উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে যুদ্ধপ্রস্তুতিতে যুক্তরাষ্ট্র ও মিত্র দেশগুলোর মহড়া শুরু

যুগবার্তা ডেস্কঃ যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়া উভয়কে পারমাণবিক যুদ্ধের হুমকি দিয়ে চ‚ড়ান্ত প্রস্তুতি নিয়ে তৈরি। যুক্তরাষ্ট্রকে ঘিরে আছে উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্রের মত আগুণে গোলা। আর উত্তর কোরিয়াকে ঘিরে যুক্তরাষ্ট্র সহ মিত্র দেশগুলোর একাধিক সামরিক মহড়া চলছে ও চলবে। ভ‚মধ্য সাগরে ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে ফ্রান্স ও ভারতের যৌথ নৌ মহড়া। আগামী জুনে কোরিয় উপদ্বীপে শুরু হচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের যৌথ মহড়া। জাপানও একাধিক মহড়া করে জানান দিচ্ছে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে বিশ্ব অর্থনীতির পয়লা কাতারের এদেশটিও প্রস্তুত। গতকাল কোরিয়া উপদ্বীপে এসব দেশ বিভিন্ন ধরনের সামরিক মহড়া চালিয়েছে।
দুটি মার্কিন ডেস্ট্রয়ার দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে যৌথ মহড়া চালায় চীন ও কোরিয়ার মধ্যবর্তী অঞ্চল ইয়েলো সাগারে। যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর সপ্তম নৌবহর জাপানের সঙ্গে পূর্ব সাগরে মহড়ায় অংশ নেয়। সাগরের ওই অংশ জাপান সাগর বলেও পরিচিত। যুক্তরাষ্ট্রের তরফ থেকে বলা হচ্ছে এসব সামরিক মহড়া উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে যুদ্ধের পূর্ব প্রস্তুতি হিসেবেই শুরু হয়েছে এবং তা পরিস্থিতি বিবেচনা করেই করা হচ্ছে।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প উত্তর কোরিয়াকে লক্ষ্য করে ইতিমধ্যে যুদ্ধ জাহাজ ‘আরমাদা’ মোতায়েন ও প্রস্তুত করে রেখেছেন। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের ৪৪০০ টনের ডেস্ট্রয়ার ‘ওয়াংজেন’,রণতরী ইউএসএস ওয়েনি ই মেয়ার, পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র সজ্জিত ডেস্ট্রয়ার সহ বিভিন্ন বাহক ধরনের জাহাজ দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে যৌথ প্রস্তুতি নিচ্ছে।
ওদিকে জাপানের নৌবাহিনী উত্তর কোরিয়ার অপর পাশে সপ্তম নৌবহরের সঙ্গে যৌথ মহড়ায় অংশ নিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর এক মুখপাত্র বলেছেন, এধরনের মহড়াগুলো উত্তর পূর্ব এশিয়ার মিত্রদেশগুলোর মধ্যে নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতার ব্যাপারে যে প্রতিশ্রুতি রয়েছে তা নিশ্চিত করবে। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর অন্তর্নিহিত শক্তি মিত্র দেশগুলোর নৌবাহিনীর শক্তির সঙ্গে এক সমন্বয় সাধনের মধ্যে দিয়ে বৃহৎ পরিসরে সার্বিক পরিস্থিতি মোকাবেলা করার এক কৌশল নির্ধারণ করবে।
এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের আরেকটি বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ ইউএসএস কার্ল ভিনসন’এর সঙ্গে কোরিয় উপদ্বীপে মার্কিন বৃহৎ পারমাণবিক সাবমেরিন ইউএসএস মিশিগান যোগ দিয়েছে। এপ্রিলের শেষ ভাগে কার্ল ভিনসনের নেতৃত্বে যৌথ নৌ মহড়া অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। একই সঙ্গে আরো দুটি মার্কিন বিমানবাহী যুদ্ধ জাহাজ কোরিয় উপদ্বীপে ছুটছে।
ইতিমধ্যে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প উত্তর কোরিয়াকে হুঁশিয়ার করে বলেছেন, কোনো প্রকার পারমানবিক অস্ত্রের পরীক্ষা চালালেই তার দেশ আক্রান্ত হবে। অন্যদিকে উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং-উন বলেছেন, পারমাণবিক অস্ত্র সহ দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র বা যে কোনো প্রতিরক্ষা প্রস্তুতি ও পরীক্ষা নীরিক্ষা তার দেশ অব্যাহত রাখবে। উত্তর কোরিয়ার সামরিক দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার দেশটি পদাতিক বাহিনীর ব্যাপক কামান অনুশীলন চালায়।-আমাদের সময়.কম