খালেদা জিয়াকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য নিতে হবে–মেডিক্যাল বোর্ড

স্টাফ রিপোটারঃ বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য গঠিত মেডিক্যাল বোর্ডের সদস্যবৃন্দ সংবাদ সম্মেলন করেছে আজ। বিএনপি’র চেয়ারপার্সনের বাস ভবনে আজ এ সংবাদ সম্মেলনে মেডিক্যাল বোর্ডের প্রধান ডা. এফ এম সিদ্দিকী সংবাদ সম্মেলনের বক্তব্য রাখেন।
মেডিকেল বোর্ডের প্রধান প্রফেসর ডা. এফ এম সিদ্দিকী বলেন, জরুরীভাবে তার ট্রান্সজুগুলার ইন্ট্রাহেপাটিক পোর্টোসিস্টেমিক শান্ট (টিআইপিএস) করতে হবে। এটা একটা টেকনিক্যাল হাতের কাজ। এ কাজটা ফ্রিকোয়েন্টলি হয় না। এ ধরনের এডভান্স রেফারেল কেসগুলো করে হাতে গোনা একটা দুইটা সেন্টার।
মেডিকেল বোর্ড জানায়, খালেদা জিয়ার বর্তমান অবস্থার চিকিৎসা শুধু যুক্তরাজ্য, জার্মানি ও যুক্তরাষ্ট্রের নির্দিষ্ট কিছু মেডিকেল সেন্টারেই সম্ভব। এখন যেহেতু রক্ত যাওয়া বন্ধ আছে, তাই এখনই বিদেশে চিকিৎসার জন্য নিতে হবে। না পারলে পরে তাঁকে নিয়ে যাওয়া জটিল হয়ে যাবে। তাঁর জন্য পরিস্থিতি ‘লাইফ থ্রেটেনিং’।
অধ্যাপক ডা. ফখরুদ্দিন মোহাম্মদ সিদ্দিকী বলেন, ম্যাডামকে এ পদ্ধতিতে টিআইপিএস না করা হয় তাহলে আগামীতে আবার রি-ব্লিডিং হওয়ার সম্ভাবনা আছে। এটা আগামী সপ্তাহে ৫০ শতাংশ। পরে সপ্তাহে ৭০ শতাংশ।
ডা. ফখরুদ্দিন মোহাম্মদ সিদ্দিকী বলেন, গত ১৩ নভেম্বর শুক্রবার রাত ৯ টা ২০ মিনিটে প্রথম উনার রক্ত বমি হয়। তখন সেন্ট্রাল ভেনাস লাইন, হার্টেরিয়াল লাইন থেকে ফ্লুইড ও ব্লাড স্যাম্পল নেওয়া হয়।
প্রেস ব্রিফিং-এ মেডিকেল বোর্ডের প্রধান অধ্যাপক ডা. ফখরুদ্দিন মোহাম্মদ সিদ্দিকী, অধ্যাপক ডা. কিবরিয়া মহসিন, অধ্যাপক ডা. শামসুল আরেফিন, অধ্যাপক ডা. মোঃ নুরুদ্দিন ও ডা. আল মামুন উপস্থিত ছিলেন।