কুয়াকাটায় পর্যটকদের উপচে পড়া ভীড়।। অগ্রীম বুকিং অধিকাংশ হোটেল মোটেলের রুম

কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি: সনাতন ধর্মালম্বীদের প্রধান দুর্গোৎসব এবং সাপ্তাহিক ছুটি সহ মোট ৫ দিনের ছুটিকে কেন্দ্র করে পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটায় ভীড় জমিয়েছে হাজারো পর্যটক। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এসকল পর্যটকের আগমন ঘটে। বুধবার থেকে ৯ অক্টোবর পর্যন্ত প্রথম শ্রেণীর হোটেলগুলো শতভাগ রুম বুকিং হয়েছে। এছাড়া দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেনীর হোটেলে রুম অগ্রীম বুকিং রয়েছে এমটাই নিশ্চিত করেছেন কুয়াকাটা হোটেল মোটেল ওনার্স এসোসিয়েশনের সেক্রেটারি এমএ মোতালেব শরীফ।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পর্যটন স্পটগুলোতে বেড়েছে পর্যটকদের বাড়তি আনাগোনা। তাই পর্যটনমুখি ব্যবসায়িদের বেচা বিক্রিও বেড়ে গেছে। আগত পর্যটকরা সমুদ্রের ঢেউয়ের সঙ্গে মিতালীতে মেতেছেন। অনেকে আবার উপভোগ করছেন প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তায় পর্যটন স্পটগুলোতে মোতায়েন রয়েছে মহিপুর থানা পুলিশ সহ ট্যুরিষ্ট পুলিশের সদস্যরা।
হোটেল মোটেল ওনার্স এসোসিয়েশনের তথ্য মতে, কুয়াকাটাতে ছোট-বড় ১৫০টি হোটেল রয়েছে যার ধারণক্ষমতা চৌদ্দ-পনের হাজার। কিন্তু ছুটির দিনগুলোতে অসংখ্য পর্যটকের আগমনের কারনে অনেক পর্যটক পাশ্ববর্তী বাসাবাড়ি, গাড়ির ভিতরে রাত্রি যাপন করে। আবার অনেকে সারাদিন ভ্রমন শেষে রাতে নিজ গন্তব্যেও ফিরে যায়। তবে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর থেকে পর্যটকরা কুয়াকাটায় আসতে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে অনেক বিনিয়োগকারীরা হোটেল-রিসোর্ট নির্মাণের জন্য জায়গা খুঁজছেন।
হোটেল ওসান ভিউ এর জিএম আল-আমিন বলেন, গত একমাস আগে আমাদের হোটেল অগ্রীম বুকিং হয়ে গেছে। এখনও পর্যাপ্ত ফোন আসছে, কিন্তু রুম দিতে পারছি না। আগামী ৮-৯ তারিখ পর্যন্ত তাদের হোটেলে কোন রুম খালি নেই।
ট্যুরিস্ট পুলিশ কুয়াকাটা জোন পুলিশ পরিদর্শক হাসনাইন পারভেজ জানান, আগামী পাচঁঁদিনের ছুটিতে অসংখ্য পর্যটকের আগমন ঘটবে । যে কারনে আগে থেকেই ট্যুরিস্ট পুলিশের কয়েকটি টিম মোতায়েন রয়েছে। সার্বক্ষণিক নজড়দারিসহ বারবার মাইকিং করে সতর্ক করা হচ্ছে।
মহিপুর থানার ওসি খোন্দকার মো.আবুল খায়ের বলেন,আগত পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তা দিতে পুলিশ তৎপর রয়েছে।