ভ্যাট বিরোধী আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে ছাত্র মৈত্রীর মিছিল

60

যুগবার্তা ডেস্কঃ শিক্ষার ব্যয় নির্বাহের দায়িত্ব রাষ্ট্রের হওয়া সত্ত্বেও শিক্ষাকে আজ পণ্যে রূপান্তর করা হয়েছে। বেসরকারি মেডিকেল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের উপর শতকরা ৭.৫ ভাগ কর আরোপ করে সরকার শিক্ষাব্যবস্থাকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। এই করের বোঝা বহন করতে না পারায় অংখ্য শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবন আজ হুমকির মুখে পড়েছে। ভ্যাট প্রত্যাহারের ন্যায্য দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর পুলিশের বর্বরোচিত হামলা ও গুলি বর্ষণের প্রতিবাদে বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর মিছিল পরবর্তী সমাবেশে বক্তারা একথা বলেন। আজ (১০ সেপ্টম্বর) সকলে মিছিলটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যানটিন থেকে শুরু হয়ে টিএসসি প্রদক্ষিণ করে কলা ভবনের সামনে এসে শেষ হয়। কলা ভবনের সামনে অনুষ্ঠিত মিছিল পরবর্তী সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর কেন্দ্রীয় সভাপতি আবুল কালাম আজাদ। সভাপতির বক্তব্যে সংগঠনের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ বলেন, “শিক্ষার উপর ভ্যাট আরোপ করে অর্থ মন্ত্রী সংবিধান লঙ্ঘণ করেছেন। আমাদের সংবিধানে শিক্ষার ব্যয়ভার বহন করায় দাযিত্ব রাষ্ট্রর উপর অর্পণ করা হয়েছে। অথচ সংবিধানের চেতনাকে ভুলন্ঠিত করে শিক্ষার উপর ভ্যাট আরোপ করেছে সরকার। অবিলম্বে ভ্যাট প্রত্যাহার না করা হলে ছাত্র সমাজকে সাথে নিয়ে আরো কঠোর কর্মসূচি দেওয়ার ঘোষণা দেন তিনি। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক অর্ণব দেবনাথের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তারা অবিলম্বে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপর আরোপকৃত ভ্যাট প্রত্যাহার ও আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপর পুলিশি হামলার বিচার দাবি করেন। সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে ছাত্র মৈত্রীর কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি মুনতাহা বিনতে নূর রোমিও, মানোয়ার হোসেন, সহ সাধারণ সম্পাদক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি মাসুদ মাযহার, সহ সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার কবির রাসেল, সাংগঠনিক সম্পাদক অতুলন দাস আলো, দপ্তর সম্পাদক নিলয় রায় সহ বিভিন্ন ইউনিটের নেতা কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।