই ইনিংসে ভাগ করার প্রস্তাবও করা হয়েছিল। ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার স্থানীয় ক্রিকেটে এর প্রয়োগও হয়েছে। কিন্তু কোনো প্রস্তাবই আইসিসির মনঃপূত হয়নি। পন্টিংয়ের এই প্রস্তাব নিয়ে আইসিসি এখন কী করে, দেখার বিষয় এটিই। সূত্র: এনডিটিভি