চলতি অর্থবছরে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি কমবে, বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি হবে ৬.৪ শতাংশ

ডেস্ক রিপোর্ট: বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট ডেভিড ম্যালপাস সতর্ক করে বলেছেন, বিশ্ব অর্থনীতি ভয়াবহ পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে যাচ্ছে। মহামারী পরবর্তী ধাক্কা প্রবৃদ্ধির ওপর আঘাত হানবে-বিশেষ করে দরিদ্র দেশগুলোতে যারা মুদ্রাস্ফীতির বিরুদ্ধে লড়াই করার সঙ্গে সঙ্গে অর্থনৈতিক ক্ষতির ঝুঁকিতেও রয়েছে। এটি বৈশ্বিক বৈষম্য ও অর্থনৈতিক নিরাপত্তাহীনতাকে বাড়িয়ে তুলবে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন তিনি।

বিশ্বব্যাংক বলেছে, এ বছর বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৪.১ শতাংশ যা ২০২১ সালে ছিলো ৫.৫ শতাংশ। ২০২৩ সালের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, ইউরো জোন এবং জাপানের মতো উন্নত দেশগুলো মহামারীকালীন অর্থনৈতিক ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারে বলে আশা করা হয়েছে। কিন্তু উন্নয়নশীল এবং উদীয়মান অর্থনীতির দেশগুলোর অর্থনৈতিক কোভিড পূর্ববর্তী সময়ের চেয়ে ৪ শতাংশ কম থাকবে।

বিশ্বব্যাংকের পূর্বনুমান বলছে প্রকৃত বাজার মূল্য হার ভিত্তিতে ২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৬.৪ শতাংশ এবং ২০২২-২৩ অর্থবছরে এটি হবে ৬.৯ শতাংশ। ২০১৮/১৯ অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ছিলো ৮.২। ২০১৯-২০ অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি হয়েছে মাত্র ৩.৫ শতাংশ। ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি হয় ৫ শতাংশ।

চীনের প্রবৃদ্ধি গত বছরের ৮ শতাংশ থেকে কমে ৫.১ শতাংশে নামবে। যুক্তরাষ্ট্রে ২০২১ সালে ৫.৬ শতাংশ এর তুলনায় চলতি বছরে প্রবৃদ্ধি হবে ৩.৭ শতাংশ। ইউরোজোনে ৫.২ শতাংশ থেকে এ বছর প্রবৃদ্ধি হবে ৪.২ শতাংশ। চলতি এবং আসছে অর্থবছরে অন্যতম জিডিপি প্রবৃদ্ধি হবে ভারতের। চলতি বছর এটি হবে ৮.৩ শতাংশ এবং আগামী অর্থবছরে ৮.৭ শতাংশ। ল্যাটিন আমেরিকা এবং ক্যারিবিয় অঞ্চলে ২০২২ সালে প্রবৃদ্ধি হবে ২.৬ শতাংশ যা গত বছর ছিলো ৬.৭ শতাংশ। ইউএননিউজ

বিশ্বব্যাংকের গ্লোবাল ইকোনমিক প্রসপেক্টস রিপোর্টে বলা হয়েছে, ২০২১ সালে বিশ্বের অর্থনীতি গত ৮০ বছরের মধ্যে মহামারী পরবর্তী সবচেয়ে শক্তিশালী মন্দার সম্মুখীন হওয়া থেকে ফিরে এসেছে। কিন্তু ভাইরাসের পুনরুত্থান, দ্রব্যমূল্য ও জ্বালানির দাম বৃদ্ধি পরিবারগুলোর ওপর প্রভাব ফেলছে। ২০০৮ সালের পর বিশ্বব্যাপী মূল্যস্ফীতি সর্বোচ্চ হারে রয়েছে। এই বছরের আরেকটি মন্দা পরিস্থিতি আসতে পারে এবং ২০২৩ সালে বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধি আরো কমে ৩.২ শতাংশ হতে পারে।

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম (ডব্লিউইএফ) সতর্ক করে বলেছে, জলবায়ু পরিবর্তনের মতো চ্যালেঞ্জ বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের চ্যালেঞ্জকে কঠিন করে তুলেছে।-আমাদের সময়.কম