উজিরপুরে ইউপি সদস্য’র নেতৃত্বে হামলা আহত-২

উজিরপুর(বরিশাল) প্রতিনিধিঃ বরিশালের উজিরপুরের সাতলা ইউনিয়নে জুম্মার নামাজ শেষে ০৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য কালাম বিশ্বাসের নেতৃত্বে মুসুল্লিদের উপর হামলা চালিয়ে দুইজনকে আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। । আহতদের উজিরপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় উজিরপুর মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। স্থানীয় ও অভিযোগ সূত্রে জানাযায়, শুক্রবার (০১ জুলাই) দুপুরে উত্তর সাতলা গ্রামের হুড়িরপাড় বায়তুস আমান জামে মসজিদে জুম্মার নামাজের সময় ওই মসজিদের মুসুল্লী মনিরুজ্জামান, আতিকুর রহমান, খোকন বিশ্বাসসহ একাধীক লোকজন মসজিদের দিঘীর পাড় সংস্কার না করে মাছ চাষ করতে নিষেধ করলে মসজিদ কমটির সভাপতি আলমগীর বিশ্বাস ও স্থানীয় ইউপি সদস্য কালাম বিশ্বাসের সাথে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায় নামাজ পড়ে মসজিদ থেকে বের হওয়ার সময় ইউপি সদস্য কালাম বিশ্বাসের নেতৃত্বে তার ছেলে রুবেল বিশ্বাস, তার ভাই নজরুল বিশ্বাস, কিবরিয়া বিশ্বাস, দেলায়ার বিশ্বাস, ভাতিজা বায়জিদ বিশ্বাস, সাকিব বিশ্বাস, হামেদুল বিশ্বাস, খায়রুল বিশ্বাস মিলে হামলা চালিয়ে খোকন বিশ্বাস(৩৫), সাইফুল বিশ্বাসসহ ৪-৫জনকে আহত করে। এসময় স্থানীয় মুসুল্লীরা গুরুত্বর আহত খোকন বিশ্বাসকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য উজিরপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ওই মসজিদের মুসুল্লী আতিকুর রহমান ও মনিরুজ্জামান বলেন, মসজিদ আমাদের জায়গায়। মসজিদের পাশে একটি খাস জমিতে বড় দিঘী আছে। প্রতিবছর ওই দিঘীতে মাছ চাষ করে সকল টাকাপয়সা মসজিদে দেওয়া হয়। ওই দিঘীতে মাছ চাষের কারনে পাশের সম্পত্তি ভেঙে পড়ে যায়। এ কারনে জুম্মার নামাজের সময় মসজিদ কমিটিকে দিঘীর পাড় সংস্কার করে মাছ চাষ করার কথা বললে ইউপি সদস্য কালাম বিশ্বাসের সাথে আমাদের বাকবিতান্ডা হয়। এসময় হুজরে জুম্মার নামাজের জন্য ধারিয়ে গেলে তারা নামাজ না পড়ে বাহিরেচলে যায়। আমরা নামাজ শেষ করে মসজিদের বাহিরের আসার সাথে সাথে ইউপি সদস্য কালাম বিশ্বাসের লোকজন তার নেতৃত্বে আমাদের উপর হামলা চালায়। অভিযুক্ত ইউপি সদস্য কালাম বিশ্বাস হামলা বিষয়টি অস্বিকার করে বলেন, কোন হামলা হয়নি। তবে মুসুল্লীদের ভিতর ভুলবুঝাবুঝি হয়ে বাকবিতান্ডা হয়েছে মসজিদ কমটির সভাপতি, সাধারন সম্পাদকদের সাথে। এখানে আমার কোন সম্পৃক্ততা নাই। উজিরপুর মডেল থানার ওসি(তদন্ত) মমিন উদ্দিন জানান, ঘটনা শুনে পুলিশ পাঠিয়েছি। অভিযোগ পেয়েছি সুষ্ঠ তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে ।