জিয়াউর রহমান ৭২’র সংবিধানের মূল কাঠামোকে ক্ষতবিক্ষত করেছে-মেনন

যুগবার্তা ডেস্কঃ বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এমপি বলেছেন, জিয়াউর রহমান ১৯৭৯ সালে ৫ম সংশোধনীর মাধ্যমে ৭২’র সংধিধানের মূল কাঠামোকে ক্ষতবিক্ষত করে। যার পরিণতিতে রাজনীতিতে ফিরে আসে সেই সাম্প্রদায়িকতা, ঘৃণা আর প্রতিক্রিয়াশীলতা। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হয় পদদলিত। আজকে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি ক্ষমতায় থাকলেও রাষ্ট্র পরিচালনা ও রাজনীতির প্রয়োজনে ৭২’র সংবিধানে পুরোপুরি ফিরে যাওয়া যাচ্ছেনা। রাজনীতির অবক্ষয় এমন জায়গায় চলে গেছে যাকে বাণিজ্য ছাড়া আর কিছু বলা যায়না। একটি গোষ্ঠি সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গীবাদের আবহ সৃষ্টি করে দেশকে অন্ধকারের দিকে ঠেলে দিতে চাইছে যে অন্ধকার আমরা পেরিয়ে এসেছিলাম ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্যদিয়ে। তাই আমাদেরকে বর্তমান সংকট উপলদ্ধি করতে হবে এবং ৭২’র সংবিধানে পুরোপুরি ফিরে না যাওয়া অবধি এ সংকট কাটবে না।
তিনি আরও বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের আকাংখানুয়ায়ী ৭২’র সংবিধান পৃথিবীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ সংবিধান। এ সংবিধানেই প্রথম ধর্মনিরপেক্ষতা সংযোজন করা হয়, ভারতের মতো দেশেও তা সংযোজন করা হয় ১৯৭৬ সালে, এ সংবিধানেই একটি শোষণহীন সমাজ সৃষ্টির প্রত্যয়ে সমাজতন্ত্রের কথা বলা হয়, ৭২’র সংবিধানেই ধর্মকে রাজনীতি থেকে পৃথক রাখার কথা ব্যক্ত করা হয়।
মন্ত্রী শুক্রবার বিকেলে ধানমন্ডির ডব্লউি ভি এ মিলনায়তনে ‘৪৫তম সংবিধান দিবস’ উপলক্ষে ‘৭১ এর ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি’ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।
সংগঠনের উপদেষ্টা ও সাবেক আইন মন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তৃতা করেন সংবিধান প্রণয়ন কমিটির অন্যতম সদস্য ব্যরিস্টার আমিরুল ইসলাম, সাবেক বিচার পতি শামসুদ্দিন হায়দার চৌধুরী মানিক, এড. রানা দাস গুপ্ত, শাহরিয়ার কবির প্রমুখ।