উন্মুক্ত উরু যৌনতার অংশ নয়

120

যুগবার্তা ডেস্কঃ স্বল্প বসন আর হাই হিল পরা নারী, উন্মুক্ত উরু যৌনতার অংশ নয়। এমনটা শিক্ষা দেয়া হচ্ছে ইউরোপে আশ্রয় গ্রহণকারী মুসলিম অভিবাসীদের। বেশ কয়েক বছর ধরে নরওয়েতে যৌন বিষয়ক শিক্ষা চলছে। পূর্ণ বয়স্কদের এ বিষয়ে ক্লাস করানো হচ্ছে। কিন্তু কলোগনিতে নারীদের ওপর হামলার পর থেকে এ শিক্ষার দাবি ইউরোপে জোরদার হয়েছে। পশ্চিমা নারীদের প্রতি কিরূপ আচরণ করতে হবে তা শিখানো হচ্ছে অভিবাসীদের। তাদেরকে মিনি স্কার্ট পরা নারীর ছবি দেখানো হচ্ছে।
বলা হচ্ছে, এর অর্থ এই নয় যে ওই নারী শারীরিক সম্পর্কে আবদ্ধ হওয়ার কামনা জাগাচ্ছেন। অভিবাসীদের এমন শিক্ষা যারা দিচ্ছেন তাদের একজন লিন্ডা হ্যাগেন। তিনি বলেছেন, যতই শিক্ষা দিই আমরা কিছু পুরুষের আচরণ পরিবর্তন করতে পারছি না। অভিবাসীদের ভিতর থেকে সহিংস আচরণ করে এমন ব্যক্তিদের আলাদা করা হলেই নারীদের বিরুদ্ধে আক্রমণ থামানো যাবে।
একটি পত্রিকার অনলাইন সংস্করণ জানাচ্ছে, পুরুষদের আচরণ পরিবর্তন করাতে যে ছবিটি ব্যবহার করা হচ্ছে তাতে মিনি স্কার্ট পরা এক নারী রয়েছেন। তার পায়ের উপর থেকে উরু পর্যন্ত উন্মুক্ত। ধর্ষণ বিরোধী ক্লাস করানোর ক্ষেত্রে নরওয়েতে এ ছবিটি ব্যবহার করা হচ্ছে। বলা হচ্ছে, এই ধারার ক্লাস পুরো মহাদেশে ব্যবহার করা হতে পারে। বিশেষ করে আরব ও উত্তর আফ্রিকান অভিবাসীদের ক্ষেত্রে এটা বেশি কার্যকর। তাদেরকে এসব ক্লাসের মাধ্যমে বোঝানো হচ্ছে এমন পোশাকের কোন নারী মানেই এই নয় যে, তাকে ধর্ষণ বা যৌন নির্যাতন করতে হবে।
এ কোর্সের প্রধান লিন্ডা হ্যাগেন বলেন, তার ক্লাসে যারা অংশ নেন তাদের কেউ কেউ মাঝে মাঝেই আপত্তিকর মন্তব্য করেন। তারা বলতে চান স্বল্প পোশাক, উন্মুক্ত উরুর নারী শারীরিক সম্পর্কে আমন্ত্রণ জানান।