খালেদা জিয়া ছাড়া নির্বাচন হবে না–বিএনপি

যুগবার্তা ডেস্কঃ কারাবন্দী চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে ছাড়া দেশে কোনও নির্বাচন হবে না। তাকে ছাড়া বিএনপি নির্বাচনে যাবে না। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই দ্রুত তাকে মুক্তি দিতে হবে। শনিবার বিএনপির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর জনসভায় বক্তারা একথা বলেন।

দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণের পরিবেশ তৈরি করতে সরকারের কাছে ৮ টি দাবি তুলে ধরেন।

দাবিগুলো হলো- খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে, তফসিল ঘোষণার আগে সংসদ ভেঙে দিয়ে নিরপেক্ষ সরকার গঠন করতে হবে, সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে, খালেদা জিয়ার সমস্ত মামলা প্রত্যাহার করতে হবে, সকল রাজবন্দীকে মুক্তি দিতে হবে, ইভিএম বাতিল করতে হবে এবং নির্বাচনের সময় সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই সকল রাজনৈতিক দলের জন্য সমতল মাঠ প্রস্তুত করতে হবে। এই দাবিগুলো মানা না হলে দেশে কোনো নির্বাচন হবে না, জনগণ নির্বাচন হতে দেবে না।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে এ দেশে কোনো নির্বাচন হবে না। আপনাদের কাছে ফরিয়াদ করতে চাই। আমাদের মাতা, গণতন্ত্রের মাতাকে আর কারাগারে দেখতে চাই না। তাকে কারাগারে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে না। তাকে মুক্ত করতে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ুন। বুকে হাত দিয়ে বলুন, বাংলাদেশকে মুক্ত করবোই, গণতন্ত্রকে মুক্ত করবোই। প্রয়োজনে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে আবারও বুকের রক্ত দিতে হবে।

শনিবার অপরাহ্নে রাজধানীর নয়া পল্টনে বিএনপি কার্যালয়ের সামনের ভিআইপি সড়কে দলটির ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে এই বিরাট জনসভায় সভাপতিত্ব করেন মির্জা ফখরুল।

প্রধান অতিথি ছিলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। ট্রাকের ওপর নির্মিত অস্থায়ী মঞ্চে আরো বক্তব্য দেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দীন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, বিএনপি নেতা অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদিন, বেগম সেলিমা রহমান, শামসুজ্জামান দুদু, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, রুহুল কবির রিজভী, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দীন খোকন, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, হাবিব উন নবী খান সোহেল, শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানী, কাজী আবুল বাশার, সাইফুল আলম নীরব, শফিউল বারী বাবু, রাজিব আহসান প্রমুখ।

শনিবার সকাল সাড়ে ১১টা থেকে রাজধানীসহ আশপাশের জেলাগুলো থেকে দলটির নেতাকর্মীরা দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ব্যানার, ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ডসহ ছোট ছোট মিছিল নিয়ে নয়াপল্টন সমাবেশ স্থলে আসতে শুরু করেন। বেলা বাড়ার সাথে সাথে নেতাকর্মীদের নয়াপল্টনমুখী স্রোত তৈরি হয়। দুপুর দুই টায় নয়াপল্টন অস্থায়ী মঞ্চে আনুষ্ঠানিক জনসভা শুরু হয়।