আজ বিএনপি ৩৭ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী

80

যুগবার্তা ডেস্কঃ ’ব্যক্তির চেয়ে দল বড়, দলের চেয়ে দেশ বড় ’ ১৯৭৮ সালে ১ সেপ্টেম্বর জেনারেল জিয়াউর রহমান জাতীয়তাবাদী দল ( বিএনপি) গঠণ করেন। অবশ্য ১৯৭৫ সালে ৭ নভেম্বর ক্ষমতা দখল করার পর ১৯ দফা কর্মসূচী ঘোষনা করে জাতায়ীতাবাদী গনতান্ত্রিক দল (জাগদল) গঠন করেছিলেন। ৩৭ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে এসে দলটি কঠিন সংকটের মুখোমুখি। অবশ্য দলটির একাদিক সিনিয়র নেতা সংকট কাটিয়ে ওঠার আশা ব্যক্ত করেছেন।
১৯৭৫ সালে ১৫ আগষ্ট স্বপরিবারে বঙ্গবন্ধু হত্যার পরে পাল্টাপাল্টি সেনা অভ’ত্থানে জেনারেল জিয়াউর রহমান ক্ষমতা দখল করেন। নাম দেখানো ’হ্যা-না’ ভোট দিয়ে রাষ্ট্রপতি দ্বায়িত্ব নেন। দল গঠনের ৩ বছরের মাথায় ১৯৮১ সালের ৩০ মে চট্রগ্রামে সেনাবাহিনীর একটি গ্রুপের হামলায় নিহত হন। ১৯৮২ সালে ২৪ মার্চ জেনারেল এরশাদ সেনা অভ’ত্থানের মাধ্যমে দ্বায়িত্বে থাকা বিচারপতি আব্দুস সাত্তারকে সরিয়ে ক্ষমতা দখল করেন। ১৯৮৩ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি বেগম খালেদা জিয়া দলের হাল ধরেন। দীর্ঘ ৩৪ বছর দলের দায়িত্ব পালন করছেন। এরশাদ বিরোধী আন্দোলনের সফলতার পরে ১৯৯১ সালে নির্বাচনে দেশে প্রথম প্রধানমন্ত্রী হল খালেদা জিয়া। ২০০১ সালে পুনরায় তার নেতৃত্বে আবার বিএনপি ক্ষমতায় আসেন। তখন জামাতের সাথে জোট গঠন, জঙ্গীবাদের উত্থান তারেক জিয়ার নেতৃত্বে ’হাওয়া ভবন’ তৈরী করে সরকার নিয়ন্ত্রন করা ও ব্যাপক লুটপটের কারেনে বিতর্কে জড়িয়ে পড়ে। দলের ভীতরে বাহিরে বিতর্কে জড়ায়। ক্ষমতার মেয়াদ শেষ হলেও এখন পযর্ন্ত আর ক্ষমতায় আসতে পারেনি। ২০০৬ সালে সেনা সমর্থিত সরকারের সময় দল প্রতিষ্ঠাকালীন বড় একটি অংশ সংস্কারের চেষ্টা করে।
২০১৩ সালে ২৯ ডিসেম্বর ’মার্চ ফর ডেমোক্রেসি’ কর্মসূচী ঘোষণা করেন খালেদা জিয়া। সারাদেশ থেকে তৃণমুল কর্মীরা ঢাকায় আসলেও শীর্ষ নেতারা ফোন বন্ধ করে আত্মগোপনে চলে যায়। ৫ জানুয়ারি নির্বচনে অংশ না নিয়ে প্রতিহতের ঘোষণা দিলেও নেতারা মাঠে নামেননি। আওয়ামী লীগ, ওয়ার্কার্স পার্টি,জাসদের নেতৃত্বাধীন জোট পুনরায় ক্ষমতায় আসেন। বিরোধীদলের আসনে বসেন জাতীয় পার্টি। সরকার ও বিরোধীদল উভয় স্থানে বিএনপি তার মর্যাদা হারান। চলতি বছর ৫ জানুয়ারি ক্ষমতাসীন সরকারের বর্ষপূর্তিকে কালো দিবস হিসেবে ঘোষণা দেন। ৩ জানুয়ারি রাতেই গুলশানের কার্যালয় অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। একটানা ৯২ দিন অবরুদ্ধ থাকলেও নেতারা জাননি। অঞ্জাত স্থান থেকে দলের পক্ষে শুধু বিবৃতি প্রদান ছাড়া আরকিছুই করতে পারেনি নেতারা। ওখান থেকে আদালত হয়ে ঘরে ফিরে যান খালেদা জিয়া। এ অবস্থায় দল কঠিন বিপর্যয় পড়েন।
গত ৯ আগষ্ট দল পুর্ণগঠনের উদ্দ্যোগ নিয়ে ৭৫ টি সাংগঠনিক জেলায় চিঠি দেয়। ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সময় বেধে দিলেও কোন সুফল আসেনি। ২০০৯ সাল থেকে দলটির কাউন্সিল হয়নি। দলের মহাসচীব খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন ২০১১ সালের ১৬ মার্চ মারা গেলে ভারপ্রাপ্ত মহাসচীব হন মির্জা ফকরুল ইসলাম। তিনিও এখন চিকিৎসার জন্য বিদেশে রয়েছেন। এ অবস্থায় পালিত হচ্ছে ৩৭ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী। আজ বিভিন্ন কর্মসূচী পালণ করছেন।