রাজনৈতিক নেতারা কে কোথায় ঈদ করবেন

3

বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের বেশিরভাগ সিনিয়র নেতা নিজ নিজ এলাকায় ঈদ করবেন।

এসব দলের বর্তমান ও সাবেক এমপি-মন্ত্রীদেরও অনেকে এলাকায় ঈদ করছেন। আবার যারা ঢাকায় ঈদ করবেন তারা নিজ এলাকায় গিয়ে নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষের সঙ্গে দেখা করবেন।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঈদের দিন সকাল ১০টায় গণভবনে আমন্ত্রিত অতিথিদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন। বেলা ১১টায় বিচারপতি, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, তিন বাহিনীর প্রধান, বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক, সিনিয়র সচিব, সচিব ও সমমর্যাদার বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন প্রধানমন্ত্রী।

আর কারা হেফাজতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে এবারও ঈদ কাটবে বিএনপির চেয়ারপারসন সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার।

ঈদের দিন পরিবারের সদস্যরা খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে পারেন। দলীয় চেয়ারপারসন কারাগারে থাকায় এবারও ঈদের দিন ঢাকায় রাখা হয়নি কোনো দলীয় কর্মসূচি।

আ’লীগ ও ১৪ দল : আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকায় ঈদ উদ্যাপন করবেন। এ ছাড়া দলটির কেন্দ্রীয় নেতাদের বেশিরভাগই ঈদ করতে যাচ্ছেন নিজ নিজ এলাকায়। যারা ঢাকায় ঈদ করছেন তারাও আগে বা পরে সময় করে দেখা করবেন নিজ নিজ এলাকার মানুষের সঙ্গে।

কেউ কেউ ঢাকায় ঈদ করে বিকালে যাবেন নিজ এলাকায়। তবে শোকাবহ আগস্ট ও ডেঙ্গু প্রতিরোধ কর্মসূচির কারণে ঈদে এলাকায় খুব বেশি সময় দিতে পারবেন না তারা। এ কারণে বেশিরভাগ নেতাই ঢাকায় ফিরবেন ঈদের পরদিনই।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ঈদ উদ্যাপন করবেন নিজ এলাকা নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের মানুষের সঙ্গে। আজ তার এলাকায় যাওয়ার কথা রয়েছে।

এদিকে প্রতিবারের মতো এবারও নিজ এলাকার মানুষের সঙ্গে ঈদ করবেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য আমির হোসেন আমু। উপদেষ্টা পরিষদের আরেক সদস্য তোফায়েল আহমেদও তার নির্বাচনী এলাকা ভোলায় ঈদ করছেন।

প্রেসিডিয়াম সদস্যদের মধ্যে মোহাম্মদ নাসিম ঈদ করবেন নিজ নির্বাচনী এলাকা সিরাজগঞ্জের কাজীপুরের মানুষের সঙ্গে। প্রেসিডিয়াম সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাকও টাঙ্গাইলে নিজ এলাকার মানুষের সঙ্গে ঈদ করবেন। আর কাজী জাফরউল্লাহ ঈদে ঢাকায় থাকবেন। তবে ঈদের পর এলাকায় যাওয়ার কথা রয়েছে তার।

প্রেসিডিয়ামের আরেক সদস্য লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খানও ঢাকায় ঈদ করবেন। ক্যান্টনমেন্ট মসজিদে তিনি ঈদের নামাজ আদায় করবেন।

এ ছাড়া প্রেসিডিয়ামের অন্যদের মধ্যে সাহারা খাতুন ও পীযুষ কান্তি ভট্টাচার্যও ঢাকায় ঈদ করবেন। ঈদের দিন গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন তারা।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকদের মধ্যে মাহবুবউল আলম হানিফ ঈদ করবেন নিজ এলাকা কুষ্টিয়ায়। এরই মধ্যে তিনি কুষ্টিয়ায় চলে গেছেন।

আরেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির স্বামী অসুস্থ। তিনি রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

বাকি দু’জনের মধ্যে জাহাঙ্গীর কবির নানক ঢাকায় ঈদ করবেন। আর আবদুর রহমান ঈদ করতে যাচ্ছেন নিজ এলাকায়। ঈদের পরদিন তার ঢাকায় ফেরার কথা রয়েছে।

সাংগঠনিক সম্পাদকের মধ্যে আহমদ হোসেন নিজ এলাকা নেত্রকোনায়, নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী দিনাজপুরে, হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন জয়পুরহাটে, পানিসম্পদ উপ-মন্ত্রী এনামুল হক শামীম শরীয়তপুরের নড়িয়ায়, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান নওফেল নিজ এলাকা চট্টগ্রামে ঈদ করবেন।

এ ছাড়া আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ঈদ করবেন নিজ এলাকা চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায়। আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক এবং গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম পবিত্র হজ পালনের জন্য সৌদি আরব রয়েছেন।

সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল ঈদ করবেন নিজ এলাকা নেত্রকোনার কেন্দুয়ার মানুষের সঙ্গে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সবুর ঈদ করবেন ঢাকায়। তবে ঈদের দিন গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে বিকালেই নিজ এলাকা কুমিল্লায় যাবেন তিনি।

আওয়ামী লীগের কৃষিবিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলীও এবার ঢাকায় ঈদ উদ্যাপন করবেন। এ ছাড়া উপ-দফতর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়–য়াও ঈদ করছেন ঢাকায়।

তবে ঈদের পর বিপ্লব বড়ুয়া চট্টগ্রামে যাবেন বলে জানিয়েছেন। উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন ঈদ করছেন নিজ নির্বাচনী এলাকা চট্টগ্রামে।

১৪ দলের শরিক জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু ঈদ করবেন নিজ নির্বাচনী এলাকা কুষ্টিয়ায়। ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন ঢাকায় ঈদ করবেন এবং জাতীয় ঈদগাহ মাঠে নামাজ পড়বেন।

জাতীয় পার্টি : জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের ঈদে ঢাকায় থাকবেন। বিরোধীদলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ ঈদ করবেন ঢাকায়। দলটির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা ঈদ করবেন রংপুরে।

এ ছাড়াও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম ঢাকায় ঈদ করবেন। দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ও জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু চট্টগ্রামে ঈদ করবেন।

প্রেসিডিয়াম সদস্য এসএম ফয়সল চিশতী, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, কাজী ফিরোজ রশীদ ঈদে ঢাকায় থাকবেন।

বিএনপি, ২০ দল : দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কারাগারে থাকায় বিএনপির নেতাকর্মীদের কাছে এবারের ঈদও নিরানন্দের। ঈদের দিন ঢাকায় রাখা হয়নি কোনো কর্মসূচি।

প্রতিবছর খালেদা জিয়া রাজনীতিবিদ, দেশের সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, বিদেশি কূটনীতিকসহ সর্বসাধারণের সঙ্গে যে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করতেন, গতবারের মতো এবারও হচ্ছে না সে আয়োজন।

জানা গেছে, ঈদের দিন দলের সিনিয়র নেতারা প্রথমে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রয়াত জিয়াউর রহমানের মাজার জিয়ারত করবেন। সেখান থেকে বনানীতে খালেদা জিয়ার কনিষ্ঠপুত্র প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর কবর জিয়ারত করবেন নেতারা।

পরে অনুমতি পেলে বিএসএমএমইউ হাসপাতালে খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করার কথা রয়েছে বিএনপির সিনিয়র নেতাদের।

এ ছাড়াও প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান সিথি ও নাতনি জাহিয়া রহমানসহ স্বজনরাও বিএসএমএমইউ হাসপাতালে খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন বলে জানা গেছে।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী যুগান্তরকে বলেন, প্রিয় নেত্রী খালেদা জিয়া কারাগারে থাকায় আমাদের এবারের ঈদও নিরানন্দের। কেন্দ্র থেকে তৃণমূল- কারও মনে কোনো আনন্দ নেই। ঈদের দিন ঢাকায় এবারও দলের কোনো কর্মসূচি নেই।

ঈদে ডেঙ্গু প্রতিরোধে জনসচেতনতামূলক কাজের পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত তৃণমূল নেতাকর্মী-সমর্থকদের পাশে দাঁড়াতে দলের জেলা ও মহানগরের নেতাদের বিশেষ করে একাদশ সংসদ নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীকে যারা ভোট করেছেন তাদের কেন্দ্র থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

গত বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে কারাগারে বন্দি রয়েছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। চিকিৎসার জন্য তাকে কারাগার থেকে বিএসএমএমইউ হাসপাতালে আনা হয়। বর্তমানে ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি।

এবার কারা হেফাজতে বিএসএমএমইউ হাসপাতালেই ঈদ কাটবে খালেদা জিয়ার। গত ঈদও কেটেছে এ হাসপাতালে।

এ ছাড়া বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান বিগত কয়েক বছরের ন্যায় এবারও স্ত্রী ও একমাত্র মেয়েকে নিয়ে লন্ডনে ঈদ উদ্যাপন করবেন। তবে তারেক রহমানের প্রয়াত ছোট ভাই আরাফাত রহমানের স্ত্রী ও মেয়ে এবার ঢাকায় ঈদ করছেন।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শনিবার নিজ এলাকা ঠাকুরগাঁওয়ে গেছেন। তিনি সেখানেই এবার ঈদ করবেন।

ঈদের দিন সকালে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মাজার জিয়ারত শেষে নিজ এলাকা কুমিল্লায় যাবেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নরসিংদী যাবেন ড. আবদুল মঈন খান ও সিরাজগঞ্জ যাবেন ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।

ঢাকায় ঈদ করবেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান ও বেগম সেলিমা রহমান।

ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ নিজ এলাকা নোয়াখালী, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী চট্টগ্রামে ঈদ করবেন।

এ ছাড়া বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যানদের মধ্যে শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, শওকত মাহমুদ, আবদুল আউয়াল মিন্টু ঢাকায় ঈদ করবেন। আবদুল্লাহ আল নোমান চট্টগ্রামে ও ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন ময়মনসিংহে ঈদ করবেন।

ঢাকার সাবেক মেয়র ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে আছেন। তিনি সেখানেই ঈদ করবেন।

দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী গত বছরের মতো এবারও নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঈদ করবেন।

যুগ্ম মহাসচিব মজিবুর রহমান সরোয়ার ও অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বরিশালে, খায়রুল কবির খোকন নরসিংদী ও হারুন-অর রশিদ চাঁপাইনবাবগঞ্জে ঈদ করবেন।

দলের সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু নিজ এলাকা নাটোরে, সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স ময়মনসিংহে এবং শামা ওবায়েদ ফরিদপুরে ঈদ করবেন।

এ ছাড়া বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য শেখ রবিউল আলম রবি ও আবু নাসের মোহাম্মদ রহমাতুল্লাহ ঢাকায় ঈদ করবেন।

কারাগারে ঈদ করবেন যারা : বিগত বছরগুলোর তুলনায় এবার কারাগারে ঈদ করা বিএনপির নেতার সংখ্যা তুলনামূলকভাবে অনেক কম। দলের ভাইস চেয়ারম্যান আবদুস সালাম পিন্টু, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীসহ তৃণমূলের অনেক নেতাকর্মী এবার কারাগারে ঈদ করবেন।

এদিকে ২০ দলের অন্যতম শরিক লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমদ ঢাকায় ও সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম নিজ নির্বাচনী এলাকা লক্ষ্মীপুরে ঈদ করবেন।

কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম ঢাকায় ঈদের নামাজ পড়ে নিজ এলাকা চট্টগ্রামে যাবেন।

এ ছাড়াও সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বিকল্প ধারা বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী ঈদ করবেন ঢাকায়। গুলশান আজাদ মসজিদে নামাজ পড়বেন তিনি।

গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন ঢাকায় থাকবেন ঈদে। জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রবও ঢাকায় থাকবেন। বিকল্প ধারা বাংলাদেশের মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নান ঈদ করবেন ঢাকায়।-যুগান্তর