কর্মসূচী দিয়েও মাঠে ছিলেন না বিএনপি

47

যুগবার্তা ডেস্কঃ বিএনপি’র অস্তিত্ব ও নেতৃত্ব নিয়ে আবারও প্রশ্ন দেখা দিয়েছে জনমনে। কারন দীর্ঘ ৫ মাস পর বিক্ষোভ-সমাবেশের কর্মসূচি দিয়ে রাজধানীতে মাঠে দেখা যায়নি বিএনপি-জোটের নেতাদের। চোখে পড়েনি কোনো সমাবেশেরও। শুধু রাজধানীতে কয়েকটি জায়গায় ঝটিকা মিছিলেই সীমাবদ্ধ ছিল তাদের এই কর্মসূচি। গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে রোববার সারা দেশে প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করার কর্মসূচি দিয়েছিল বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট। ঢাকায় সমাবেশ না হলেও ঢাকার বাইরে কয়েকটি জায়গায় কর্মসূচিতে পুলিশ বাধা দিয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন জেলায় শান্তিপূর্ণভাবে এই কর্মসূচি পালিত হয়েছে।
গত ৫ জানুয়ারি লাগাতার অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করে গুলশান কার্যালয়ে অবস্থান নিয়েছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তিন মাস পর গত ৫ এপ্রিল বাসায় ফেরেন খালেদা জিয়া। অবরোধ প্রত্যাহারের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না দিলেও তার বাসায় ফেরার পর থেকে অবরোধ থেকে সরে আসে বিএনপি-জোট। এরপর থেকে বিএনপি অনেকটা চুপচাপ ছিল।
পাঁচ মাস পর গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে সারা দেশে প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করার ঘোষণা দেয় বিএনপি-জোট। সেই কর্মসূচিতে দেশবাসীকে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানায় তারা। কিন্তু এই কর্মসূচিতেও সাড়া নেই তাদের। নিজেদের নেতাকর্মীরাই রাজধানীতে সেভাবে মাঠে নামেনি। রাজধানীর কোথাও বিএনপিকে সমাবেশ বা উল্লেখযোগ্য মিছিল করতে দেখা যায়নি। কেন্দ্রীয় বা ঢাকা মহানগর বিএনপির উল্লেখযোগ্য কোনো নেতাকেও কর্মসূচি পালন করতে দেখা যায়নি। কেন্দ্রীয়ভাবে সমাবেশ বা মিছিল করার কোনো আয়োজনও ছিল না। শুধু রাজধানীতে কয়েকটি জায়গায় ঝটিকা মিছিল হয়েছে বলে দলের নেতারা দাবি করেছে।
রোববার সন্ধ্যায় এক বিজ্ঞপ্তিতে কেন্দ্রীয় বিএনপি দাবি করেছে, রাজধানীর বনানী, ধানমন্ডি, মোহাম্মদপুর, দক্ষিণখান, ওয়ারী, মুগদা, খিলগাঁও, শাহবাগ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ, সবুজবাগ, মতিঝিল, শ্যামপুর, মিরপুরের কালসি, পল্টন, তেজগাঁও, শেরে বাংলা নগর, তেজগাঁও, সূত্রাপুর ও জজকোর্ট এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে। মতিঝিলে মিছিল থেকে একজনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। বিএনপির অঙ্গ সংগঠন ছাত্রদল এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, সংগঠনটির নেতাকর্মীরা রাজধানীর শাহবাগ মোড় থেকে কাঁটাবন মোড় এলাকায় মিছিল করেন।
কেন্দ্রীয় বিএনপির দাবি, নোয়াখালী, রাঙামাটি, পিরোজপুর, মাগুরা, রংপুর মহানগর, রংপুর জেলা, মুন্সিগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, শরিয়তপুর, নওগাঁ, নড়াইল, এবং ময়মনসিংহ সদরে পুলিশের বাধার কারণে কর্মসূচি পালন করা সম্ভব হয়নি।