জঙ্গি গ্রুপে জড়িত থাকার আশংকা জালিয়াতির মাধ্যমে পাসপোর্টে তোলপাড় ॥

বরিশাল অফিসঃ
জালিয়াতির মাধ্যমে পাসপোর্ট করে বিদেশে আসা-যাওয়ার ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। স্থানীয়দের ধারনা কোন শক্তিশালী জঙ্গি গ্রুপের সাথে যোগদেয়ার ফলে কয়েক মাসের ব্যবধানে ফ্র্যান্স থেকে দেশে ফিরে কয়েক লাখ টাকা ব্যয় করে পূর্ণরায় ফ্র্যান্সে যাওয়ার চেষ্ঠা করছেন জালিয়াতির আশ্রয় নেয়া সোহরাব হোসেন ভূঁইয়া (৪৭) নামের ওই ব্যক্তি।
সূত্রমতে, বর্তমানে ওই ব্যক্তি (প্রকৃত নাম সোহরাব) দেশে অবস্থান করলেও সে পূর্ণরায় বিদেশে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। প্রকৃত ঘটনার তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সচেতন এলাকাবাসী বরিশাল র‌্যাব-৮ এর পরিচালকসহ বিভিন্ন আইন প্রয়োগকারী সংস্থার প্রধানদের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। ওই আবেদনের কপি শুক্রবার সকালে বরিশালের একাধিক পত্রিকা অফিসেও পাঠানো হয়েছে। এলাকাবাসীর পক্ষে বৃহত্তর বরিশালের পটুয়াখালীর বাউফল থানার কালাইয়া গ্রামের রেজাউল করিম নামের এক ব্যক্তির স্বাক্ষরিত লিখিত অভিযোগে জানা গেছে, একই উপজেলার কেশবপুর ইউনিয়নের ভরিপাশা গ্রামের মৃত আফছের আলী ভূঁইয়া ও মৃত মাজেদা বেগমের পুত্র সোহরাব হোসেন ভূঁইয়া তার মৃত বাবা-মাকে জীবিত দেখিয়ে ও নাম, ঠিকানা, জন্ম তারিখসহ জাতীয় পরিচয়পত্রের নাম্বার গোপন রেখে সম্পূর্ণ জালিয়াতির মাধ্যমে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে পাসপোর্ট করিয়ে কয়েক মাস ফ্র্যান্সে বসবাস করেন। পাসপোর্টে (যার নং বি.জে ০৭৯১৯৯০) সোহরাবের ছবি ঠিক থাকলেও তার নাম ব্যবহার করা হয় সেলিম খান, পিতা করিম খান, মাতা রুবি খান, স্থায়ী ঠিকানা কালাইয়া বন্দর। অভিযোগে আরও জানা গেছে, কয়েক মাসের ব্যবধানে সম্প্রতি সোহরাব ছদ্মনাম সেলিম খান ফ্র্যান্স থেকে দেশে ফিরে নিজ গ্রাম ভরিপাশায় অবস্থান করে কয়েক লাখ টাকা ব্যয় করেন। বর্তমানে আবারও সে ফ্র্যান্সে যাওয়ার চেষ্ঠা করছেন। সূত্রে আরও জানা গেছে, রাতারাতি সোহরাবের পরিবর্তনের বিষয়টি নিয়ে এলাকাবাসীর সন্দেহ হলে তারা কৌশলে সোহরাবের পাসপোর্টের নমুনাকপি সংগ্রহ করার পর জালিয়াতির মূলবিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়