Home রাজনীতি ছাত্র রাজনীতি বন্ধ নয়, সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোর কার্যক্রম নিষিদ্ধ করাই হবে সমস্যার মূল...

ছাত্র রাজনীতি বন্ধ নয়, সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোর কার্যক্রম নিষিদ্ধ করাই হবে সমস্যার মূল সমাধান

18

ডেস্ক রিপাের্ট: বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি দীপক শীল এবং সাধারণ সম্পাদক মাহির শাহরিয়ার রেজা এক যৌথ বিবৃতিতে বলেন, “বুয়েট শিক্ষার্থীরা তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি করছে যা পুরোপুরি যৌক্তিক। তাদের এই দাবির সাথে আমরা পুরোপুরি একমত। কিন্তু ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করার যে আলাপ তৈরি করা হয়েছে পুরো বুয়েট জুড়ে তা অনভিপ্রেত। নির্দিষ্ট গোষ্ঠীর সন্ত্রাসী কার্যক্রমের ভার সকল ক্রিয়াশীল সকল ছাত্র সংগঠনের উপরে বর্তায় না। ২০১৯ সালে যখন আবরার ফাহাদকে হত্যা করেছিল ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা, তখন সারাদেশে আন্দোলন গড়ে তুলেছিল প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনসমূহ। ছাত্র রাজনীতি বন্ধের সুযোগ নিয়ে সেখানে মৌলবাদী গোষ্ঠীর আস্ফালন ঘটতে দেখছি। বুয়েট দ্বীপকে হত্যা করার কথা আমরা ভুলি নাই। মৌলবাদী গোষ্ঠীর হাতে নিহত হওয়া দ্বীপকে ঘিরে বুয়েটে কখনও মৌলবাদী সংগঠনসমূহের কার্যক্রম নিষিদ্ধ করার দাবি উঠে নাই। কিছুদিন পূর্বেও বুয়েটে প্রায় ২৪ শিক্ষার্থীকে জঙ্গী তৎপরতায় যুক্ত সন্দেহে আটকের ঘটনাও ঘটেছে। আমরা মনে করছি, সাধারণ শিক্ষার্থীদের আবেগকে পুঁজি করে একটি চক্র ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করে নিজেরা ফায়দা লোটার চেষ্টায় রয়েছে।”

নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, “আজকের সময়ে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ভেতরে ছাত্র রাজনীতি নিয়ে যে ভয় এবং উৎকন্ঠা রয়েছে তা সৃষ্টির জন্য দায়ী ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগের সন্ত্রাস, দখলদারিত্বের কারণে ছাত্র সমাজের মনে ভীতির সঞ্চার হয়েছে এবং তারা মনে করছে ছাত্রলীগের অপকর্মগুলোয় ছাত্র রাজনীতি। ছাত্রলীগের সন্ত্রাস, নৈরাজ্যের দায় অপরাপর ছাত্র সংগঠনের নয়। প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনসমূহ দীর্ঘদিন ধরেই ক্যাম্পাসে আদর্শভিত্তিক, সুস্থধারার রাজনীতির চর্চা করে আসছে। তাই আজকে ছাত্র রাজনীতি নয়, মৌলবাদী জঙ্গিগোষ্ঠী এবং সন্ত্রাসী ছাত্র সংগঠনগুলো, যাদের অতীতে সন্ত্রাসী কার্যক্রমের ইতিহাস রয়েছে তাদের কার্যক্রম নিষিদ্ধ করা হবে সংকটের যথোপযুক্ত সমাধান।”

নেতৃবৃন্দ ছাত্রসমাজকে সন্ত্রাসী ছাত্র সংগঠনগুলোকে পরিহার করে সুস্থধারার আদর্শভিত্তিক ছাত্র রাজনীতির ধারাকে শক্তিশালী করার আহ্বান জানান।