এক প্রতিবাদের গল্প।

91

ফজলুল বারী, সিডনীঃ নারায়নগঞ্জের শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তের জাতীয় পার্টির বেয়াদব এমপি সেলিম ওসমানের হাতে নিগ্রহের প্রতিবাদ হচ্ছে সারাদেশে “সরি স্যার” শিরোনামে। বিদেশে দেহখানি থাকলেও মনটাতো আমাদের সারাক্ষন বাংলাদেশে। তাই আমরাও প্রতিবাদে সামিল হতে চাইলাম। প্রিয় প্রজন্ম শাখাওয়াত নয়ন, রুবেল প্রতিবাদ সংগঠনের উদ্যোগ নেন। ঠিক হয় শনিবার বিকেল পাঁচটার মধ্যে যার যার সমমনাদের নিয়ে সিডনির অপেরা হাউসের সামনে চলে আসবো। বিদেশে সবাই কাজ নিয়ে ব্যস্ত। বিশেষ করে শনিবার ছাত্রদের কাজ বেশি থাকে। কাজেই কাউকে ম্যানেজ করতে পারলামনা। আমি কখনো কাজ কামাই করতে কাউকে বলিনা। কারন একদিনের ইনকাম অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আমার কাজ বিকেল ছয়টা থেকে হিলসডেলে। এটি আবার বাসের রুট। শহরে পার্কিং, বিকেলের ওই সময়টায় জ্যাম এমন নানা সমস্যা মাথায় রেখে আমি হিলসডেলে কাজের জায়গায় আগে এসে গাড়ি পার্ক করে রাখি। এরপর বাসে-ট্রেনে চলে যাই সিটিতে। অপেরা হাউসের সামনে গিয়ে ততক্ষনে যে কয়জন এসেছেন তাদের নিয়ে প্রতিবাদের কাজকর্ম সেরে আবার ট্যাক্সি নিয়ে চলে আসি হিলসডেলে। ট্যাকসিওয়ালি লেবানিজ মহিলাটি মিটার গুনে ভাড়া নিয়েছে চল্লিশ ডলার। টাকা যাক, কথা দিয়ে প্রতিবাদে সামিল হতে পেরেছি এতেই খুশি। চলুক প্রতিবাদ সেলিম ওসমানদের মতো সব অশুভের বিরুদ্ধে।-লেখকঃ সাংবাদিক, অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী।