আফসানা খুনীদের বিচারের দাবিতে ২২ আগস্ট স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় অভিমুখে পদযাত্রা

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিঃ আজ দুপুর ১২টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলনে আফসানা ফেরদৌসের হত্যাকান্ডের ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার অপচেষ্টা তুলে ধরে পরবর্তী আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন। সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন লাকী আক্তার এবং লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সাধারণ সম্পাদক জিলানী শুভ।
লিখিত বক্তব্যে বলেন, আফসানা ফেরদৌস সাময়িক নিখোঁজ থাকার পর যে দুইটি অজ্ঞাত পরিচয় নম্বর থেকে ফোন করে আফসানার লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ এবং আল-হেলাল হাসপাতাল থেকে নেয়ার জন্য বলা হয় তা উল্লেখ করা হয়। গতকাল (১৭ আগস্ট) তেজগাঁও কলেজের ছাত্রলীগ কর্মীরা আফসানা হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশে আসার পূর্বে তেজগাঁও কলেজের ছাত্র ইউনিয়ন নেতাকর্মীদেরকে মারধর করে। ন্যক্কারজনক হামলায় গুরুতর আহত হয় ছাত্র ইউনিয়ন তেজগাঁও কলেজ সংসদের সাধারণ সম্পাদক অন্তু চন্দ্র নাথ, সভাপতি শামীম আহমেদসহ আরো ৪ নেতা-কর্মী। আফসানার পরিবার-পরিজনকে মোবাইলে হুমকি প্রদান করা হচ্ছে। হাবিবুর রহমান রবিনের চাচাতো ভাই পরিচয়ে (দিপু/রবিন) বিভিন্ন নামে আফসানার পরিবারকে ফোন করে আপোস করতে বলা হচ্ছে বলে পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি করেছেন আফসানার ছোট ভাই ফজলে রাব্বী।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয় আফসানা হত্যাকারীদের বিচার চাইলে ছাত্রলীগের সমস্যা কোথায়? ছাত্রলীগ নামধারী সন্ত্রাসীরা আফসানার হত্যাকারীদের যারা বিচার চাইছে, তাদের হামলা-হুমকি প্রদানের মাধ্যমে খুনীদেরকে রক্ষার চেষ্টা করছে।
বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন তার সহযোদ্ধা হারানোর শোককে শক্তিতে পরিণত করে আগামী দিনে রক্ত দিয়ে হলেও আফসানা ফেরদৌসের হত্যাকারীকে গ্রেফতার ও সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে বাধ্য করবে রাষ্ট্রযন্ত্রকে। আমরা আর কোনও তনু, মিতু ও আফসানাকে বিচারহীনতার সংস্কৃতির শিকার হয়ে আমাদের মাঝে থেকে হারাতে দেব না। প্রয়োজনে ন্যায়-বিচার আদায়ের স্বার্থে ছাত্র ইউনিয়নের সহযোদ্ধারা জীবন দিতেও প্রস্তুত। ইতিহাস সাক্ষ্য দেয় বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন জানে মৃত্যুকে কিভাবে মহিমান্বিত করতে হয়।

সংবাদ সম্মেলন থেকে ৩টি দাবি তুলে ধরে যে কর্মসূচি ঘোষণা করেন আগামীকাল ১৯ আগস্ট সমগ্র দেশে আফসানার হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করার দাবিতে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হবে। আগামী ২২ আগস্ট একই দাবিতে ঢাকায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় বরাবর বিক্ষুব্ধ পদযাত্রা কর্মসূচি ও স্মারকলিপি পেশ, একই সাথে সমগ্রদেশে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ঘেরাও-এর কর্মসূচি পালিত হবে।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন তেজগাঁও কলেজ সংসদ সভাপতি শামীম আহমেদ, কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের সভাপতি লিটন নন্দী, ঢা.বি. সংসদের সাধারণ সম্পাদক ও সহ-সাধারণ সম্পাদক তুহিন কান্তি দাস, কেন্দ্রীয় অর্থ সম্পাদক ও ঢা.বি. সংসদ সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ফয়েজুল্লাহ, কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সংষদ সহ-সভাপতি জ্যোতির্ময় চক্রবর্তী, কেন্দ্রীয় সমাজ কল্যাণ সম্পাদক ও ঢাকা জেলা সংসদ সাধারণ সম্পাদক কাজী রিতা, ঢাকা মহানগর সংসদ সহ-সভাপতি দীপক শীল সহ বিভিন্ন সংসদের নেতা-কর্মীবৃন্দ।