আফগানিস্তানে টেলিভিশন ভবনে আত্মঘাতী হামলায় নিহত ১০

28

যুগবার্তা ডেস্ক: আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় জালালাবাদ শহরে রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন স্টেশনে আত্মঘাতী হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে এক পুলিশ কর্মকর্তা ও চার হামলাকারীসহ অন্তত ১০ ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এছাড়া আহত হয়েছেন কমপক্ষে ১৯ জন। আফগান কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা।
পুলিশের বরাত দিয়ে আল-জাজিরার প্রতিনিধি জন হেনড্রেন জানান, এই হামলায় টেলিভিশন স্টেশনের চারজন কর্মকর্তা, দুই পুলিশ সদস্য এবং চার হামলাকারী নিহত হন।
হামলায় পুলিশের গুলিতে পাঁচজনের মধ্যে চারজন হামলাকারী নিহত হয়, যাদের মধ্যে একজন আত্মঘাতী বোমা হামলাকারীও ছিল।
উল্লাখ্য, জালালাবাদে আইএস এবং তালেবান দুই জঙ্গি গোষ্ঠীই সক্রিয় থাকলেও তাদের কারও তরফ থেকে ওই হামলার দায় স্বীকারের খবর পাওয়া যায়নি। আফগান কর্তৃপক্ষও হামলার জন্য এখনও কাউকে দায়ী করেনি।
প্রাদেশিক গভর্নরের মুখপাত্র আতাউল্লাহ খুঝিয়ানিকে উদ্ধৃত করে রয়টার্স জানিয়েছে, বুধবার কয়েকজন বন্দুকধারী টেলিভিশন স্টেশনে প্রবেশ করেছে। তারা কারা এবং তাদের লক্ষ্যস্থল কী, এসব পরিষ্কার ছিল না।
টেলিভিশনের নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত বাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধের পর হামলাকারীরা ভবনটিতে প্রবেশ করে। দুই হামলাকারী আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটানোর পর অপর তিন হামলাকারী নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে গোলাগুলি অব্যাহত রাখে। পরে পুলিশের গুলিতে তৃতীয় এবং চর্তুথ হামলাকারীও নিহত হয়, তবে আরেক হামলাকারী পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।
টেলিভিশন ভবনটির অবস্থান প্রাদেশিক গভর্নরের কম্পাউন্ডের কাছেই। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, হামলার সময় আফগানিস্তান ন্যাশনাল ব্রডকাস্টারের (আরটিএ) ওই ভবনটির আশপাশ থেকে ব্যাপক গোলাগুলির শব্দ শোনা গেছে।
উল্লেখ্য, জালালাবাদ আফগানিস্তানের নানগারহার প্রদেশের রাজধানী। পাকিস্তানের সীমান্তবর্তী এই প্রদেশটিতে নিজেদের শক্ত অবস্থান প্রতিষ্ঠা করেছে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)। তবে প্রদেশটিতে তালেবানের অবস্থানও বেশ শক্তিশালী। সম্প্রতি নানগারহারের আচিন জেলায় আইএসের পার্বত্য ঘাঁটিতে সবচেয়ে বড় অপারমাণবিক বোমা নিক্ষেপ করে যুক্তরাষ্ট্র। আফগান কর্তৃপক্ষের দাবি, ওই হামলায় জঙ্গিগোষ্ঠীটির অন্তত ৯৪ সদস্য নিহত হয়।-আমাদের সময়.কম