কোন শর্ত নয়, শিক্ষার্থীদের গণপরিবহনে হাফ ভাড়া চাই

ডেস্ক রিপোর্ট: বাস মালিকদের শর্ত সাপেক্ষে “হাফ ভাড়া” নেওয়ার ঘোষণাকে চলমান আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে নিয়ে যাওয়ার ঘৃণ্য কৌশল হিসেবে অভিহিত করেছে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট। কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আল কাদেরী জয় ও সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দন প্রিন্স আজ ১ ডিসেম্বর সংবাদপত্রে প্রকাশের জন্য এক যুক্ত বিবৃতিতে বলেন, মালিকদের কৌশলী এই সিদ্ধান্ত আসলে শিক্ষার্থীদের দাবির সাথে প্রতারণা করা। গণপরিবহনে হাফ ভাড়া বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি স্বীকৃত অধিকার, কোন দয়া দাক্ষিণ্য নয় যে তা বাস্তবায়নের জন্য শর্ত প্রয়োজন হবে। রাত ৮ টার পরে কি ছাত্ররা অছাত্র হয়ে যায়? যদি কেউ ক্লাস শেষে বা ছুটির দিনে লাব্রেরিতে পড়তে চায় বা কোন প্রজেক্টে কাজ করতে চায়, তাহলে সে কেন রাত ৮ টার পর ফুল ভাড়া দিবে? আর ঢাকার বাইরের শিক্ষার্থীদেরকে কেন এই অধিকার থেকে বঞ্ছিত করা হবে? এর কোন সদুত্তর নেই। শিক্ষার্থীদের দাবি, সকল গণপরিবহনে সারা বছর শিক্ষার্থীদের জন্য হাফ ভাড়া কার্যকর করতে হবে। সেই ভাড়া কার্যকর করার দায়িত্ব সরকারের। কিন্তু সরকার নির্লিপ্ত ভূমিকায় থেকে মূলত পরিবহন মালিকদের স্বার্থই রক্ষা করে চলছে বরাবরের মতই।

নেতৃবৃন্দ বলেন, এটা খুবই দুঃখজনক ঘটনা যে, যেই দল মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নাম জপে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে আছেন, তারাই মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম পটভূমি ১১ দফা আন্দোলনের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করছে। এখন তারা পরিবহন মালিকদেরকে দিয়ে এই ছল চাতুরির ঘোষণা দিয়ে আন্দোলনকে কৌশলে ভিন্ন পথে নিয়ে যেতে চাচ্ছে। ইতিপূর্বে ২০১৮ সালের সড়ক আন্দোলনেও একই কৌশল অবলম্বন করা হয়েছিল। ফলে সে সময় যত প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল, তার কোনটাই বাতবায়িত হয়নি। সড়কে মৃত্যুর মিছিল একটুও হ্রাস পায়নি। সেই অভিজ্ঞতা ছাত্র সমাজের আছে, তাই তারা দ্বিতীয়বার ছল চাতুরির ফাঁদে পা দিবে না। রাজপথে আন্দোলনই দাবি আদায়ের একমাত্র পথ।