দেশের আইন মানছে না গ্রামীনফোন

2

যুগবার্তা ডেস্কঃ অধিকার আদায়ের পরীক্ষিত ট্রেড ইউনিয়ন সংগঠন জেনারেল এমপ্লয়ীজ ইউনিয়ন গ্রামীনফোন আজ বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের মাওলানা মোহাম্মদ আকরাম খাঁ হলে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে দেশের আইন লঙ্ঘনের গুরুতর অভিযোগ উত্থাপন করেছে।

ইউনিয়নের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদক, যুগ্ম সম্পাদকসহ ৫ জন কর্মকর্তাকে গত ৪ জুলাই রাতে সম্পূর্ণ বেআইনীভাবে টার্মিনেশনের প্রতিবাদে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলন থেকে আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জেনারেল এমপ্লয়ীজ ইউনিয়নের সভাপতি আহমদ মঞ্জুরুদ্দৌল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বর্ষীয়ান শ্রমিকনেতা মনজুরুল আহসান খান, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সহ-সভাপতি শ্রমিকনেতা মাহাবুবুল আলম, বেসরকারি ব্যাংক এমপ্লয়ীদের সংগঠন ব্যাংকার্স ইউনিটির উপদেষ্টা আবদুল্লাহ ক্বাফী রতন, গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক জলি তালুকদার, শ্রমিকনেতা মঞ্জুর মঈন প্রমুখ।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান গ্রামীনফোন দেশের শ্রম আইনের তোয়াক্কা না করে বারবার পার পেয়ে যাচ্ছে। তারা সরকারি পাওনা পরিশোধ না করা, নিজ প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের ওপর মানসিক ও আর্থিক অত্যাচার চালানো, ভোক্তা ও স্টেক হোল্ডারদের সাথে প্রতারণাসহ নানান অপকর্মে লিপ্ত হলেও তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। ফলে দিন দিন এই বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানটি বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। সর্বশেষ তারা প্রতিষ্ঠানের ইউনিয়নের ৫ কর্মকর্তাকে বেআইনীভাবে টার্মিনেট করেছে। এই টার্মিনেশনের মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠানের অন্যান্য কর্মীদের চাকরি হারানোর ভয়ে ভীত সন্ত্রস্থ করে রেখেছে।

লিখিত বক্তব্যে আরও বলা হয়, ২০১২ সালে গ্রামীনফোনের ৫ হাজার কর্মী ছাটাই হতে হতে আজ ২ হাজার ২ শত জনে ঠেকেছে। এই অব্যাহত ছাটাই প্রক্রিয়ায় জেনারেল এমপ্লয়ীজ ইউনিয়নকে যৌক্তিক ও ন্যায়সঙ্গত বাধা বিবেচনা করেই ইউনিয়নটি ধ্বংস করতে নেতৃবৃন্দের ওপরে এই জুলুম চলছে।

সংবাদ সম্মেলনে বর্ষীয়ান শ্রমিকনেতা মনজুরুল আহসান খান বলেন, গ্রামীনফোনের মত প্রতিষ্ঠান বারবার শ্রম আইন, দেশের রাজস্ব আইনসহ ব্যবসায়ের সাধারণ নিয়ম-নীতি লঙ্ঘনের মধ্য দিয়ে অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলোকেও দেশের আইনবিরোধী ভূমিকা রাখতে উদ্বুদ্ধ করছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে ব্যবসা করতে হলে দেশের আইন-কানুন মানতে হবে এবং দেশের মানুষের প্রতি দায়িত্বশীল ভ‚মিকা পালন করতে হবে। গ্রামীনফোন এদেশকে বেওয়ারিশ বিবেচনা করে শুধু মুনাফাই লুটছে কিন্তু সামান্য ২ হাজার কর্মীর চাকুরির নিশ্চয়তার অধিকারের প্রতি সামান্য শ্রদ্ধা প্রদর্শন করছে না। গ্রামীনফোনের কর্মীদের পেশাগত অধিকার ও ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দের চাকুরি রক্ষায় যথাযথ ভূমিকা পালন করার জন্য তিনি সরকারের প্রতি দাবি জানান। অন্যথায় অপরাপর ট্রেড ইউনিয়নসমূহের সাথে ঐক্যবদ্ধভাবে গ্রামীনফোনের এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য তিনি সবার প্রতি আহবান জানান।
সংবাদ সম্মেলন থেকে দ্রুততম সময়ের মধ্যে ইউনিয়নের ৫ কর্মকর্তার চাকুরি ফেরত দেয়া, ট্রেড ইউনিয়নের কোনো সদস্যকে ইউনিয়ন করার অপরাধে চাকুরিচ্যুত না করা, চাকুরিজীবীদের আইনগত সকল পাওনা পরিশোধ করা এবং প্রতিষ্ঠানে সুষ্ঠু কর্ম পরিবেশ নিশ্চিত করার দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলন থেকে আগামী ২৮ জুলাই বিটিআরসি, শ্রম দপ্তরের মহাপরিদর্শক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান, ৩০ জুলাই গ্রামীনফোন সেন্টারের সামনে নাগরিকদের মাঝে লিফলেট বিতরণ, ৩১ জুলাই কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তরের সামনে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান এবং ১ আগস্ট জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।
সংবাদ সম্মেলন থেকে বলা হয় ১ আগস্টের মধ্যে দাবি মেনে না নেয়া হলে দেশব্যাপী আরও বৃহত্তর আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে জানানো হয়।