জামায়াতকে পর্যবেক্ষণ করছে দিল্লি ও ঢাকা

দিল্লি এবং ঢাকা একসঙ্গে পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই সমর্থিত জামাত-ই-ইসলামিকে পর্যবেক্ষণ করছে। নিবন্ধন বাতিল হলেও আগামী ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে দলটি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। দলটি পশ্চিমবঙ্গের সীমান্তে স্লিপার সেল গঠন করছে।

জামাত নির্বাচন উপলক্ষ্যে প্রার্থীদের তালিকা তৈরি করছে। তারা বিরোধী দলের সঙ্গে নির্বাচনী প্রতীক নিয়ে আলোচনা করছে। সূত্র জানায়, জামাত ৩০০ আসনের মধ্যে ৬০টি আসনে লড়াইয়ের পরিকল্পনা করছে। তারা স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে কিংবা বিরোধীদের প্রতীকে নির্বাচন করতে পারে। ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন উপলক্ষ্যে জামাত পশ্চিমবঙ্গ সীমান্তে স্লিপার সেল গঠন করছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সরকার সীমান্তে জামাত নেতাদের চলাফেরা এবং পাকিস্তান ভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন লস্কর-ই-তৈয়বার সঙ্গে দলটির কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করছে।

১৯৭১ সালে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে স্বাধীনতা যুদ্ধে ভারত সহায়তা করে যার মাধ্যমে বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের সৃষ্টি হয়। জামাত পাকিস্তানকে সমর্থন করে। ১৯৭৫ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর বিএনপির সহায়তায় জামাত রাজনীতির মূল ধারায় ফিরে আসে। ২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় বিএনপির জোটসঙ্গী ছিল জামাত।

বাংলাদেশের একটি সূত্র জানায়, দলটি আইএসআইয়ের সমর্থনে ভারতের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করে।-ইত্তেফাক