এটিএম কার্ড জালিয়াতিতে ৪০-৫০টি প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তি জড়িত

44

যুগবার্তা ডেস্কঃ এটিএম কার্ড জালিয়াতির ঘটনায় ৪০-৫০টি প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তি জড়িত বলে পুলিশকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছেন এই মামলায় গ্রেপ্তার চারজন।
আজ মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস সেন্টারে অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের এ কথা জানান। তিনি বলেন, তাদের দেওয়া তথ্য কতটুকু সত্য তা যাচাই করে দেখা হচ্ছে। ইতিমধ্যে পুলিশ চার-পাঁচটি প্রতিষ্ঠানে গিয়ে অভিযুক্তদের জিজ্ঞাসাবাদও করেছে।
মনিরুল বলেন, এটিএম কার্ড জালিয়াতি চক্রের পিওটর মূলত জার্মানের নাগরিক। তাঁর পূর্বপুরুষ ছিল পোল্যান্ডের নাগরিক। তিনি তার পাসপোর্টের নাম পরিবর্তন করে জালিয়াতি করছেন। গ্রেপ্তার চারজনকে আবার রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাংলাদেশ থেকে কোটি কোটি টাকা জালিয়াতির কথা অপরাধীরা জানিয়েছেন। তবে কি পরিমাণ টাকা জালিয়াতি হয়েছে তার সঠিক কোন তথ্য তারা দিতে পারেনি। কতগুলো ব্যাংকে এ ধরনের জালিয়াতি হয়েছে জানতে চাইলে মনিরুল ইসলাম জানান, ‘আমরা তার তালিকা তৈরি করছি, পরে জানানো হবে।’
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় ৭০ হাজার ইয়াবাসহ দশ জনকে আটক করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, নবী হোসেন ওরফে ভূট্টো, মো. আরিফুল হাসান, মিঝু হোসেন ওরফে হোসেন, মো. শরিফ সিকদার ওরফে আব্বাস, মো. ইয়াছিন, মো. মনিরুজ্জামান ওরফে মনির, মো. হমিদুল, মো. রায়হান ফরাজী এবং স্টকলড ব্যবসারী মো. তাকবির মুরাদ ওরফে মামুন ও মো. ওবায়দুল্লাহ।