জাহাজে ৫ ঘন্টায় ঢাকা থেকে বরিশাল, মঙ্গলবার থেকে চলাচল

721

যুগবার্তা ডেস্কঃ বিমানের আদলে তৈরী দু’টি জাহাজ আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে ঢাকা-বরিশাল নৌ রুটে চলাচল শুরু করবে। ইতিমধ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। অত্যাধুনিক মানের এমভি গ্রিন লাইন-২ ও ৩ নামে এই জাহাজে মাত্র ৫ ঘণ্টায় ঢাকা থেকে বরিশাল ও বরিশাল থেকে ঢাকায় আসা যাওয়া করা যাবে। তবে এ দুটি জাহাজ চলাচল করবে শুধু দিনের বেলায়।
মঙ্গলবার দুপুরে জাহাজ দুটিকে নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খান সদরঘাট নৌ-টার্মিনালের পূর্ব পার্শ্বে নবনির্মিত লালকুটির টার্মিনালে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।
জাহাজ দুটি চালু হলে বরিশাল অঞ্চলের মানুষ দিনের বেলায়ও যানজটমুক্ত পরিবেশে ঢাকায় যাওয়া-আসা করতে পারবেন। এজন্য লালকুটির ও বরিশাল ঘাটের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।
প্রতিদিন ঢাকা থেকে সকাল সাড়ে ৭টা ও দুপুর ২টা এবং বরিশাল থেকে সকাল সাড়ে ৭টা ও দুপুর ২টায় জাহাজ দুটি ছাড়বে। ওয়াই-ফাই সুবিধা সম্বলিত জাহাজের টিকিট দেশের সব গ্রিন লাইন কাউন্টার থেকে সংগ্রহ করা যাবে। এছাড়া সদরঘাট ও বরিশালের বিশেষ টার্মিনাল থেকে অনলাইনেও টিকিট সংগ্রহ করা যাবে।
শীতাতাপ নিয়ন্ত্রিত ও আরামদায়ক উন্নতমানের ইকোনমি ও বিজনেস ক্লাস সিটের এই দুই ক্যাটাগরির আসন ব্যবস্থাও রয়েছে। ইকোনোমি ক্লাসের ভাড়া ৭০০ টাকা এবং বিজনেস ক্লাসের ভাড়া ১০০০ টাকা। এ ভাড়ার মধ্যেই রয়েছে খাবারের আয়োজন।
বেসরকারিভাবে জাহাজ দুটি তৈরি করেছে গ্রিন লাইন ওয়াটার ওয়েজ ও গ্রিন লাইন পরিবহন কোম্পানি। দিবা সার্ভিসের জন্য যাত্রী সাধারণের দুর্ভোগ লাঘবে সহায়ক হবে এবং জাহাজের সিটের নিচের অংশ স্টিল আর উপরের অংশ ফাইবারের তৈরি। যে কারণে এ জাহাজ ডুববে না । উল্টে গেলেও ভাসমানই থাকবে। এমনটাই দাবি গ্রিন লাইন কর্তৃপক্ষের।
এর আগে বে-ক্রুজ নামে দুটি জাহাজ এই রুটে ডে-সার্ভিস শুরু করলেও লঞ্চ মালিকদের ষড়যন্ত্রের কারণে তা বন্ধ হয়ে যায়। এদুটি কতদিন চলাচল করতে পরবেন যাত্রীদের মধ্যে সংশয় দেখা দিয়েছে।
প্রায় ৬০০ যাত্রী বহনে সক্ষম এ জাহাজে একদিনের মধ্যেই বরিশাল থেকে ঢাকা গিয়ে আবার বরিশালে ফেরা সম্ভব বলে কর্তৃপক্ষ দাবি করেছে।জানা গেছে, এমভি গ্রিন লাইন-২ ও এমভি গ্রিন লাইন-৩ এর নির্মাণ ব্যয় হয়েছে প্রায় ১৫ কোটি টাকা। সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত জাহাজ দুটি ক্যাটাম্যারান টাইপের ব্রিটিশ এয়ারলাইনসের বিমানের আদলে নির্মান করা হয়েছে।