কৃষ্ণচূড়ার আড্ডায়—-

8

সাইফুল ইসলাম শিশিরঃ দীর্ঘদিন পর সেদিন সিরাজগঞ্জ-এ ‘কৃষ্ণচূড়ার আড্ডায়’ গিয়েছিলাম। পরিচ্ছন্ন, অগ্রচিন্তার মানুষদের সান্ধ্যকালীন এক মিলন কেন্দ্র। যেখানে মুড়ি আর লাল চা খেতে খেতে দেশাল আড্ডা চলে রাত ১২টা অব্দি। শিল্প-সাহিত্য, রাজনীতি, ইতিহাস- সংস্কৃতি, ধর্ম- কর্ম, নিয়ে, কখন কোন বিষয়ে যুক্তি- তর্ক জমে উঠবে, আগে থেকে তা ঠাহর করা মুশকিল। হতে পারে কালিঞ্জা থেকে চেরাপুঞ্জি হয়ে ফিলাডেলফিয়া।

সেদিন আলোচনা জমে উঠে দক্ষিণ বঙ্গের উন্নয়ন ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ঘিরে। শনৈঃশনৈঃ দেশ এগিয়ে যাবে, দেশের চেহারাটাই নাকি পালটে যাবে। কেউকেউ খুশিতে ডগমগ। সিংগাপুর দেখা হয়নাই। এবার বাড়ির পাশে আরশি নগর – – পটুয়াখালী দেখার সুযোগ হবে। কিন্তু গোলটা বাঁধালো গোলাম রাব্বানী। আলোচনার মোড়টাই সে দিলো ঘুরিয়ে। “এতো খুশি ভালো না। বন্দর নির্মাণের ফলে পায়রা নদি- সাগরের মোহনায় পলি পড়ে এলাকা ভরাট হয়ে যাবে। ড্রেজিং করতে লাগবে বছরে আট হাজার কোটি টাকা। সবাই এক সাথে বলে উঠল “আট হাজার কোটি টাকা!!!” একটি পুরানো স্মৃতি মনে পড়ছে।

৭০ এর দশকের মাঝামাঝি। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়’র লাইব্রেরির উত্তর চত্বরে একদল ছাত্র বসে প্রায়শই আড্ডা দিতো। অন্যরা বলতো ঐটা হলো জ্ঞানীর আঁখড়া। যুদ্ধ- অস্ত্র, ক্রিকেট, সংগীত, সিনেমা, মদ- সিগারেট নিয়ে সব ‘হাইথট’ এর কথাবার্তা। ইলিয়াস নামে ইংরেজি সাহিত্যের একজন ছিলো সে আসরের মধ্যমণি। সে একদিন সবার উদ্দেশ্যে প্রশ্ন করলো,বলতো পৃথিবীতে সবচেয়ে দামি সিগারেট এর নাম কী? একজন বললো আব্দুল্লাহ, যার প্রতি প্যাকেটের মূল্য তখন ৫০০ টাকা। রীতিমতো সেলিব্রেটি ব্র‍্যান্ড। যার গায়ে সতর্ক বানী লেখা ‘Don’t Smoke even Abdulla’. একজন তথ্য দিল বাংলাদেশে রেয়ার দুএকজন এ সিগারেট টানে – “মিজান চৌধুরী”। তাঁর দিনে তিন প্যাকেট লাগে।

সাঈদ আকবর বড়ই রসিকজন “চৌধুরী সাহেব দিনে যদি সিগারেটই টানে ১৫০০ টাকার, নাজানি ‘রঙ্গিন পানীয়’ পান করেন কত টাকার।”-লেখক: একজন সমাজকর্মী।