উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের টিকিটের জন্য কমলাপুরে ভিo

52

যুগবার্তা ডেস্কঃ ঈদ উপলক্ষে রাজধানী থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে যেতে যাত্রীদের জন্য শুক্রবার কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে ৩ জুলাইয়ের টিকেট দেয়া হচ্ছে। আর এই ট্রেনের টিকিটের জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা প্লাটফর্মে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে।

আজ শুক্রবার সকালে স্টেশনে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কাউন্টারগুলোর সামনে প্লাটফর্মে দাঁড়িয়ে আছে শত শত মানুষ।

অন্য দিনের তুলনায় শুক্রবার উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের ট্রেনের টিকিটের জন্য নারী-পুরুষের ব্যাপক ভিড় দেখা যায়। কেউ কেউ ১৮ ঘণ্টা ধরে অপেক্ষার পর পেয়েছেন কাঙ্ক্ষিত টিকিট।

রাজশাহীর শীতাতপ শ্রেণির টিকেট নিতে এসেছিলেন রাজধানীর তিতুমীর কলেজ শিক্ষার্থী জহিরুল ইসলাম। ৯ ঘণ্টা ধরে অপেক্ষা করেও টিকেট পাননি তিনি।

সকাল ৯টার দিকে তিনি বলেন, ‘সকাল ৮টায় টিকেট বিক্রি শুরু হয়েছে। এখন বলছে টিকেট নাই। টিকেট গেল কোথায়?’

ঢাকায় বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির কোচিং করা সোলায়মান হোসেন পাবনার ইশ্বরদীর টিকিট না পেয়ে উল্লারপাড়ার টিকিট নিয়েছে।

এদিকে উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চল ছাড়া অন্য গন্তব্যের টিকিটের কাউন্টারগুলোতে শুক্রবার তেমন ভিড়ে দেখা যায়নি।

কমলাপুর স্টেশনের ব্যবস্থাপক সিতাংশু চক্রবর্ত্তী জানান, এবার ঈদের সময়টাতে প্রতিদিন ৩৩টি ট্রেনের ১৮ হাজার টিকিট বিক্রি হবে। বিভিন্ন ট্রেনে অতিরিক্ত ৮৪টি বগি সংযোজন করা হবে। এছাড়া ঢাকা-খুলনা, ঢাকা-পার্বতীপুর ও ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ রুটে তিন জোড়া অতিরিক্ত ট্রেন চলবে।

কমলাপুর স্টেশনে কাউন্টার সংখ্যাও আগের চেয়ে তিনটি বাড়িয়ে ২৩টি করা হয়েছে। নারী, শিশু ও প্রতিবন্ধীদের জন্য রয়েছে আলাদা একটির কাউন্টার।

স্টেশন ব্যবস্থাপক জানান, এবার ৬৫ শতাংশ টিকিট উন্মুক্ত বিক্রির জন্য রাখা আছে। মোবাইল ও অনলাইনে বিক্রির জন্য টিকিট রয়েছে ২৫ শতাংশ।

এছাড়া ভিআইপিদের জন্য ৫ শতাংশ এবং রেলওয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জন্য ৫ শতাংশ টিকিট রাখা আছে বলে জানান তিনি।ইত্তেফাক