গড় আয়ু বেড়ে ৭১ বছর ৬ মাস

62

যুগবার্তা ডেস্কঃ জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) সভায় “প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় ১টি করে ৫৬০টি মডেল মসজদি ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপন” প্রকল্পসহ ২০ হাজার ৪শত ২ কোটি ৭৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ১৩টি নতুন ও সংশোধিত প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে ।
মঙ্গলবার ঢাকায় শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপার্সন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে একনেক সভায় এ অনুমোদন দেয়া হয় । একনেক সদস্যবৃন্দ,সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীগণ , মন্ত্রিপরিষদ সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মূখ্য সমন্বয়ক, এবং সংশ্লিষ্ট সিনিয়র সচিব ও সচিববৃন্দ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন । সভায় পরকিল্পনা মন্ত্রী অবহিত করেন ।দেশের মানুষের গড় আয়ু ৭০ বছর ৯ মাস থেকে বেড়ে ৭১ বছর ৬মাসে উন্নীত হয়েছে । তিনি জানান বিশ্বে মানুষের বর্তমান গড় আয়ু ৭১ বছর ৪মাস ।
পরিকল্পনা মন্ত্রী একনেক সভা শেষে সভার বিস্তারিত সাংবাদিকদের জানান । তিনি বলেন, বাংলাদেশ একটি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ। বর্তমানে দেশে ১৬০ মিলিয়ন লোকের মধ্যে শতকরা প্রায় ৯০ ভাগ মুসলিম। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ইসলামী ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন । তারই উত্তরসূরী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা “প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় ১টি করে ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপন” করছেন ।
মন্ত্রী বলেন, “এই মসজিদে আলাদা আলাদাভাবে নারী পুরুষ উভয়েই নামাজ আদায় করতে পারবে। এটি দেশের ইতিহাসে ধর্মীয় খাতে এককভাবে সর্বোচ্চ ব্যয়ের প্রকল্প।”
এ প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৯ হাজার ৬২ কোটি টাকা। এরমধ্যে সৌদি সরকারের অনুদান হিসেবে পাওয়া যাবে ৮ হাজার ১৭০ কোটি টাকা।
মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী মায়ানমার সীমান্ত এলাকায় রাস্তা নির্মানে গৃহীত উদ্যোগ সম্পর্কে বলেন ,রাস্তাটি নির্মিত হলে সীমান্তে অর্থনৈতিক কর্মকান্ড বৃদ্ধি পাবে ।
মন্ত্রী বলেন, বৈঠকে অনুমোদন পাওয়া অন্য প্রকল্পগুলো হচ্ছে, “জেলা পর্য়ায়ে আইটি/হাইটেক পার্ক স্থাপন (১২টি জেলায়) প্রকল্প।” এর ব্যয় প্রায় ১ হাজার ৭৯৬ কোটি টাকা।
“পটুয়াখালী (পায়রা)- গোপালগঞ্জ ৪০০ কেভি সঞ্চালন লাইন এবং গোপালগঞ্জ ৪০০ কেভি গ্রীড উপকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প”। এর ব্যয় ৩ হাজার ২৯৪ কোটি টাকা।
“মহেশখালী-আনোয়ারা গ্যাস সঞ্চালন সামন্তরাল পাইপলাইন নির্মাণ প্রকল্প”। এর ব্যয় ১ হাজার ১০৯ কোটি টাকা।

“কর্ণফূলী নদীর তীর বরাবর কালুঘাট সেতু হতে চাক্তাই খাল পর্য়ন্ত সড়ক নির্মাণ প্রকল্প।” এর ব্যয় ১ হাজার ৯৭৯ কোটি টাকা।
“গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক মহাসড়ক যথাযত মান ও প্রশস্ততায় উন্নীত করণ (ময়মনসিংহ অঞ্চল)”। এর ব্যয় ৭৯৮ কোটি টাকা।
“থানচি-রিমাকরি-মদক-লিকরি সড়ক নির্মাণ প্রকল্প।” এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৬৯ কোটি টাকা।
“কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়ক নির্মাণ প্রকল্প, তৃতীয় পর্য়ায় (শিলখালী-টেকনাফ)”। এর ব্যয় ৪৫৬ কোটি টাকা।
“সিলেট শহর বাইপাস-গ্যারিসন লিংক টু শাহপরান সেতু ঘাট সড়ক ৪ লেন মহা সড়কে উন্নয়ন” প্রকল্প। এর ব্যয় ২৩৫ কোটি টাকা।
“খালীশপুর-মহেশপুর- দত্তনগর-জিন্না নগর-জাদবপুর মহাসড়ক প্রশস্তকরণ ও উন্নয়ণ”প্রকল্প । এর ব্যয় ৭৮ কোটি টাকা।
“সুনামগঞ্জ টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট স্থাপন” প্রকল্প। এর ব্যয় ৯৭ কোটি টাকা।
“ঢাকা শহরে তিনটি পাইকারি কাঁচাবাজার নির্মাণ” প্রকল্পের (২য় সংশোধিত)। এর ব্যয় ৩৫০ কোটি টাকা।
“টেলিটকের ৩জি নেটওয়ার্ক চালু করণ এবং ২.৫ জি শক্তিশালী করণ” প্রকল্প। এর ব্যয় ৬৭৫ কোটি টাকা।
এসময় মন্ত্রী বলেন, “বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী সরকার মালিকানাধীন টেলিটকের সঙ্গে জয়েন্ট ভেঞ্চারের জন্য বিদেশি একটি কোম্পানি খোজার নির্দেশ দিয়েছেন।”