আজ শুরু হল সুন্দরবন জনযাত্রা

246

যুগবার্তা ডেস্কঃ সুন্দরবন রক্ষায় রামপাল ও ওরিয়ন বিদ্যুৎ প্রকল্প বাতিল এবং জাতীয় কমিটি ঘোষিত সাত দফা বাস্তবায়নের দাবিতে ঢাকা সহ সারা দেশ থেকে সুন্দরবন অভিমুখী জনযাত্রা বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা থেকে উদ্বোধনী সমাবেশের মধ্যে দিয়ে যাত্রা শুরু করেছে। যাত্রা শুরুর আগে সকাল ১০টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ ও প্রতিবাদি গানের আয়োজন করা হয়। শিল্পী কফিল আহমেদ ও গানের দল মাভৈ: সুন্দরবন নিয়ে প্রতিবাদী গান পরিবেশন করেন।
সুন্দরবন অভিমুখী জনযাত্রার উদ্বোধন ঘোষণা করেন জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক প্রকৌশলী শেখ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ।
উদ্বোধনী সমাবেশে জনযাত্রার উদ্দেশ্য ও প্রেক্ষাপট ব্যাখ্যা করে জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, “সরকার জেনেশুনে সুন্দরবনধ্বংসী রামাপাল ও ওরিয়ন বিুদ্যৎ কেন্দ্রের মাধ্যমে জনগণের মুখে বিষ ঢেলে দিচ্ছে। সুন্দরবন বিশ্বের বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বনহিসেবে পরিবেশ শোধনের অসাধারণ প্রাকৃতিক ব্যবস্থা। ১০ লাখ মানুষের জীবন জীবিকা এবং উপকূলীয় অঞ্চলের ৪ কোটি মানুষকে রক্ষার প্রাকৃতিক আশ্রয়। সুন্দরবন রক্ষা তাই বাংলাদেশের মানুষের বাঁচা মরার লড়াই।”
আনু মুহাম্মদ বলেন, “সরকার বাংলাদেশ ও ভারতের মুনাফাখোরদের কাছে হাত পা বন্ধক দিয়েছে বলেই দেশ ও জনগণের জন্য এরকম সর্বনাশা প্রকল্প নিয়ে অগ্রসর হচ্ছে। বাংলাদেশকে অরক্ষিত করার এই প্রকল্পের বিরুদ্ধে জাতীয় ঐক্য ও জাগনরণ সৃষ্টির জন্য এই জনযাত্রা।”
জনযাত্রায় অংশ নেয়া রাজনৈতিক সংগঠন গুলোর মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশের ওয়ার্কারস পার্টি, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি), বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ), গণসংহতি আন্দোলন, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল ( মার্কসবাদি), , বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি, ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগ (ইউসিবিএল), গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টি, জাতীয় গণফ্রণ্ট, গণতান্ত্রিক গণমঞ্চ, সমাজতান্ত্রিক মজদুর পার্টি, বাসদ (মাহবুব), গার্মেন্টস শ্রমিক ঐক্য ফোরাম, শ্রমজীবী সংঘ। এছাড়া বিভিন্ন ছাত্র গণ সংগঠন যেমন বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রী, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রণ্ট, বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রী, বাংলাদেশ যুব মৈত্রীসহ অনেকে এই সমাবেশে অংশ নেয়।
এছাড়া জনযাত্রার প্রতি সংহতি জানিয়ে জনযাত্রায় অংশ নিচ্ছে বিবর্তন গানের দল, সমগীত সাংস্কৃতিক প্রাঙ্গন, সাংস্কৃতিক ইউনিয়ন, উদীচী, চারণ, শিশু সংগঠন খেলা ঘর, পরিবেশ সংগঠন প্রতিবেশ আন্দোলন ইত্যাদি।
জনযাত্রার প্রতি সংহতি জানিয়ে উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক আহমেদ কামাল, ডা. আবু সাঈদ, জ্বালানী বিশেষজ্ঞ বিডি রহমতুল্লাহ, অধ্যাপক তানজিম উদ্দীন খান, ব্যারিষ্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া, গবেষক মহা মির্জা।
রাজনৈতিক সংগঠনের শীর্ষ নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সিপিবির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, ওয়ার্কার্স পার্টির পলিট ব্যুরোর সদস্য ও সাবেক সাধারন সম্পাদক বিমল বিশ্বাস ,বাসদের সভাপতি কমরেড খালেকুজ্জামান, জাতীয় গণফ্রন্টের সমন্বয়ক টিপু বিশ্বাস, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, বাসদ মার্কসবাদীর কেন্দ্রীয় নেতা শুভ্রাংশু চক্রবর্তী, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি সাইফুল হক, ইউসিবিএল এর সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন নান্নু, গণমুক্তি ইউনিয়নের নাসিরুদ্দীন নসু, সমাজতান্ত্রিক মজদুর পার্টির শামসুল আলম, বাসদ(মাহবুব) এর ইয়াসিন মিয়া, গণতান্ত্রিক গণমঞ্চ এর সমন্বয়ক মাসুদ খান, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির শহীদুল ইসলাম সবুজ প্রমুখ ।
জনযাত্রা এরপর সাভার, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় হয়ে মানিকগঞ্জে পৌঁছার পর সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ইকবাল হোসেন কচির পরিচালনায় সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় কমিটির মানিকগঞ্জ শাখার আহবায়ক অ্যাডভোকেট মিজানুর রহমান হযরত। সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন প্রকৌশলী বিডি রহমতুল্লাহ, জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ, রুহিন হোসেন প্রিন্স, বজলুর রশীদ ফিরোজ, নজরুল ইসলাম, ফিরোজ আহমেদ, জাহাঙ্গির আলম ফজলু, আকবর খান। সমাবেশ শেষে জনযাত্রা মিছিল সহকারে মানিকগঞ্জ শহর প্রদক্ষিণ করে। মানিকগঞ্জে দুপুরের যাত্রাবিরতির পর জনযাত্রা আজ বিকালে ফরিদপুর পৌছে প্রথম জনসভা হবে। ফরিদপুরে রাত্রী যাপনের পর শুক্রবার জনযাত্রার বহর যশোরের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করবে।
জনযাত্রার সাথে ১০টি বাস ও ৭টি মাইক্রোবাসের বহর যাচ্ছে। বেশ কয়েকটি পিকআপ ভ্যান প্রচারণা, লিফলেট বিতরণ ও মাইকিং করছে। বহরের সামনে থাকছে সাংস্কৃতিক কর্মীদের পিকআপ-এ তারা পথে পথে গান পরিবেশন করছেন, গানে গানে ছড়িয়ে দিচ্ছেন সুন্দরবন রক্ষার আহ্বান। এছাড়াও পথে পথে জেলায় জেলায় যুক্ত হবেন আরো অনেকে।
যেসব পয়েন্ট দিয়ে জনযাত্রা যাবে সেসব জেলা সহ সারা দেশে পোস্টার, লিফলেট, তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির ছাপানো পুস্তিকা মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়ার কাজ চলছে।
জনযাত্রার রোডম্যাপঃ
১০ মার্চ: সাভার, মানিকগঞ্জ, ফরিদপুর। ১১ মার্চ: মাগুরা, ঝিনাইদাহ, যশোর। ১২ মার্চ নওয়াপাড়া, দৌলতপুর, খুলনা ও ১৩ মার্চ রপসা, বাগেরহাট, কাটাখালীতে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। পথে পথে গান, নাটক, প্রদর্শনী।