রতন কুমার রায় সঞ্জীব, দিল্লি: ভারতের চারটি প্রধান রাজ্য পশ্চিমবঙ্গ, আসাম, কেরালা ও তামিলনাডুসহ কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল পুডুচেরির বিধানসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণা হয়েছে রোববার। ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীসহ ভারতের শাসকদল বিজেপির শীর্ষ নেতাদের বাংলা-জয়ের মিশনকে ব্যর্থ প্রমাণিত করে আবারো রেকর্ড ভোট পেয়ে পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতায় বসতে যাচ্ছে মমতার তৃণমূল। অতীতে বাংলা শাসন করা বামেরা এবার কংগ্রেসের সাথে সংযুক্ত মোর্চা করেও কোন লাভ করতে পারেনি। পশ্চিমবঙ্গে বামেদের মহা ভরাডুবি হলেও দক্ষিণী রাজ্য কেরালায় আবারো ক্ষমতায় বসবে বাম গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট। আসামের জনগণ বিজেপিতেই বিশ্বাস রেখেছে তবে এবার মূখ্যমন্ত্রী হিসেবে নতুন মুখ দেখতে চান তারা। দক্ষিণের আরেক রাজ্য তালিমনাডুতে ক্ষমতাসীন এআইএডিএমকে কে পেছনে ফেলে ডিএমকে সরকার গঠনের পথে এগিয়ে রয়েছে। পুডুচেরির ৩০ টি আসনের মধ্যে অর্ধকের বেশি আসন পেয়ে বিজেপি এগিয়ে। তামিলনাডুতেও ২৩৪ টি আসনের মধ্যে সরকার গঠন করতে ১১৮ টি প্রয়োজন। ডিএমকে জোট ১৫০ এর বেশি আসন পেয়ে এগিয়ে রয়েছে। এই জোটের শরীক কংগ্রেস ও বামেরা। কেরালায় ১৪০ আসনের মধ্যে ৭১ টি জিতলেই ক্ষমতা। বাম জোট নিশ্চিত করেছে অন্তত ৯৯ টি আসনে। কংগ্রেস পেয়েছে ৪১ টি আসন। আসামের ১২৬ আসনের মধ্যে ৬৪ আসন চাই সরকার গঠনে। সেখানে কংগ্রেসের ৫০ আসনের বিপরীতে বিজেপি জিতেছে ৭৪ টি আসন। পশ্চিমবঙ্গে ২৯২ টি আসনের ২১০টিই পেয়েছে মমতা দিদির তৃনমূল। বিজেপিকে সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে মাত্র ৮০ টি আসনেই। বামেদের হয়েছে ভরাডুবি। পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূলের ঐতিহাসিক ও রেকর্ড বিজয়ে তৃতীয়বারের মত রাজ্যটির মূখ্যমন্ত্রী হতে চলেছেন মমতা ব্যানার্জী। তাঁর এই বিজয়ে অভিনন্দন জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীসহ বিজেপির শীর্ষ নেতারা। মোদী তার অভিনন্দন বার্তায় কেন্দ্র থেকে সব ধরনের সহায়তা অব্যাহত রাখার কথা উল্লেখ করেছেন। এদিকে পশ্চিমবঙ্গের নন্দীগ্রামে চূড়ান্ত ঘোষিত ফলে মমতাকে ১৭৩৬ ভোটে হারিয়েছেন অতীতে তৃনমূলের শীর্ষ নেতা ও মমতার ডানহাত বলে পরিচিত বিজেপির প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী। দিনভর গণনা নিয়ে উত্তেজনা চলা এই আসনের ফল প্রত্যাখ্যান করে তৃণমূল পূনর্গনণার দাবি জানিয়েছে। নির্বাচন কমিশন সেই দাবি নাকোচ করে দিলেও দিদি বলেছেন তিনি আদালতের শরণাপন্ন হবেন।