কমবে তেলের দাম , বাড়বে বিদ্যুৎ ও গ্যাস

63

গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হতে পারে। একই সঙ্গে কমানো হতে পারে তেলের দাম। সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের একাধিক সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। দ্রুত সময়েই এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা হবে।
সূত্র জানায়, গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর বিষয়ে কাল বুধবার বিদ্যুৎ বিভাগ ও জ্বালানি বিভাগের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বৈঠক করবেন। বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) সদস্যরাও এ বৈঠকে অংশ নেবেন। বৈঠকে গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর বিষয়ে বিস্তারিত পর্যালোচনা করা হবে।
বিইআরসি সূত্র জানায়, বিদ্যুতের দাম বাড়লেও প্রান্তিক গ্রাহকদের জন্য বাড়ানো হবে না। সিএনজি ও আবাসিক গ্রাহকদের গ্যাসের দাম বাড়ানো হবে। সঙ্গে বাড়বে ক্যাপটিভ বিদ্যুতে দেওয়া গ্যাসের দাম। জ্বালানি বিভাগ সূত্র জানায়, জ্বালানি তেলের দাম এমনভাবে কমানো হবে যেন আগামী ছয় মাস বা এক বছর আন্তর্জাতিক বাজারে কিছুটা দাম বাড়লেও বিপিসির কোনো লোকসান না হয়।
গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের ওপর গত ফেব্র“য়ারি মাসে শুনানি শেষ করেছে বিইআরসি। শুনানির পর রায় দিতে ৯০ দিনের যে বাধ্যবাধকতা, তা বিদ্যুতের জন্য ৭ জুন এবং গ্যাসের জন্য ১৮ জুন শেষ হয়েছে। বিইআরসির কারিগরি কমিটি সে সময় বিদ্যুৎ ও গ্যাসের নতুন দাম নির্ধারণ করে রাখলেও তা ঘোষণা করা হয়নি। সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের মতামতের ভিত্তিতে নতুন করে গ্যাস-বিদ্যুতের দাম নির্ধারণ করে তা ঘোষণা করা হতে পারে। গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হতে পারে। একই সঙ্গে কমানো হতে পারে তেলের দাম। সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের একাধিক সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। দ্রুত সময়েই এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা হবে।
সূত্র জানায়, গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর বিষয়ে কাল বুধবার বিদ্যুৎ বিভাগ ও জ্বালানি বিভাগের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বৈঠক করবেন। বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) সদস্যরাও এ বৈঠকে অংশ নেবেন। বৈঠকে গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর বিষয়ে বিস্তারিত পর্যালোচনা করা হবে।
বিইআরসি সূত্র জানায়, বিদ্যুতের দাম বাড়লেও প্রান্তিক গ্রাহকদের জন্য বাড়ানো হবে না। সিএনজি ও আবাসিক গ্রাহকদের গ্যাসের দাম বাড়ানো হবে। সঙ্গে বাড়বে ক্যাপটিভ বিদ্যুতে দেওয়া গ্যাসের দাম। জ্বালানি বিভাগ সূত্র জানায়, জ্বালানি তেলের দাম এমনভাবে কমানো হবে যেন আগামী ছয় মাস বা এক বছর আন্তর্জাতিক বাজারে কিছুটা দাম বাড়লেও বিপিসির কোনো লোকসান না হয়।
গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের ওপর গত ফেব্র“য়ারি মাসে শুনানি শেষ করেছে বিইআরসি। শুনানির পর রায় দিতে ৯০ দিনের যে বাধ্যবাধকতা, তা বিদ্যুতের জন্য ৭ জুন এবং গ্যাসের জন্য ১৮ জুন শেষ হয়েছে। বিইআরসির কারিগরি কমিটি সে সময় বিদ্যুৎ ও গ্যাসের নতুন দাম নির্ধারণ করে রাখলেও তা ঘোষণা করা হয়নি। সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের মতামতের ভিত্তিতে নতুন করে গ্যাস-বিদ্যুতের দাম নির্ধারণ করে তা ঘোষণা করা হতে পারে।