একফোটা রক্তেই রোগ নির্নয়

95

সুন্দরী, যুবতী, বিলিয়নেয়ার… শুধু তাঁর কাছে যেটা নেই, সেটা হলো সময়। বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে আড্ডা মারা, ডেটিং, টিভি দেখা, গল্পের বই পড়া- এসব কোনো কিছুর জন্যই তাঁর হাতে কোনো সময় নেই। টিভি দেখার সময় পান না বলে তার বিলাসবহুল বাড়িতে একখানা টিভি-ও নেই। রেফ্রিজারেটর আছে। তবে, তা ফাঁকাই পড়ে থাকে। কারণ খাওয়া-দাওয়া সবই তো অফিসে। এত কাজ। এতটাই, যে ছুটি শব্দটাই তাঁর অভিধান থেকে কবে উবে গেছে। গত ১০ বছরে কোনোদিন অফিস থেকে ছুটি নেননি তিনি। সিলিকন ভ্যালির সেল্ফ-মেড মাল্টি বিলিয়নেয়ার ৩০ বছর বয়সী এলিজাবেথ হোমস।
কলেজে দ্বিতীয় বর্ষের ড্রপড-আউট এই ছাত্রীর ১১ বছর আগে ছাত্রাবস্থায় যুগান্তকারী আবিষ্কার রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে রোগনির্ণয়ের আধুনিক পদ্ধতি থেরানোস। রোগনির্ণয়ের জন্য সিরিঞ্জ ভর্তি রক্ত যে না নিলেও চলে, তা আবিষ্কার করেন এই ওমেন ইন ব্ল্যাক। সব সময় কালো পোশাক পরিহিতা এই মহিলাই সাবেক পদ্ধতিতে পরিবর্তন এনে পৃথিবীকে দেখিয়ে দেন, এক ফোঁটা রক্তই হদিস দিতে পারে যাবতীয় রোগের। বর্তমানে তার সংস্থার বিনিয়োগমূল্য প্রায় ৬০ কোটি। চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার হিসেবে এই বয়সে তার এমন সাফল্যই বলে দিচ্ছে কাজের প্রতি কতটা দায়বদ্ধ এই রমণী।
ফরচুন মোস্ট পাওয়ারফুল ওমেন সামিটে সম্মানীত হোমস। ব্যক্তিগত এক সাক্ষাৎকারে তিনি যখন তার সারাদিনের রুটিন তুলে ধরেন, সেখানেই ফুটে ওঠে তার সাফল্যের চাবিকাঠি। কর্মযোগ যে একটা মানুষকে কতটা ঘিরে রাখতে পারে তার প্রকৃষ্ট উদাহরণ এলিজাবেথ হোমস। হ্যাটস অফ।