ক্যান্টিনের খাবার খেতে আসলেন না জবি উপাচার্য

পরিতোষ আচার্য, যুগর্বাতা সংবাদদাতা, জবি : জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ক্যান্টিনে খাবার খেতে আসলেন না শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান। রোববার দুপুর ১টা থেকে থেকে আড়াইটা পর্যন্ত উপাচার্যের আশায় খাবার নিয়ে বসে ছিলেন ছাত্র ইউনিয়ন ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

জানা গেছে, জবির বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ন্ত্রিত ক্যান্টিনের খাবারের মান বৃদ্ধি ও দাম কমানোর দাবিতে আন্দোলন করে আসছে শাখা ছাত্র ইউনিয়ন।জবির শিক্ষার্থীরা কি ধরণের নিম্নমানের খাবার খেয়ে থাকেন তা দেখানোর জন্য জবি উপাচার্যকে গত ৮ ফেব্রুয়ারি আমন্ত্রণ জানান ছাত্র ইউনিয়ন।তারা সেখানে রোবাবর কি ধরণের খাবার খায় জবি উপাচার্যকে দেখানোর জন্য আমন্ত্রণ জানান। তখন উপাচার্য তাদের বলেছিলেন, তার ক্যান্টিনে যখন খুশি তখন আসবেন। তাই আশায় বুক বেধে জবি উপাচার্যের জন্য ক্যান্টিনের খাবার নিয়ে বসে ছিল সংগঠনি। প্রায় দেড় ঘণ্টা এ কর্মসূচি পালন করে সংগঠনটি। তবে ক্যান্টিনে নিম্ন মানের খাবার সরবরাহের কারণে তিনি উপাচার্য আসেন নি বলে জানা গেছে।

কর্মসূচি চলাকালে জবি ছাত্র ইউনিয়নের দপ্তর সম্পাদক রুহুল আমিন বলেন ” আমাদের কি কোনো আত্মমর্যাদা নেই?? আমরা কি কোনো মানুষ নই?? তিনি ( উপাচার্য) ও কোনো না কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েছিলেন তবে কেন তিনি আমাদের সাথে বসে খাবার গ্রহণ করতে পারবেন না?? ”

রুহুল আরো বলেন “যদি আমাদের এই ন্যায্য দাবি ( খাবারে মান উন্নয়ন ও ভর্তুকি) মান্য করা না হয় তবে জবি শিক্ষার্থীরা যে কতটুকু কঠোর হতে পারে তা
জবি প্রশাসন দেখবে।

জবি ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি আল -আমিন বলেন, ” আমরা গত বুধবার ৮ ফেব্রুয়ারি ৪ সদস্যের প্রতিনিধি নিয়ে গিয়েছিলাম ভিসি স্যারের কাছে। উনাকে ক্যান্টিনে একবেলা আমাদের সাথে খাবারের আমন্ত্রণ দিতে, উত্তরে তিনি ( ভিসি) বলেন তুমি মাত্র ৪ জন নিয়ে এসেছ আমাকে আমন্ত্রণ দিতে?? আর তোমরা বললে বা আমি খেতে যাব কেন??”

আল-আমিন তখন দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‌‌‌‌ ‌‌‌”আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হয়েও কি ভিসি কে খাবারের আমন্ত্রণ দিতে পারি না?? ”

জবি উপাচার্য ক্যান্টিনের খাবার গ্রহণ করার প্রতিবাদে জবি ছাত্র ইউনিয়ন নতুন আগামী বৃহস্পতিবার পর্যন্ত জবির বিভিন্ন ভবনে ভবনে ক্যান্টিনের খাবারের মান নিয়ে চিত্রাঙ্কন ও গান পরিবেশন করবে বলে ঘোষণা করেন। পাশাপাশি আগামী রবিবার উপাচার্য ভবনের প্রধান ফটকের সামনে খাবার নিয়ে অপেক্ষা করা হবে বলে কর্মসূচি ঘোষণা করেন জবি ছাত্র ইউনিয়ন সভাপতি ।