আন্দোলনের অংশ হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ–বাম জোট

যুগবার্তা ডেস্কঃ বাম গণতান্ত্রিক জোট আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়েছে, অবাধ, নিরপেক্ষ, অংশগ্রহণমূলক, অর্থবহ, গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলনের এক পর্যায়ে অনুষ্ঠিত সংলাপের শেষে প্রধানমন্ত্রীর মতামত জানানোর পর সংলাপের পরিসমাপ্তি ঘটবে ও নির্বাচনের তারিখ ঘোষিত হবে বলে আশা করেছিলাম। এটি না করে, সংবাদ সম্মেলন স্থগিত ও দ্রুত নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা পুরো সংলাপ প্রক্রিয়াকে বিনষ্ট করে ফেললো। অন্য দাবি-দাওয়াগুলি গৌণ হয়ে রাজনীতি এখন তফসিলাকেন্দ্রিক হয়ে পড়েছে। আমরা বারবার বলেছি সরকারের অগণতান্ত্রিক ও রাজনৈতিক কূটকৌশল দেশের গণতান্ত্রিক বিকাশের জন্য মঙ্গলজনক নয়। আমরা যে যুক্তিসংগত দাবি উত্থাপন করেছি তা কার্যকর করা ছাড়া অবাধ-গ্রহণযোগ্য গণতান্ত্রিক নির্বাচন সম্ভব নয়।

সংবাদ সম্মেলনে জানান হয়, অবাধ, নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য বাম জোটসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের উত্থাপিত দাবিসমূহ বিষয়ে সমাধান না করে নির্বাচন কমিশনের এ ধরনের ঘোষণা ‘এক তরফা নির্বাচনের জন্য সরকার ফাঁদ পেতেছে’ বলে জনমনে ধারণার সৃষ্টি হয়েছে। আমরা এর বিরুদ্ধেও বক্তব্য তুলে ধরে নির্বাচন কমিশন ও সরকারের দায়িত্বশীল আচরণ ও ভোট নিয়ে শংকা দূর করার দাবিতে রাজপথে আন্দোলন অব্যাহত রেখেছি।
একইসঙ্গে ‘এক তরফা নির্বাচন অনুষ্ঠানের ফাঁদে পা না দিয়ে’ আন্দোলনের অংশ হিসেবে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি।
আজ সকাল সাড়ে ১১ টায় রাজধানীর কমরেড মণি সিংহ রোডস্থ মুক্তিভবনের ˆমৈত্রী মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয় ও সিপিবি’র সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম।

সংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর দেন সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক।

এ সময় উপস্থিত চিলেন বাসদের বজলুর রশীদ ফিরোজ, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের আব্দুস সাত্তার, বাসদ (মার্কসবাদী)’র মানস নন্দী, গণসংহতি আন্দোলনের জুলহাসনাইন বাবু, সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের হামিদুল হক প্রমুখ ।