ইংল্যান্ড ঠিক সময় বাংলাদেশে আসবে-মাশরাফি

যুগবার্তা ডেস্কঃ পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলতে ইংল্যান্ড ঠিক সময়েই বাংলাদেশ সফরে আসবে বলে বিশ্বাস করেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের কিংবদন্তি অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা।

গত ১ জুলাই গুলশানের একটি ক্যাফেতে সন্ত্রাসী হামলার পর অক্টোবরে অনুষ্ঠেয় বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড সিরিজ নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। সম্প্রতি বাংলাদেশের নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে গেছেন ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) তিন সদস্যের প্রতিনিধি দল।

ইসিবির নিরাপত্তা উপদেষ্টা রেগ ডিকাসনের নেতৃত্বাধীন ওই প্রতিনিধি দল এ ব্যাপারে ইংল্যান্ড দলকে বৃহস্পতিবার ব্রিফিং করবেন। তাদের কাছ থেকে এখানকার পরিস্থিতি জেনে খেলোয়াড়রাই সিদ্ধান্ত নেবেন বাংলাদেশে আসবেন কি আসবেন না। মাশরাফির বিশ্বাস, ইংল্যান্ড আসবে।

বুধবার মিরপুরে সাংবাদিকদের মাশরাফি বলেন, ‘প্রথমতো আমি বলব আসতে, এবং এখনো আমি বিশ্বাস করি তারা আসবে। স্বাভাবিক অবস্থা থাকলেও অন্যান্য দলকে যেভাবে নিরাপত্তা দেওয়া হয়; আমরা অনেক আত্মবিশ্বাসী, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড এবং সরকারের পক্ষ থেকে সেভাবেই নিরাপত্তা দেওয়া হবে।’

সন্ত্রাসী হামলা এখন বৈশ্বিক সমস্যায় পরিণত হয়েছে। তাই বলে তো আর খেলাধুলা বন্ধ হয়ে যায়নি। বাংলাদেশের ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক বলেন, ‘পৃথিবীর সব জায়গাতেই এই ঘটনাগুলো ঘটছে। এর জন্য খেলা বাদ দিলে এক সময় তো খেলাই বন্ধ হয়ে যাবে। ফ্রান্সের মতো জায়গায় সন্ত্রাসী হামলার পর কিন্তু ইউরো হয়েছে। সব দল খেলেছে। সব জায়গাতেই এমন কম বেশি সমস্যা হচ্ছে। আমি মনে করি খেলোয়াড়দের উচিত খেলার দিকে ফোকাস করা। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের হাতে ছেড়ে দেওয়া। যেহেতু তাদের বোর্ড থেকে আমাদের বোর্ডে প্রতিনিধি দল এসেছে। তাদের ওপর অবশ্যই বিশ্বাস রাখতে হবে।’

আগের দিন ইংল্যান্ডের দ্য টেলিগ্রাফ পত্রিকায় প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ সফরে খেলোয়াড়দের আসা-যাওয়ার পথের নিরাপত্তা নিয়ে নাকি শঙ্কা প্রকাশ করেছেন ইসিবির নিরাপত্তা উপদেষ্টা রেগ ডিকাসন। এ ব্যাপারে মাশরাফি বলেন, ‘উনারা যেহেতু দেখতে এসেছিল, একটা বিষয় বলতেই পারে। কোন সেন্সে বলেছে, এটা আমি জানি না। আমার কাছে মনে হয়, যাই হোক আমাদের ওই ক্ষমতা আছে যে খেলোয়াড়াদের ঠিকভাবে নিয়ে যাওয়া এবং নিয়ে আসা। আমাদেরও কিন্তু পরিবার আছে। আমরাও তো মানুষ। আমাদের যাতায়াতের বিষয়টি এর মধ্যেই পড়ে। আমি মনি করি বিসিবি খুব ভালোভাবে সামলাতে পারবে। আমার বিশ্বাস, এটা খুব কঠিন কাজ নয়।’

বাংলাদেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে ইংল্যান্ডের ক্রিকেটারদের আশ্বস্ত করে মাশরাফি বলেন, ‘প্রত্যেকটি খেলোয়াড়ের ক্ষেত্রে আমি বলব, তোমরা আসবা। আমি নিশ্চিত তোমরা এখানে এসে নিশ্চিন্ত মনে ক্রিকেট খেলতে পারবে। অন্যকিছু নিয়ে ভাবার সুযোগ নেই। আশা করি, খুব ভালো প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। এই পরিস্থিতিতে আমরা খেললে আমাদের ভেতর বন্ধুত্ব আর দৃঢ় হবে।’

এ ধরনের পরিস্থিতিতে বিসিবি সব সময়ই ইসিবিকে পাশে পেয়েছে। মাশরাফির বিশ্বাস, এবারও ব্যতিক্রম হবে না, ‘আমি প্রথম দিনই বলেছিলাম ইংল্যান্ড শুরু থেকেই বাংলাদেশের ক্রিকেটের পাশে ছিল। অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে তারা এসেছিল। বাংলাদেশের এমন পরিস্থিতে সব সময় ইংল্যান্ড আমাদের পাশে ছিল। এখনো আমি আশা করছি ওরা থাকবে আমাদের সঙ্গে।’

মাশরাফি আরো বলেন, ‘এটা তো শুধু একটা খেলাই না। এর মধ্যে অনেক কিছু জড়িয়ে আছে। আমি মনে করি এই ধরনের পরিস্থিতিতে ইংল্যান্ড সব সময় আমাদের পক্ষে ছিল। অন্য দেশও ছিল। আগের দুইবার তারা এখানে এসেছে। অবশ্যই আমরা এজন্যই চাচ্ছি, তারা এখানে আসবে আমাদের সঙ্গে খেলবে। আমি যতটুকু জেনেছি আমাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা সর্বোচ্চ অবস্থায় থাকবে। প্রয়োজনে সেটা আরো বাড়ানো হবে। সেই সুযোগ আমাদের ক্রিকেট বোর্ডের আছে। বড় বড় টুর্নামেন্টে এই নিরাপত্তা আমরা দিয়ে এসেছি। আমার বিশ্বাস, আমরা যথেষ্ট ভালো এই পরিস্থিতিতে।’

উল্লেখ্য, ইংল্যান্ডের ওয়ানডে দল প্রথম বাংলাদেশ সফর করবে, তাদের ৩০ সেপ্টেম্বর ঢাকায় পৌঁছানোর কথা রয়েছে। তিনটি ওয়ানডের পর হবে দুটি টেস্ট।