ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদ ও সিপিবি’র মে’ দিবসের শুভেচ্ছা

176

বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি কমরেড রাশেদ খান মেনন ও সাধারণ সম্পাদক কমরেড ফজলে হোসেন বাদশা মহান মে’ দিবসের ১৩০ তম বর্র্ষপূর্তীতে দেশের সকল শ্রমিক-কর্মচারী, শ্রমজীবি মেহনতী মানুষের প্রতি শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন।শনিবার এক শুভেচ্ছা বার্তায় তাঁরা বলেন শোষণ ও বঞ্চনার বিরুদ্ধে শ্রমজীবী মানুষের যে অগ্নিঝরা সংগ্রাম সেদিন রচিত হয়েছিল তার ধারা এখনো বিদ্যমান। বাংলাদেশের শ্রমিক শ্রেণী তার অধিকারের জন্য লড়াই করছে। অবাধ ট্রেড ইউনিয়নের অধিকার এখানে সংকুচিত। নিরাপদ কর্মক্ষেত্রের নিশ্চয়তা নেই। শ্রমিকদের বেঁচে থাকার ন্যুন্যতম জাতীয় মজুরীও নির্ধারিত হয়নি। অন্যদিকে বিশ্ব পুঁজিবাদ তথা সাম্রাজ্যবাদ মুনাফার লোভে ছলে বলে কৌশলে সারা বিশ্বে শ্রমিক শ্রেণীর বিরুদ্ধে আক্রমণ চালাচ্ছে। নিজ শ্রেণীর স্বার্থ রক্ষায় শ্রমিক শ্রেণীকেই ঐক্যবদ্ধ হয়ে পুঁজিবাদী শোষণের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। আসুন মহান মে’ দিবসের চেতনায় শানিত হয়ে সেই সংগ্রামের পথ রচনা করি।
জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এমপি এবং সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার এমপি মহান মে দিবস উপরলক্ষে এক বিবৃতিতে বাংলাদেশসহ বিশ্বের শ্রমিক-মেহনতি-শ্রমজীবী মানুষের প্রতি শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তারা বলেন, শ্রমিক-শ্রমজীবী-মেহনতি মানুষের শ্রমের উপরই মানব সভ্যতা গড়ে উঠেছে, টিকে আছে। কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় শ্রমিক-শ্রমজীবী-মেহনতি মানুষের মানবিক জীবন যাপনের অধিকার আজও উপেক্ষিত। তারা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আমাদের সংবিধান শ্রমজীবী-মেহনতি মানুষের যে অধিকারের স্কীকৃতি দিয়েছে তা আজও বাস্তবায়িত হয়নি। তারা বলেন, মহান মে দিবসের সংগ্রাম ও ঐক্যের চেতনায় বাংলাদেশের শ্রমিক-কর্মচারী-শ্রমজীবী-কর্মজীবী-মেহনতি মানুষকে মানুষের মতো বাঁচার অধিকার প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান। তারা মে দিবসের সংগ্রাম ও ঐক্যের চেতনায় যথাযথ মর্যাদায় মে দিবস উদযাপন করার জন্য দলের সকল জেলা ও উপজেলা কমিটির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
অনুরুপ বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি সভাপতি কমরেড মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক কমরেড সৈয়দ আবু জাফর আহমেদ এক বিবৃতিতে মহান মে দিবস উপলক্ষে শ্রমিকশ্রেণীসহ দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ আগামীকাল ১ মে সারাদেশে লাল ঝান্ডা হাতে রাস্তায় নেমে আসার জন্য শ্রমিকশ্রেণির প্রতি আহ্বান জানান। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, মহান মে দিবসে নতুন করে শপথ নিয়ে শ্রমিকশ্রেণিকে সকল প্রকার শোষণ-নির্যাতনের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ তীব্র সংগ্রাম গড়ে তুলতে হবে। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমেই শ্রমিকশ্রেণির অধিকার আদায় করে নিতে হবে। শ্রমিকশ্রেণির লাল ঝান্ডা উর্দ্ধে তুলে ধরতে হবে।
বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে বন্ধ কল-কারখানা চালু, গার্মেন্টস্সহ সকল ক্ষেত্রের শ্রমিকদের শ্রমসময় ৮ ঘণ্টা, জাতীয় ন্যূনতম মূল মজুরি ন্যূনতম ১০ হাজার টাকা এবং সকল সেক্টরে ন্যূনতম মজুরি নির্ধারণ, অবাধ ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার নিশ্চিত, আইএলও কনভেনশন অনুযায়ী, শ্রমআইন সংশোধন করে যুগোপযোগী করতে হবে, পর্যায়ক্রমে শ্রমিকদের জন্য রেশন ও বাসস্থান, রানা প্লাজার নিহত-আহত শ্রমিকদের ন্যায্য ক্ষতিপূরণ প্রদান, শ্রমিক হত্যাকান্ডের জন্য দায়ী রানা প্লাজা-তাজরিন ফ্যাশনস্সহ সকল মালিকের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান, ছাঁটাই-হামলা-মামলা-নির্যাতন বন্ধ করার দাবি জানান। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি