ই-জিপি পদ্ধতি অর্থনীতিতে অভাবনীয় পরিবর্তন আনবে—পরিকল্পনা মন্ত্রী

যুগবার্তা ডেস্কঃ পরিকল্পনা মন্ত্রী জনাব আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন , সরকারি ক্রয়ে স্বচ্ছতা , জবাবদিহিতা এবং সময় ও অর্থের অপচয় রোধে ই-জিপি পদ্ধতি অর্থনীতিতে অভাবনীয় পরিবর্তন আনবে ।এ সবের ধারাবাহিকতায় ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা ,দারিদ্র বিমোচন এবং জ্ঞানভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠা সময়ের ব্যাপার ।অগ্রগতির এ ধার অব্যহত থাকলে ২০৪০সালের বাংলাদেশ হবে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ ।

মন্ত্রী আজ ঢাকায় এনইসি মিলনায়তনে সিপিটিইউ আয়োজিত ই-জিপি সিস্টেমে ব্যাংকের ভূমিকা ও ভবিষ্যত পদক্ষেপ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন ।

আইএমইডি সচিব ফরিদ উদ্দিন আহমেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অর্থ মন্ত্রণালয় এবং পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান, বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্ণর সিতাংশু কুমার সুর চৌধুরী , বিশ^ব্যাংকের কান্ট্রি ডাইরেক্ট চিমিয়াও ফেন(ছওগওঅঙ) এবং সিপিটিইউ এর মহাপরিচালক ফারুক হোসেন অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন ।

পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, ব্যাংকিংখাত দেশের শিল্প-প্রসারে অতি গুরুত্বপূর্ন একটি খাত । দেশের অর্থনীতির টেকসই গতিশীলতা আনতে ব্যাংক সমূহকে উইন উইন পরিস্থিতিতে কাজ করতে হবে । এ লক্ষ্যে ব্যাংকিং সেবা ও সুদের হার আন্তর্জাতিক মানদন্ডে উন্নীত করা অপরিহার্য । আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার যোগ্য করে নিজেদের গড়ে তুলতে হবে ।
তিনি বলেন, আমাদের কাজ হচ্ছে ,দেশটিকে কাঙিত লক্ষ্যে উপনীত করা এবং আমরা এগিয়ে যাচ্ছি । তিনি জাপান ,চীন ও সিঙ্গাপুরসহ বিশে^র কয়েকটি দেশের ২০ বছরের তুলনামূলক অর্থনৈতিক সমীক্ষা তুলে ধরে বলেন, জাপান ৫০ বছরে ৫০গুণ ,চীন ১৯৮০সাল থেকে ২০১৫ পর্যন্ত ৫২গুণ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে । আমাদের এখন সে সময় এসছে । অগ্রগতির বর্তমান ধারা অব্যহত থাকলে ২০৪০সালে বাংলাদেশ বিশ^ অর্থনীতিরর শক্তিশালী দশটি দেশের কাতারে সামিল হবে ।

মন্ত্রী সিপিটিইউ নামে একটি মোবাইল এ্যাপ‘স এর উদ্বোধন করেন।

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ব্যাংকের শীর্ষ কর্মকর্তাগণ ছাড়াও দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ঠিকাদার ও ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন ।