আজ পহেলা অগ্রহায়ণ, নবান্নের উৎসব

কিরনঃ গ্রামবাংলার ঘরে ঘরে এখন নতুন ধানের ঘ্রাণ আর নবান্নের বার্ত। আজ পহেলা অগ্রায়হন, নবান্ন উৎসব।
ছয় ঋতুর বৈচিত্র্যময় বাংলার প্রকৃতি। প্রতিটি ঋতুই নিজ নিজ সাজে সজ্জিত করে তোলে প্রকৃতিকে। গ্রীষ্মের তাপদাহে রুদ্ররূপ, বর্ষায় বিরহিনী, শরতে স্নিগ্ধময়ী আর হেমন্তে কুয়াশার অবগুণ্ঠনে ঢাকা হৈমন্তিকা বয়ে নিয়ে আসে এক শুভবার্তা। নবান্ন’ শব্দটির আভিধানিক অর্থ ‘নতুন অন্ন’। এর অন্য অর্থ ‘দুধ, গুড়, নারিকেল ও কলা প্রভৃতির সঙ্গে নতুন আতপ চাল অগ্রহায়ণ মাসের শুরু মানেই পিঠা-পুলির গন্ধে মাতোয়ারা । গ্রামীণ জীবনে আমন ধান ঘরে তোলার সঙ্গে সঙ্গেই শুরু হয় উৎসবের ধূম। বাড়ি বাড়ি তৈরি হয় শত রকমের নবান্নের পিঠা। আত্মীয়স্বজনের আগমনে মুখরিত হয় পুরো বাড়ি।
নবান্ন উৎসব উপলক্ষে সারাদেশে আয়োজন করা হয়েছে নানা উৎসবের। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি, চারুকলা ইনস্টিটিউটের বকুলতলা ও ধানমন্ডির রবীন্দ্র সরোবরে চলছে নবান্ন উৎসব ১৪২৩। এছাড়া জাতীয় যাদুঘর,শিল্পকলা ,শিশুএকাডেমীসহ সারা দেশের জেলায় জেলায় থাকছে এর নানা আয়োজন। উৎসবে নাচ, গান, আবৃত্তি, নবান্ন শোভাযাত্রা, আদিবাসী পরিবেশনাসহ বিভিন্ন পরিবেশনা থাকবে। থাকবে ঢাক-ঢোলের বাদন আর মুড়ি-মুড়কি-বাতাসা ও পিঠার আয়োজন। সবার জন্য উন্মুক্ত নবান্ন উৎসব ১৪২৩।