এক-এগারোর সহযোগীদের বিচারের দাবি জোরালো হচ্ছে

68

যুগবার্তা ডেস্কঃ এখন সর্বত্র আলোচনায় ১/১১। গত ৬ ফেব্রুয়ারি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এটিএন নিউজের একটি টক শোতে অংশ নিয়ে মাহফুজ আনাম সংবাদ প্রকাশের ব্যাপারে তার ভুল স্বীকার করার পর রাজনৈতিক পর্যায়ে আলোচনায় আসে ১/১১ এর বিষয়টি। প্রধানমন্ত্রী দুই সম্পাদকের বিচার চেয়েছেন। আ.লীগ নেতারা কমিশন গঠন করে বিচার চান। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের মন্তব্যে আওয়ামী লীগে তোলপাড় শুরু হয়েছে। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদও ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। তিনি বলেছেন তার দলের মন্ত্রী আনিসুর ইসলাম মাহমুদ জড়িত এবং তার বিচার চেয়েছেন। ২৮ ফেব্রুয়ারি সংসদেরও ব্যাপক সমালোচনা করেছেন দুই মন্ত্রী।
জাতীয় সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকারদলীয় সংসদ সদস্যরা এক এগারোর কুশীলবদের বিচারের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন। তারা সুপ্রিমকোর্টের একজন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতিকে প্রধান করে তদন্ত কমিশন গঠনের কথা বলেছেন। তারা বলেছেন, দেশে আগামীতে এ ধরনের ঘটনার যাতে পুনরাবৃত্তি না ঘটে সেজন্য গণতন্ত্র ও সংবিধান ধ্বংস এবং বিরাজনীতিকরণের ষড়যন্ত্রে জড়িত ষড়যন্ত্রকারীদের বিচার হতেই হবে।
নোবেলজয়ী ড. ইউনূস ও ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম এক এগারো সরকারের সহযোগী ছিলেন। তারা বিরাজনীতিকরণ করতে ষড়যন্ত্র করেছিলেন- এমন অভিযোগ করে তাদেরও আইনের আওতায় আনার দাবি জানান।
২৮ ফেব্রুয়ারি রোববার স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এবং ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বি মিয়ার সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে সংসদ সদস্যরা এসব দাবি জানান।
আলোচনায় অংশ নিয়ে আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতা ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম ওয়ান ইলেভেনের কুশীলবদের কড়া সমালোচনার পাশাপাশি ওই সময় কারা কী করেছে তা তদন্ত করে জাতির সামনে তাদের মুখোশ উন্মোচন করতে একটি কমিশন গঠনের দাবি জানান। তিনি বলেন, ভবিষ্যতে যাতে আর এক এগারোর সৃষ্টি না হয় সেজন্য তাদের বিচার করতেই হবে। এক এগারোর কুশীলবরা এখন সরি বলেন। তারা সরি বললেই কি সব শেষ হয়ে যাবে? প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফিরিয়ে দেবে কারাভোগের সেই ১১টি মাস সরি বললেই কি আমি সুস্থ হয়ে যাব? কী ষড়যন্ত্রই না করা হয়েছে। তিনি বলেন, এক এগারোর কুশীলবরা দশ বছর ক্ষমতায় থাকতে চেয়েছিল। ওই সময় খালেদা জিয়া বাক্সপেটরা গুছিয়েছিলেন ছেলেকে নিয়ে দুবাইয়ে পালিয়ে যেতে। একমাত্র শেখ হাসিনার দৃঢ়-সাহসী উ”চারণের কারণেই সব ষড়যন্ত্র ভেদ করে দেশে গণতন্ত্র এসেছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধু, চার জাতীয় নেতা ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করছেন এবং দন্ড কার্যকর করছেন।
মোহাম্মদ নাসিম ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনামের কঠোর সমালোচনা করে তিনি বলেন, মাহফুজ আনাম ভুল করে স্বীকার করেছেন। কিন্তু রাজনীতিবিদ, প্রশাসন, পুলিশ, ব্যবসায়ীরা ভুল করলে তাদের অবধারিত জেলে যেতে হয়। কিন্তু মাহফুজ আনামরা ভুল করলে শুধু ‘সরি’ বললেই সব শেষ। কোনোদিন শান্তির জন্য কাজ করেননি, অথচ ড. ইউনূস শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পান! এক এগারোর পটভূমি তৈরি করার জন্যই এ ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল।
জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, মাহফুজ আনাম প্রসঙ্গে অ্যামনেস্টিসহ অনেকে কথা বলছেন। কিš‘ একাত্তরের গণহত্যা, ‘৭৫-এর শিশু হত্যা, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা, কর্নেল তাহেরকে গোপন ট্রায়ালে হত্যা, আগুনযুদ্ধ, পুড়িয়ে শত শত মানুষকে হত্যার সময় এরা একটি কথা বলেনি, কোনো বিবৃতি দেয়নি। মাহফুজ আনামের স্বীকারোক্তি নিয়ে সমালোচনা চলছে, তখন তারা হঠাৎ করেই হস্তক্ষেপ হচ্ছে বলে হৈচৈ করছেন। এরা একচোখা সংস্থা।
আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য আফম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, এক এগারোর কুশীলবরা যে চরিত্রেরই হোক না কেন, তারা যে পেশারই হোক না কেন- এই দুষ্টচক্রকে বিচারের আওতায় আনতে হবে। এজন্য সুপ্রিমকোর্টের বিচারকের নেতৃত্বে একটি বিচারবিভাগীয় তদন্ত কমিশন গঠন করতে হবে।
ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনামকে আত্মস্বীকৃত দোষী সাংবাদিক অভিহিত করে তিনি বলেন, মাহফুজ আনাম গংদের বিচার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বাংলার মানুষ আইনি প্রক্রিয়া শুরু করেছে। এই ধারাবাহিকতা অক্ষুন্ন রাখার জন্য আরও যারা এই দুষ্টচক্রের সদস্য তাদেরও বিচারের আওতায় আনতে হবে।
এজন্য একটি বিচারবিভাগীয় তদন্ত কমিশন গঠন করতে হবে। এ কমিশনের মধ্য দিয়ে সব অপকর্মকারীদের চিহ্নিত করতে হবে। তাদের বিচারেরও আওতায় এনে দেশের ১৬ কোটি মানুষের স্বার্থকে রক্ষা করতে হবে।
ওয়ান-ইলেভেনের সময় ফখরুল-মইনকে ক্ষমতায় আনার পেছনে ষড়যন্ত্রকারী হিসেবে নিজ দলের প্রেসিডিয়াম মেম্বার ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদের নাম প্রকাশ করেছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। ২৮ ফেব্রুয়ারি বিকাল ৪টায় শেরপুর শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে জেলা জাতীয় পার্টির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
এরশাদ বলেন, অবৈধভাবে ফখরুল-মইনকে ক্ষমতায় আনার পেছনে ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনামসহ যে কজনের নাম এসেছে, তাদের সঙ্গে আরেকজনের নাম সংযোজন করতে হবে; তিনি হচ্ছনে- আমার দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য পানিসম্পদমন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ।
তিনি বলেন, আনিসুল সেই সময় আমাকে সরিয়ে অবৈধভাবে দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব হয়েছিলেন। আমি ওয়ান-ইলেভেন হোতাদের সঙ্গে তারও বিচার দাবি করছি। তিনি আরও বলেন, জিএম কাদেরকে দলের পরবর্তী নেতা হিসেবে গড়ে তোলার জন্য ইতোমধ্যে তাকে কো-চেয়ারম্যান মনোনীত করেছি।
আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, দেশে আর কোনো দিন যাতে এক-এগারোর মতো ঘটনা ঘটাতে না পারে সে জন্যই তদন্ত কমিশন গঠন করে এক-এগারোর কুশীলবদের বিচার করতে হবে। ২৬ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর একটি হোটেলে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।এম কবির , আমাদরে সময়.কম